বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কষ্টার্জিত অর্থ কোথায় ব্যয় করা উচিত?

আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:২৭ পিএম

আল্লাহতায়ালা মানুষসহ অন্য সব প্রাণী এবং প্রাণবন্ত ও নির্জীব জিনিস এবং সমগ্র মহাবিশ্বের স্রষ্টা। কিন্তু মানুষের সৃষ্টি এবং অন্যান্য প্রাণী ও জীবের মধ্যে পার্থক্য কী? পার্থক্যটি মানুষের যুক্তির ক্ষমতার মধ্যে রয়েছে। রয়েছে তার সঠিক থেকে ভুল, ভালো থেকে খারাপ, জায়েজ থেকে অনুচিত ইত্যাদির মধ্যে পার্থক্য করার ক্ষমতার মধ্যে। যারা এই পার্থক্য উপলব্ধি করেন তারা নিশ্চিতভাবে জানেন যে, কোথা থেকে অর্থ উপার্জন করতে হবে এবং কোথা থেকে নয়, আর কষ্টার্জিত অর্থ কোথায় ব্যয় করবেন আর কোথায় করবেন না। এটা এই কারণে যে, আল্লাহ মানুষকে সৃষ্টি করেছেন ‘সর্বোত্তম কাঠামোতে।’ -সুরা ত্বীন : ৪

মানুষকে সর্বোত্তম কাঠামোয় সৃষ্টি করা হয়েছে। এর মানে হচ্ছে, তাকে এমন উন্নত পর্যায়ের দৈহিক সৌষ্ঠব দান করা হয়েছে, যা অন্য কোনো প্রাণীকে দেওয়া হয়নি। আকার আকৃতির বাইরেও আল্লাহতায়ালা তাকে জ্ঞানী, শক্তিবান, বক্তা, শ্রোতা, কুশলী ও প্রজ্ঞাবান করেছেন। ফাতহুল কাদির মানুষকে এসব এবং এ জাতীয় অন্যান্য শক্তি ও ক্ষমতা দিয়ে আশীর্বাদ করেছেন। কিন্তু প্রশ্ন হলো, মানুষ যে ক্ষমতা ও যোগ্যতার অধিকারী তা সে উপলব্ধি করে কিনা? সে কি সেগুলোর সঠিক ব্যবহার করে? সে কি সমস্ত নিয়ামত ও অনুগ্রহের জন্য কথায় ও কাজে আল্লাহতায়ালাকে ধন্যবাদ দেয়? চারপাশের জগতের ব্যাপারে একটি উপলব্ধি আমাদের বলে যে, আল্লাহতায়ালার একত্বে এবং তার শিক্ষায় বিশ্বাসী শুধু কিছু লোকই তা করতে সক্ষম। অন্যথায়, জনসাধারণের বিশাল অংশ ঐশী শিক্ষার প্রতি একেবারে উদাসীন হয়ে জাগতিক আনন্দে গভীরভাবে নিমজ্জিত। ফলে তারা তাদের ইচ্ছা ও উচ্চাকাক্সক্ষার দাস ছাড়া আর কিছুই নয়। কিছুদিন আগে, এক খবরে প্রকাশ হয়েছে, এক জাপানি তার পছন্দমতো ডিজাইন করা একটি আসল নেকড়ের পোশাক পেতে প্রায় ১৮.৮৫ লাখ ডলার খরচ করেছেন। এ জন্য তিনি জেপেট নামে একটি পেশাদার কোম্পানিকে নিয়োগ দেন। কিন্তু কেন তিনি এমন করলেন? তিনি বলেছিলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই পশুদের প্রতি আমার ভালেবাসা এবং টিভিতে কিছু আসল প্রাণীর স্যুট দেখে আমি একদিন অনুরূপ কিছুর স্বপ্ন দেখেছিলাম।’

এ খবরটি মনে করিয়ে দেয় টোকো নামে আরেক জাপানির ঘটনার কথা। তিনিও জেপেটের একজন গ্রাহক ছিলেন। তিনি প্রায় ১২.১৭ লাখ ডলার খরচ করেছিলেন এক ধরনের কুকুরের পোশাক তৈরি করতে, যা তাকে কুকুরের মতো সাজার দীর্ঘদিনের স্বপ্নপূরণ করেছিল।

এই দুই জাপানির গল্প থেকে বোঝা যায়, তারা এমনটা করেছিল কারণ তারা আল্লাহ প্রদত্ত মানুষের কষ্টার্জিত অর্থ কোথায় ব্যয় করবে এবং কোথায় নয় তা বিচার করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছিল। তাদের এই ধরনের ব্যয় সম্পদের নিছক অপচয় এবং আল্লাহ আমাদের ওপর যে দায়িত্ব দিয়ে রেখেছেন তার লঙ্ঘন।

মহান আল্লাহ বলেছেন, আমাদের কাছে যা কিছু আছে তা আল্লাহর আমানত। আমরা এটিকে আমাদের জীবনের প্রয়োজনীয়তার জন্য ব্যয় করতে পারি এবং দরিদ্র ও অভাবীদের জন্যও ব্যয় করতে পারি, অবশ্যই প্রতিটি ক্ষেত্রে এই অনুগ্রহের জন্য আমরা আল্লাহকে ধন্যবাদ জানাই।

আমরা যদি কাউকে ভালোবাসি, তাহলে আমাদের উচিত এমন একজনকে ভালোবাসা যিনি অমর; একটি কুকুর বা নেকড়ে অবশ্যই নশ্বর। একইভাবে আমরা যদি কিছু স্বপ্ন দেখি তবে আমাদের স্বপ্নটি মানবিকভাবে উচ্চ ও মহৎ হওয়া উচিত।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত