মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

দর্শনার্থীর ভিড়, বিক্রি কম

আপডেট : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৩:১১ এএম

ছুটির দিনের বইমেলা পরিণত হয় উৎসবে। গতকাল শনিবার সকাল থেকেই বাড়তে থাকে পাঠক-দর্শনার্থীর সমাগম; বিশেষ করে এ দিন স্কুল, কলেজ ও বিশ^বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তরুণদের আধিক্যে মেলা হয়ে ওঠে তারুণ্যের মেলা। তরুণদের কয়েকটি দলকে হাঁটতে হাঁটতে সমস্বরে গানও গাইতে দেখা যায়।

জানতে চাইলে কবি আসাদ চৌধুরী এসব দর্শনার্থী নিয়ে বলেন, ‘এরাই তো মেলার প্রাণ। তারুণ্যের পদচারণ না থাকলে তো মেলা জমবে না।’ কাকলী প্রকাশনীর ম্যানেজার ইমরান আহমেদ বলেন, ‘গত দুদিনে আমাদের এখানে যারা এসেছেন, তাদের অধিকাংশই হুমায়ূন সাহিত্যপ্রেমী। আর তাদের মাঝে ৯০ শতাংশই তরুণ।’

তবে এত দর্শনার্থী থাকলেও মেলায় বই বিক্রি নিয়ে সন্তুষ্ট নন প্রকাশকরা। অ্যাডর্ন পাবলিকেশনের সৈয়দ জাকির হোসেন বলেই ফেললেন, ‘সবাই একটা করে বই কিনলেও আজ সব স্টল খালি হয়ে যেত।’

এদিকে মেলার চতুর্থ দিনেও নানা অব্যবস্থাপনা দেখা গেছে। মেলার ভেতরে অতিরিক্ত ধুলাবালির কারণে মাস্ক পরে ঘুরতে দেখা গেছে দর্শনার্থীদের। এ ছাড়া মেলার প্রবেশপথগুলোতে পর্যাপ্ত আলো না থাকায় ভোগান্তিতে পড়তে তাদের। এ নিয়ে কথা হয় কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা রেজা ঘটকের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘বইমেলার ভেতরের ডিজাইন ও লে-আউট এবার যতটা ভালো হয়েছে, ঠিক তার উল্টো হয়েছে গেট ব্যবস্থাপনায়। প্রথম শুক্রবারই গেট ব্যবস্থাপনার সেই দুর্বলতা সুস্পষ্টভাবে ধরা পড়েছে!’

প্রাণবন্ত শিশুপ্রহর : এদিকে অমর একুশে বইমেলার শিশুপ্রহরের দ্বিতীয় দিন ছিল গতকাল। এদিন বেলা ১১টায় বইমেলার দুয়ার খুলতেই শিশু কর্নার প্রাণবন্ত হতে শুরু করে শিশু-কিশোরদের পদচারণে। শিশুপ্রহর জমজমাট হয়ে ওঠে টিভি পর্দার জনপ্রিয় অনুষ্ঠান সিসিমপুরের আয়োজনে। মেলায় বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থী ছাড়াও অনেক শিশুকে দেখা গেছে শিশুপ্রহরে। এ ছাড়া মা-বাবার সঙ্গে বই কিনতে দেখা যায় শিশুদের।

মেলায় আসা শিশু-কিশোরদের বইয়ের পছন্দের তালিকায় রয়েছে কমিকস, রূপকথা, গল্প, সায়েন্স ফিকশন, গণিত নিয়ে মজার খেলা ও ছড়ার বই।

এ ছাড়া শিশুদের বিনোদনের কেন্দ্রবিন্দু সিসিমপুরের মঞ্চ ছিল নানা বয়সী শিশুদের কোলাহলে মুখর। কারণ সেখানে ছিল টুকটুকি, শিকু, ইকরি ও হালুমের পরিবেশনা। এ সময় পছন্দের চরিত্রগুলোর ছবি তোলার হিড়িক পড়ে শিশুদের মাঝে। বাচ্চাদের ছোটাছুটি আর দুরন্তপনায় শিশুচত্বর প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে।

মেলায় শিশু-কিশোরদের আগমনে বিক্রি বেড়েছে শিশুচত্বরের স্টলগুলোতে। এই অংশের স্টল মালিকরা জানান, ছুটির দিন ও শিশুপ্রহর ছাড়া অন্য দিন মেলায় শিশু-কিশোরদের উপস্থিতি কম থাকে। তাই এ সময় শিশুচত্বরে বইয়ের বেচাকেনাও কম হয়। শুক্র-শনিবার অভিভাবকরা শিশু-কিশোরদের মেলায় নিয়ে আসেন। এই দুদিন বিক্রিও অন্যান্য দিনের তুলনায় কয়েক গুণ বেড়ে যায়।

মেলায় নায়ক ফেরদৌসের উপন্যাস

এবারের বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে ফেরদৌসের প্রথম বই ‘এই কাহিনি সত্য নয়’। প্রকাশ করেছে প্রথমা। শুক্রবার বইমেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশের মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে আনুষ্ঠানিকভাবে বইটি পাঠকের সামনে আনা হয়। এ সময় ফেরদৌসের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন লেখক আনিসুল হক, গীতিকবি কবির বকুলসহ অনেকে। ফেরদৌস জানান, কলকাতা থেকে শিলিগুড়ি যাওয়ার সময়কার একটি ঘটনা থেকে তার উপন্যাসের গল্পের সূচনা। এরপর সেখানে কল্পনার জগৎ বিস্তৃত করেছেন তিনি; অর্থাৎ সত্য এবং কল্পনার মিশেলে উপন্যাসটি সাজিয়েছেন নবীন এ লেখক। বইটির প্রচ্ছদ এঁকেছেন চিত্রশিল্পী মাশুক হেলাল।

নতুন বই

গতকাল মেলা চলে বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। নতুন বই এসেছে ১১৩টি।

মূল অনুষ্ঠান

বিকেল ৪টায় বইমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় স্মরণ : ড. আকবর আলি খান শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আমিনুল ইসলাম ভূঁইয়া। আলোচনায় অংশ নেন ফারুক মঈনউদ্দীন, মো. মোফাখখারুল ইকবাল ও কামরুল হাসান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মোহাম্মদ সাদিক।

আমিনুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, ‘ড. আকবর আলি খান প্রশাসনের বহু পদে সাফল্যের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। মুজিবনগর সরকারে তিনি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ছিলেন; পাকিস্তান সরকার তার বিরুদ্ধে জেলদণ্ডও ঘোষণা করেছিল। বহুকাল তিনি অর্থসচিব হিসেবে কাজ করেছেন, মন্ত্রিপরিষদ সচিব ছিলেন, বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক ছিলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টাও ছিলেন। সরকারি প্রশাসনিক কর্মে এসব সাফল্য সত্ত্বেও মনে করা যায় যে আকবর আলি খানের মূল পরিচয় তার পাণ্ডিত্যপূর্ণ লেখাজোখায় ছড়িয়ে আছে। পণ্ডিত হিসেবে তিনি অত্যন্ত উচ্চমানের সৃষ্টি রেখে গেছেন।’

আলোচকরা বলেন, ড. আকবর আলি খানের কাজের পরিধি ছিল বিস্তৃত। প্রশাসনের উচ্চপর্যায়ে থেকেও সৎ ও নির্ভীক আকবর আলি খান কঠোর ভাষায় অন্যায়, অদক্ষতা ও দুর্নীতির সমালোচনা করেছেন। এ দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তির কথা ভাবতেন তিনি। সামাজিক বৈষম্য ও দারিদ্র্য দূর করে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য তিনি তার মেধা ও মননকে কাজে লাগিয়েছেন। অর্থনীতি, ইতিহাস ছাড়াও নৃবিজ্ঞান ও সাহিত্য-সমালোচনার ক্ষেত্রেও তিনি তার প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। বিচিত্র বিষয়ে আগ্রহ তাকে একজন বহুমাত্রিক পণ্ডিতের পর্যায়ে উন্নীত করেছে।

সভাপতির বক্তব্যে মোহাম্মদ সাদিক বলেন, অর্থনীতি, ইতিহাস নৃবিজ্ঞান ও সাহিত্য নিয়ে গভীর জ্ঞানতাত্ত্বিক আলোচনা ড. আকবর আলি খানকে যেমন অমর করেছে, তেমনি বাঙালি জাতিকে করেছে ঋদ্ধ। এমন একজন বিবেকবান, স্পষ্টভাষী, সৎ ও নির্মোহ মানুষ আমাদের নতুন প্রজন্মের জন্য নিঃসন্দেহে অনুকরণীয় আদর্শ হয়ে থাকবেন।

লেখক বলছি

গতকাল ‘লেখক বলছি’ অনুষ্ঠানে নিজেদের নতুন বই নিয়ে আলোচনা করেন ফারুক হোসেন, আবদুল বাছির, ইসহাক খান এবং আফরোজা সোমা। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করেন কবি অসীম সাহা, অঞ্জনা সাহা ও ফরিদ কবির। আবৃত্তি পরিবেশন করেন আবৃত্তিশিল্পী মো. রফিকুল ইসলাম, অলোক কুমার বসু ও মিজানুর রহমান সজল। এ ছাড়া ছিল গোলাম কুদ্দুছের নেতৃত্বে সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘বহ্নিশিখা’র পরিবেশনা। সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী দিল আফরোজ রেবা, চন্দনা মজুমদার, আব্দুল লতিফ শাহ এবং শাহ আলম দেওয়ান। যন্ত্রানুষঙ্গে ছিলেন তুলসী সাহা (তবলা), ডালিম কুমার বড়ুয়া (কিবোর্ড), রতন কুমার রায় (দোতারা), মো. ফায়জুর রহমান (বাঁশি)।

আজকের সময়সূচি

আজ অমর একুশে বইমেলার ৫ম দিন। মেলা শুরু হবে বেলা ৩টায়, চলবে রাত ৯টা পর্যন্ত। আলোচনা বিকেল ৪টায় বইমেলার মূল মঞ্চে হবে স্মরণ : সমরজিৎ রায় চৌধুরী শীর্ষক আলোচনা। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন জাহিদ মুস্তাফা। আলোচনায় অংশ নেবেন মইনুদ্দীন খালেদ, মুস্তাফা জামান ও আনিসুজ্জামান সোহেল। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন শিল্পী হাশেম খান।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত