মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ফ্রিডম হাউসের সূচক প্রকাশ বাংলাদেশ ‘আংশিক মুক্ত’

আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০২:১৬ এএম

ফ্রিডম হাউসের গণতান্ত্রিক স্বাধীনতার সূচকে বাংলাদেশকে ‘আংশিক মুক্ত’ দেশের তালিকায় রাখা হয়েছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক পর্যবেক্ষক ও গবেষণা সংস্থা ফ্রিডম হাউসের বার্ষিক ‘ফ্রিডম অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ প্রতিবেদনে সব মিলিয়ে বাংলাদেশের স্কোর হয়েছে ১০০’র

মধ্যে ৪১।

রাজনৈতিক অধিকার ও নাগরিক স্বাধীনতা দুই মানদণ্ডেই বাংলাদেশের রেটিং হয়েছে ৭-এর মধ্যে ৫। ফ্রিডম রেটিংয়ে একটি দেশের রেটিং ১ থেকে ২.৫-এর মধ্যে হলে তাকে ‘ফ্রি’, ৩ থেকে ৫ হলে ‘পার্টলি ফ্রি’ এবং ৫.৫ থেকে ৭-এর মধ্যে থাকলে ‘নট ফ্রি’ ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে।

বিশ্বের ১৯৫টি দেশ ও ১৪টি অঞ্চলের পরিস্থিতি বিবেচনা করে ‘ফ্রিডম অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ শীর্ষক এই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ফ্রিডম হাউস।

প্রতিবেদনে বাংলাদেশ প্রসঙ্গে বলা হয়, ‘সংসদীয় নির্বাচনে বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছে। দেশের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ভোটের দিন ব্যাপক অনিয়ম এবং সহিংসতার খবর পাওয়া যায়। এই সহিংসতায় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মানুষ নিহত হয়।’ বাংলাদেশের পাশাপাশি ‘আংশিক মুক্ত’ দেশের তালিকায় আছে আলবেনিয়া, আর্মেনিয়া, ভুটান, বলিভিয়া, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, বুরকিনা ফাসো, কলম্বিয়া, কমরোস, ক্রিমিয়া, ডমিনিক রিপাবলিক, ইকুয়েডর, ফিজি, গাম্বিয়া, জর্জিয়া, গুয়াতেমালা, গিনি, গিনি-বিসাউ, হাইতি, হংকং, হাঙ্গেরি, ইন্দোনেশিয়া ছাড়াও আরও কিছু দেশ।

১৯৮৮ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত গণতান্ত্রিক পরিবর্তনের চিত্র ধরা পড়ে ফ্রিডম হাউসের সূচকে। ‘গণতান্ত্রিকভাবে মুক্ত নয়’ এমন দেশের হার ওই সময়ে ৩৭ শতাংশ থেকে কমে ২৩ শতাংশ হয়। আর ‘গণতান্ত্রিকভাবে মুক্ত’ দেশের হার ৩৬ শতাংশ থেকে বেড়ে হয় ৪৬ শতাংশ। ফ্রিডম হাউস বলছে, ওই অবস্থা থেকে বিশ্ব এখন উল্টো পথে হাঁটছে। ২০০৫ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে ‘গণতান্ত্রিকভাবে মুক্ত নয়’ এমন দেশের হার বেড়ে হয়েছে ২৬ শতাংশ। আর ‘মুক্ত’ দেশের হার নেমে এসেছে ৪৪ শতাংশে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত