বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

দারিদ্র্য-জলবায়ু ঝুঁকি কমাতে বিনিয়োগ করবে বিশ্বব্যাংক

আপডেট : ২৩ জানুয়ারি ২০২৩, ০৭:২৮ এএম

স্বাধীনতার পর গত ৫০ বছরে দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির দেশ হিসেবে বাংলাদেশ সারা বিশে^র নজর কেড়েছে। সারা বিশে^র মতো বিস্ময় প্রকাশ করেছে বিশ^ব্যাংকও। এ মুহূর্তে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা, শিক্ষায় উন্নয়ন ও দারিদ্র্য নিরসন বাংলাদেশের জন্য চ্যালেঞ্জ, যেখানে বিনিয়োগ সহযোগী হিসেবে এগিয়ে আসবে বিশ^ব্যাংক।

গতকাল রবিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশের সঙ্গে বিশ^ব্যাংকের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ‘সেলিব্রেটিং এ জার্নি টুগেদার : বাংলাদেশ অ্যান্ড দ্য ওয়ার্ল্ড ব্যাংক ফিফটিথ অ্যানিভার্সারি ইভেন্ট’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন সংস্থাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এক্সেল ভন ট্রটসেনবার্গ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ এখন দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতিগুলোর একটি। অথচ ২০০০ সাল পর্যন্ত এ দেশের অর্থনীতির গতি ছিল খুবই ধীরগতির। এ সময় পর্যন্ত প্রতি বছর প্রায় ৬ শতাংশ গড় প্রবৃদ্ধি ছিল। এ সময়ে লাখো মানুষ দারিদ্র্যসীমা থেকে বেরিয়ে এসেছে। ১৯৭২ সাল থেকে বিশ^ব্যাংকের সঙ্গে এ দেশের পথচলা শুরুর পর এখন দেশের মানুষের গড় আয় ২১ শতাংশ বেড়েছে। ফলে ২০১৫ সালে নিম্ন মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হয় তারা। বাংলাদেশের সাম্প্রতিক সফলতা কডিভ মহামারী নিয়ন্ত্রণ।

বাংলাদেশের সাফল্যের একটি দিক হলো জলবায়ু সংকটে ভুক্তভোগীদের রক্ষায় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ। বিদ্যালয়গুলোকে আশ্রয়কেন্দ্র বানানোর এ মডেলটি প্রশংসনীয়। বিশ্বের জলবায়ু ঝুঁকিতে থাকা সব দেশকে এটি অনুসরণ করার পরামর্শ দেব। আগামীকাল মঙ্গলবার দেশের উপকূলীয় অঞ্চলের আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করবেন ট্রটসেনবার্গ।

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে সারা বিশ্বে বাংলাদেশ প্রশংসিত হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরে ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে এ দেশে আশ্রয় দিয়েছে দেশটি। বিশ^ব্যাংক কানাডার সরকারের সঙ্গে যৌথভাবে আলোচনা করে এদের জন্য ৫৯ কোটি ডলার অর্থায়ন করেছে। ট্রটসেনবার্গ বাংলাদেশের সঙ্গে ৫০ বছরের ফলপ্রসূ অংশীদারিত্ব উদযাপনকালে, বাংলাদেশের প্রতি বিশ্বব্যাংকের দৃঢ় সহায়তার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন। পরে বিশ্বব্যাংকের আয়োজনে এক সংবাদ সম্মেলনে ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, বাংলাদেশ এখন ডিজিটালাইজেশনের একটি চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জও আছে। তবে দেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে, ৭২ সালের পর এখন পর্যন্ত রপ্তানি আয় ১০ গুণ বেড়েছে।

অর্থনৈতিক সংকটে বাংলাদেশকে বাজেট সহায়তা দেওয়া হবে কি না সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটি নির্ভর করে বাংলাদেশের নেওয়া প্রকল্পের গুরুত্বের ওপর। আমরা এখন জলবায়ু ও শিক্ষায় জোর দিচ্ছি। এ ছাড়া সব দেশেই ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (আইডিএ) মাধ্যমে সমান বিনিয়োগ করা হচ্ছে। বাংলাদেশের ২৫ শতাংশ প্রকল্প বিদেশি অর্থায়নে হয়। গত বছর অর্গানাইজেশন অব ইকোনমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ওইসিডি) দেশগুলো থেকে অনেক মূলধন নিয়েছে বাংলাদেশ।

রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে বিশ্বব্যাংকের কোনো পরিকল্পনা আছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ট্রটসেনবার্গ বলেন, এ ইস্যুকে আমরা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। এটা এ দেশের অর্থনীতির ওপর প্রভাব ফেলছে। রোহিঙ্গা সমস্যা মোকাবিলায় বিলিয়ন ডলার ব্যয় হচ্ছে। সবাই আশা করছে তারা যেন রাজনৈতিকভাবে নিজের দেশে ফিরে যেতে পারে। মঙ্গলবার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে যাব।

পদ্মা সেতুর বিনিয়োগ সরিয়ে নেওয়া ভুল ছিল কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রতি বছর সারা বিশ্বের তিন শতাধিক প্রকল্প প্রস্তাব ফিরিয়ে দিই। এটিও সে তালিকাতেই পড়েছিল।

ট্রটসেনবার্গ বলেন, পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতোই বাংলাদেশ অচিন্তনীয় বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি, কডিড-১৯, ইউক্রেনে রাশিয়ান আগ্রাসন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সৃষ্ট অনিশ্চয়তা ও চ্যালেঞ্জের সময়ে আমরা বাংলাদেশকে এর উন্নয়ন লক্ষ্যগুলো অর্জনের পথে সহায়তা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে দেশের উন্নয়ন শুরু। ৭২ সাল থেকে জিডিপির আকার ৭৪ গুণ বেড়েছে। ১৯৭২ সালে জিডিপির আকার ছিল ৬ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার, যা বর্তমান বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৬৫ বিলিয়ন ডলার।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ ৩৫তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ। আমাদের দারিদ্র্যের হার কমে হয়েছে ২০ শতাংশ। মাথাপিছু আয় বেড়ে ২ হাজার ৮২৪ ডলার। গড় আয়ু বেড়ে ৭৩ বছর হয়েছে। বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু, তবে আধুনিক বাংলাদেশের স্থপতি শেখ হাসিনা, এটা নিয়ে কারোর প্রশ্ন নেই। বাংলাদেশের উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক অনেক সহায়তা করছে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমাদের পরবর্তী টার্গেট ২০৩১ সালে বাংলাদেশ উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশ হবে। ২০৪১ সালে বাংলাদেশ স্মার্ট ডেভেলপমেন্ট বাংলাদেশ হবে।

এ সময় আরও বক্তব্য দেন বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রেইজার, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব শরিফা খান, বাংলাদেশ ও ভুটানে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর আবদুল্লাই সেক প্রমুখ।

বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রেইজার বলেন, স্বাধীনতার সময়ের দরিদ্র দেশের পরিচয় থেকে এ দেশ বিশে^র দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির সম্মানীয় পর্যায়ে। এ দেশের অগ্রযাত্রায় সবসময় অংশীদার হবে বিশ্বব্যাংক।

গত পাঁচ দশকের অসাধারণ যাত্রায় বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের অংশীদার। ১৯৭২ সালের আগস্ট মাসে বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংক গ্রুপের সদস্য হয়। ১৯৭২ সালের নভেম্বর মাসে বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংক প্রথম প্রকল্প হাতে নেয়। যার মাধ্যমে যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের পরিবহন ও যোগাযোগ, কৃষি ও শিল্পের পুনঃপ্রতিষ্ঠা এবং নির্মাণ ও বিদ্যুৎ খাতের সহায়তার জন্য ৫০ মিলিয়ন ডলারের জরুরি পুনরুদ্ধার ঋণ দেওয়া হয়। একই সময়ে বিশ্বব্যাংক চারটি প্রকল্প পুনরায় চালু করে।

স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের উন্নয়ন চ্যালেঞ্জগুলো অতিক্রমে ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (আইডিএ) আওতায় অনুদান, সুদবিহীন ঋণ এবং নমনীয় ঋণ হিসেবে প্রায় ৩৯ বিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। ৫৩টি চলমান প্রকল্পে প্রায় ১৫ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলারের অর্থায়ন রয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত