সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

তালিকাভুক্তির পাঁচ বছরেই সংকটে দুই কোম্পানি

আপডেট : ০৪ মার্চ ২০১৯, ১২:২৭ এএম

পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহের পাঁচ বছরের মধ্যে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে তালিকাভুক্ত তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িং ও সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলস কোম্পানি। কারখানার উৎপাদন বন্ধ ও হিসাব বছর শেষ হলেও নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন দাখিলে ব্যর্থতাসহ বিভিন্ন কারণে সংকটে পড়েছে এ দুই কোম্পানি। ফলস্বরূপ ‘জেড ক্যাটাগরি’তে স্থান পাওয়া কোম্পানি দুটির শেয়ার লেনদেন হচ্ছে অভিহিত মূল্যের অর্ধেকেরও নিচে। এখন তালিকাচ্যুতির শঙ্কায় রয়েছে এ দুই কোম্পানি।

মূলত তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িং ও সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল পরিচালনায় উদ্যোক্তা পরিচালকরা সক্রিয় না থাকায় কোম্পানি দুটি ডুবতে বসেছে। সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলের কারখানাটি প্রায় এক বছর ধরে উৎপাদন বন্ধ। ২০১৭-১৮ সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনও দাখিল করতে পারেনি কোম্পানিটি। কোম্পানির সার্বিক পরিস্থিতিতে তালিকাচ্যুত করতে সুপারিশ করেছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)। তালিকাভুক্তির পাঁচ বছরের মধ্যেই এ দুই কোম্পানি অস্তিত্ব সংকটের মুখে পড়েছে। তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িং ও সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল কাগজে-কলমে ২০১৬-১৭ হিসাব বছরের তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত মুনাফা দেখালেও বার্ষিক নিরীক্ষিত প্রতিবদন দাখিল করতে পারেনি।

পর্যালোচনায় দেখা যায়, ২০১৪ সালের নভেম্বরে পুঁজিবাজার থেকে অভিহিত মূল্যে ৪৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলস লিমিটেড। সংগৃহীত অর্থের ৬৮ শতাংশ দিয়ে ব্যাংকঋণ পরিশোধ এবং অবশিষ্ট অর্থ দিয়ে কারখানা ভবন ও যন্ত্রপাতি সংযোজনে ব্যয় করে কোম্পানিটি। অর্থ সংগ্রহের সময় সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল প্রাক-আইপিও শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) দেখায় ১ টাকা ৭৮ পয়সা। তালিকাভুক্তির পর থেকেই কোম্পানির মুনাফা ধারাবাহিকভাবে কমতে দেখা গেছে। ২০১৬ সালে সর্বশেষ ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করে কোম্পানিটি।

জানা গেছে, সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রোকসানা মোরশেদ তালিকাভুক্ত অপর কোম্পানি ফ্যামিলিটেক্সেরও উদোক্তা। রোকসানা মোরশেদ, তার স্বামী মোহাম্মদ মোরশেদ ও অপর উদ্যোক্তা জুন কিয়ং উন তাদের হাতে থাকা ফ্যামিলিটেক্সের উদ্যোক্তা শেয়ার তালিকাভুক্তির দুই বছরের মধ্যেই পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই বিক্রি করে দেন। ফ্যামিলিটেক্স তালিকাভুক্তির দুবছর পর ২০১৫ সাল থেকে শুরু করে ২০১৭ মধ্যে নিজেদের ৪১ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করেন উদ্যোক্তা পরিচালকরা। এ উদ্যোক্তাদেরই একটি অংশ সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলেরও উদ্যোক্তা পরিচালক।

রোকসানা মোরশেদ সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, যার হাতে তালিকাভুক্তির আগে কোম্পানির ২৫ শতাংশ শেয়ার ছিল। তালিকাভুক্তির পর তার শেয়ার নেমে আসে ১৮ দশমিক ৫৭ শতাংশে। সবমিলিয়ে সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল তালিকাভুক্তির সময় উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে ৩০ দশমিক ২৯ শতাংশ শেয়ার ছিল।

বর্তমানের তাদের সম্মিলিত শেয়ার ধারণের পরিমাণ নেমে এসেছে ২২ শতাংশে। বিএসইসির নির্দেশনা অনুযায়ী, তালিকাভুক্ত কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকদের সম্মিলিত শেয়ার ধারণের পরিমাণ সর্বনিম্ন ৩০ শতাংশ থাকতে হবে এবং এর কম থাকলে উদ্যোক্তা শেয়ার  বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে এ কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকের শেয়ার কীভাবে কমল, তার ব্যাখ্যা স্টক এক্সচেঞ্জ কিংবা কোম্পানি কর্তৃপক্ষ দিতে পারেনি।

জানা গেছে, সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলের উদোক্তা পরিচালকের মধ্যে বিবাদ থাকায় ২০১৭ সালের শুরু থেকেই কারখানার উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। স্টক এক্সচেঞ্জের পরিদর্শনে এর সত্যতা মেলায় জেড ক্যাটাগরিতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আর কারখানা চালুর সম্ভাবনা না থাকায় সিএসই কোম্পানিটিকে তালিকাচ্যুতির সুপারিশ করে বিএসইসিতে চিঠি পাঠিয়েছে।       

এদিকে তালিকাভুক্তির প্রক্রিয়া চলাকালীন তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িংয়ের প্রধান উদোক্তা নিজ কারখানায় অগ্নিকা- দুর্ঘটনায় নিহত হওয়ার পর থেকেই সংকটে রয়েছে কোম্পানিটি। এমন পরিস্থিতিতে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হলেও ব্যবস্থাপনা সংকটের কারণে দিন  দিন পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। পরিচালকদের মধ্যেও বিবাদ রয়েছে। ২০১৬-১৭ হিসাব বছরের তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত কোম্পানিটি মুনাফা দেখালেও নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন দাখিল ও বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) করতে ব্যর্থ হয় কোম্পানিটি।

পরের বছর ২০১৭-১৮ হিসাব বছর শেষ হলেও গত সাত প্রান্তিকে কোনো প্রতিবেদন প্রকাশ করতে পারেনি কোম্পানিটি।

ফলস্বরূপ ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে পাঠায় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

২০১৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িং লিমিটেড। সে সময় অভিহিত মূল্যে সাড়ে ৩ কোটি শেয়ার ছেড়ে ৩৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে কোম্পানিটি। সংগৃহীত অর্থের ৪৫ শতাংশ ব্যাংক ঋণ পরিশোধে ও অবশিষ্ট অর্থ মূলধনী বিনিয়োগ করে কোম্পানিটি। তালিকাভুক্তির সময় কোম্পানির ইপিএস ছিল ১ টাকা ৩৯ পয়সা। 

প্রান্তিক ও নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ না করা সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ রুলস, ১৯৮৭ এর ১২ ধারার লঙ্ঘন। এ বিধান ভঙ্গের দায়ে এরই মধ্যে এমারেল্ড অয়েলের পাঁচ পরিচালককে আর্থিক জরিমানা করেছে বিএসইসি। তুং হাই নিটিং অ্যান্ড ডায়িং ও সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইলস আর্থিক প্রতিবেদন দাখিলের ব্যর্থতা সম্পর্কে বিএসইসির মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সাইফুর রহমান দেশ রূপান্তরকে জানান, এমন পরিস্থিতিতে সিকিউরিটিজ আইনে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত