বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বিশ্ব প্রাণী দিবস আজ

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের বন্যপ্রাণী হুমকির মুখে

আপডেট : ০৪ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৩০ এএম

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে বিভিন্ন প্রজাতির পশুপাখি সংকটের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। কখনো গাড়িচাপা, কখনো বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে, কখনো আবার খাদ্যের খোঁজে লোকালয়ে এসে মানুষের হাতে মারা পড়ায় অস্তিত্ব বিলীনের হুমকির মুখে পড়েছে সেখানকার প্রাণিকুল। বনসংশ্লিষ্টদের ভাষ্য, লাউয়াছড়ার মধ্য দিয়ে শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলার সংযোগ সড়ক, আখাউড়া-সিলেট রেলপথ এবং ৩৩ হাজার কেভি বিদ্যুৎ লাইন টানা রয়েছে। বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বিদ্যুৎ লাইনে কাভার লাগাতে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে চিঠি দিয়েছে বন বিভাগ। তা ছাড়া আজ ৪ অক্টোবর বিশ্ব প্রাণী দিবস উপলক্ষে প্রাণীদের রক্ষায় সরকারের জোরালো পদক্ষেপ কামনা করেছে পরিবেশবাদী সংগঠনগুলোও।

একাধিক সূত্র জানায়, কমলগঞ্জে ১ হাজার ২৫০ হেক্টর আয়তনের চিরহরিৎ উদ্যানটিতে গত ১০ বছরে লাউয়াছড়া বনের প্রায় ৩০ শতাংশ গাছ উজাড় হয়ে গেছে। ফলে আবাসস্থল নষ্ট হওয়ায় প্রাণীরা বেরিয়ে পড়ছে লোকালয়ে। এতে লাউয়াছড়ার আশপাশের গ্রামগুলোতে সাপ, বানর ও বনবিড়ালের উপদ্রব বেড়েছে।

বন বিভাগ ও বন্য প্রাণী সেবা সংস্থা শ্রীমঙ্গলের তথ্যমতে, ২০২০ সালের জুন থেকে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন জাতের ৫০টি সাপ, ১০টি গন্ধগোকুল, ৫টি মেছো বিড়াল, ৭টি লজ্জাবতী বানর, ৫টি হরিণ শাবক এবং ৫০টি পাখিসহ প্রায় দুই শতাধিক আটক ও আহত বন্য প্রাণী লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া গত এক বছরে এ উদ্যানে ৪টি অজগর, ৫০টি বিষধর সাপ, ৪টি চিত্রা হরিণ, ৫টি বন্য শূকর, ৪টি বানরসহ শতাধিক প্রাণী গাড়িচাপা ও বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেছে।

পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো লাউয়াছড়ার ভেতরের সড়ক ও রেলপথের দুপাশে নিরাপত্তাবেষ্টনী তৈরি করে প্রাণীদের চলাচল নির্বিঘ্ন করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে দাবি করে আসছে।

কমলগঞ্জ জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আহাদ মিয়া বলেন, ‘লাউয়াছড়ার বন্য প্রাণীরা এখন চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। বনের জীববৈচিত্র্য রক্ষায় এখনই সরকারের পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।’

শ্রীমঙ্গলের বন্য প্রাণী সেবা সংস্থার পরিচালক স্বপন দেব সজল দেশ রূপান্তরকে জানান, ২০১২ সাল থেকে লোকালয়ে বেরিয়ে আসা ও আহত প্রায় পাঁচ শতাধিক প্রাণী তার সংস্থার মাধ্যমে লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত করেছেন।

লাউয়াছড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘বন্য প্রাণীদের সুরক্ষায় ইতিমধ্যে উল্লুককসহ বানর প্রজাতির প্রাণীদের জন্য পাঁচটি সেতু তৈরি করা হয়েছে। বনের ভেতরের বিদ্যুৎ লাইনে কাভার স্থাপনের জন্য বিদ্যুৎ বিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত