মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বিএনপির সঙ্গে দূরত্ব ইসলামপন্থিদের

আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০২২, ০৩:৫৫ এএম

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটে বলতে গেলে নেই নিবন্ধিত ইসলামী রাজনৈতিক দলগুলো। তবে ইসলামী ঐক্যজোট ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের একটি অংশকে জোটে রেখে ইসলামী দলের সংখ্যা মোটামুটি ঠিক রাখা হয়েছে।

ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশ (আবদুর রকিব) ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের (মনসুরুল হাসান রায়পুরী-মহিউদ্দীন ইকরাম) একাংশ ২০-দলীয় জোটে থাকলেও তাদের নিবন্ধন নেই। নিবন্ধনের আবেদনও করেনি তারা। দুই দলের মধ্যে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামকে জানান দেওয়ার মতো কিছু কর্মসূচিতে মাঠে দেখা গেলেও বিবৃতি আর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক ছাড়া ইসলামী ঐক্যজোটকে দেখাই যায় না। ময়দানে তাদের কোনো কর্মসূচি নেই।

আন্দোলনের চূড়ান্ত রূপরেখা ঠিক করতে সরকারের বিরুদ্ধে যারা যুগপৎ আন্দোলন করতে ইচ্ছুক সেসব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে দ্বিতীয় দফায় সংলাপ শুরু করেছে বিএনপি। প্রথম দফার মতো দ্বিতীয় দফাতেও উপর্যুক্ত দুই দলের সঙ্গে সংলাপ করেছে বিএনপি নেতৃত্ব। গত ১৮ অক্টোবর জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সঙ্গে সংলাপ শেষে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গণমাধ্যমকে জানান, ‘সরকারের পদত্যাগ, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে একমত হয়ে যুগপৎ আন্দোলন করতে আমরা একমত হয়েছি।’

জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় এক নেতা দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ইসলামবিরোধী কোনো আইন পাস না করা, স্বকীয়তা বজায় রেখে কওমি সনদের মূল্যায়ন ও আলেম-উলামাদের কল্যাণে আমরা কিছু দাবির কথা জানিয়েছি। তারা আমাদের আশ^স্ত করেছেন।’ জোটে থাকার দরুন কোনো চাপ আছে কিনা জানতে চাইলে ওই নেতা বলেন ‘সবাই অবগত, কোন অবস্থার মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে!’

লেখক ও ইসলামী রাজনীতিক মাওলানা নাজমুল হকের মতে, ‘আলেম-উলামা ও কওমি মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষার্থীদের মধ্যে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোর ব্যাপক প্রভাব রয়েছে। অতীতের নির্বাচনে ভোটের বাক্সে এর প্রতিফলন দেখা গেছে। পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে ধর্মভিত্তিক দলগুলোর জোট-ত্যাগ জাতীয়তাবাদী শক্তির জন্য বিশাল ধাক্কা। আগামী নির্বাচনে আলেম-উলামাদের আস্থা অর্জন করে সাধারণ মানুষের ভোট পেতে ইসলামী দলের সঙ্গে সম্পর্ক বেশ জরুরি। এক্ষেত্রে অনেকটাই ব্যাকফুটে বিএনপি। সোজা কথা, ভোটের রাজনীতিতে ইসলামী দলগুলো গুরুত্বপূর্ণ হলেও ‘ইসলামী মূল্যবোধের দাবিদার’ রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পর্ক না থাকা অথবা নিবন্ধিত বা প্রভাবক কোনো দলের সঙ্গে সম্পর্ক না থাকা বিএনপির জন্য স্বস্তিকর বিষয় নয়।’

নিবন্ধিত শেষ দল হিসেবে গত বছরের ১ অক্টোবর বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট ছেড়ে যায় খেলাফত মজলিস। দলটির মহাসচিব হেফাজতে ইসলামের মামলায় কারান্তরীণ থাকা অবস্থায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এই ঘোষণার ২ মাস ৮ দিন পর ৯ ডিসেম্বর দলের মহাসচিব আহমদ আবদুল কাদের মুক্তি পান। ২০-দলীয় জোট ছাড়ার সময় সরকারের চাপের কথা অস্বীকার করে মান-অভিমানের কথা বলে কয়েকটি কারণ দেখিয়ে জোট ছাড়ে কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক এই রাজনৈতিক দল।

জোট ছাড়ার ঘোষণায় দলটির আমির মাওলানা ইসহাক বলেছিলেন, ‘জোট কোনো স্থায়ী বিষয় নয়। খেলাফত মজলিস ২০-দলীয় জোটে ২২ বছর ধরে ছিল। ২০১৯ সাল থেকে ২০-দলীয় জোটের দৃশ্যমান রাজনৈতিক তৎপরতা ও কর্মসূচি নেই। ২০১৮ সালে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের মধ্য দিয়ে ২০-দলীয় জোটকে কার্যত রাজনৈতিকভাবে অকার্যকর করা হয়। তাই ২০-দলীয় জোটসহ সব রাজনৈতিক জোটের সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করছে খেলাফত মজলিস।’

দলটির একাধিক নেতা সরকারের চাপ থাকার বিষয়টি সরাসরি স্বীকার না করলেও মূলত রাজনৈতিক কারণেই জোট ছেড়েছেন তারা। এই বিষয়ে তাদের বক্তব্য ‘ভাই! বোঝেনই তো...।’

‘নির্বাচন কিংবা জোট গঠনে কোনো চাপ নেই’ উল্লেখ করে দলটির নায়েবে আমির মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘রাজনৈতিক যেকোনো সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে প্রথমে আমাদের দলীয় ফোরামে আলোচনা হয়। গত মাসে আমাদের নির্বাহী কমিটির ত্রৈমাসিক বৈঠক হয়েছে। সেখানে কোনো দলের সঙ্গে জোট বা সমঝোতার কথা আলোচনা হয়নি। তবে ঐক্যপ্রত্যাশী কেউ এগিয়ে এলে আমরাও এগিয়ে যাব। দেশের স্বার্থে, জনগণের কল্যাণে কোনো সিদ্ধান্ত হলে আমাদের দল পিছিয়ে থাকবে না।’ 

একই বছরের ১৪ জুলাই ২০-দলীয় জোট ছাড়ে কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক প্রাচীন ধর্মীয় সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। জোট ত্যাগের সময় ইসলামী মূল্যবোধের প্রতি বিএনপির অনাস্থা এবং জোটের শরিক দল হিসেবে যথাযথ মূল্যায়ন না করাসহ কয়েকটি অভিযোগ আনে জমিয়তে। হেফাজতে ইসলামের মামলায় জমিয়তের প্রথম সারির কয়েকজন নেতা গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে থাকা অবস্থায় জোট ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয় সংগঠনটি। জোট ত্যাগের সপ্তাহ না পেরুতেই জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের তিন কেন্দ্রীয় নেতার মুক্তি মেলে। এরপর আরও কয়েকজন নেতা জামিনে মুক্তি পান।

দলীয় সূত্র জানায়, জোট ছাড়ার পর গত ডিসেম্বরে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসমারোহে জাতীয় কাউন্সিল হয়েছে। দলটির ছাত্র ও যুব সংগঠন সারা দেশে ব্যাপক সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। দলের মহাসচিব মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক ও সহ-সভাপতি মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী নিজ নিজ এলাকা থেকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আগামীতে একক কিংবা আলাদাভাবে নিবন্ধিত-অনিবন্ধিত কয়েকটি ইসলামী দলের সঙ্গে নির্বাচনী সমঝোতা করে ভোটের মাঠে নামতে পারে জমিয়তে।

‘যোগ্য নেতৃত্বের অভাবে ইসলামী ধারার দলগুলো সুবিধা করতে পারছে না’ উল্লেখ করে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের এক নেতা বলেন, ‘ধর্মভিত্তিক দলগুলো যাতে নিজেদের মতো ‘নির্বাচনী সমঝোতা বা জোট’ গড়ে তুলতে পারে, তার জন্য সরকারের দিক থেকে উৎসাহ আছে। ইতিমধ্যে ধর্মভিত্তিক কয়েকটি দলের মধ্যে নির্বাচনকেন্দ্রিক সমঝোতার লক্ষ্যে অনানুষ্ঠানিক আলোচনা শুরু হয়েছে। সম্ভাব্য জোটের কর্মপদ্ধতি ও নেতৃত্বের বিষয়টি স্পষ্ট করে একসঙ্গে পথ চলতে আপত্তি নেই জমিয়তের বেশিরভাগ নেতার।’

বিএনপির শরিকরা জোট ছেড়ে গেলেও ২০-দলীয় জোটে দলের সংখ্যায় হেরফের হয়নি। যখনই কোনো দল জোট ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে, তখনই দলের অন্য একজন নেতার নেতৃত্বে একাংশ একই নামে আলাদা দল গঠনের ঘোষণা দিয়ে ২০ দলে থেকে গেছে। অবশ্য বিএনপি দাবি করেছে, সরকারের চাপে পড়েই শরিক ইসলামী দলগুলো জোট ছেড়েছে।

জমিয়তের জোট ত্যাগের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, ‘এটা রাজনীতি। রাজনীতি ভাঙা-গড়ার খেলা। একূল ভাঙে, ওকূল গড়ে এ রকম চলতেই থাকে। মূল বিষয় সেটা নয়। বিষয়টা হচ্ছে, তারা চলে যাবেন সরকারের চাপে। মামলা-মোকদ্দমা, প্রচণ্ড রকমের চাপ আছে। অনেকের চাকরিও চলে যাবে। তারা রাজনৈতিক দল। তাদের যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার আছে।’

হেফাজতে ইসলামের কোণঠাসা হওয়ার প্রভাব পড়ে কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক দলগুলোর ওপর। সবচেয়ে বেশি চাপে পড়ে বিএনপি জোটের শরিকরা। ২০২১ সালের মার্চে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরবিরোধী বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন স্থানে সহিংস ঘটনায় প্রায় এক হাজার ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের বেশিরভাগ ধর্মভিত্তিক বিভিন্ন দল ও সংগঠনের নেতাকর্মী ও সমর্থক।

জানা যায়, মামলা-হামলার ভয়েই মূলত রাজপথে ইসলামী দলগুলোর তৎপরতা কমে গেছে। তবে তারা দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ইসলামী দলের নেতারা জানান, তারা স্বাধীন ও স্বাভাবিকভাবে দলীয় কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারছেন না। নানা ধরনের বিধিনিষেধ রয়েছে। এমন গুমোট পরিবেশ থেকে বের হয়ে আসাই বড় চ্যালেঞ্জ।

ইসলামী রাজনীতি থেকে ক্ষোভে ও অভিমানে দূরে থাকা একাধিক নেতা ভিন্নমত পোষণ করে দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘দুই-একটা দল বাদে ইসলামী রাজনৈতিক দলগুলো অভ্যন্তরীণ কোন্দল, স্বজনতোষণ, নিয়ম না মানার রীতি, কোনো কোনো নেতার নৈতিকতা-বিবর্জিত কর্মকান্ড, সুবিধাবাদিতা ও প্রত্যাশা-প্রাপ্তির বাসনার কারণে ভাঙতে ভাঙতে বিলীন হওয়ার পথে। তারা মুখ বাঁচাতে, নেতাকর্মীদের কাছে ভালো সাজতে নানা চাপের কথা বলে দায় এড়ায়। ইসলামী দলগুলোতে যোগ্য নেতৃত্বের অভাব রয়েছে। জনসম্পৃক্ততা না থাকা, মাঠে কাজ না করে বড় দল থেকে সুবিধা আদায়ের মানসিকতা এজন্য দায়ী।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত