বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

রংপুরে সরকারি শেড বিক্রির অভিযোগ!  

আপডেট : ২২ মার্চ ২০২৪, ০৯:৩৩ পিএম
রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার সয়ার চাল্লিয়া বুড়িরহাট বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য নির্মিত সরকারি শেড দখল করে তা বিক্রির অভিযোগ উঠেছে কয়েকজন প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। এতে ওই শেড ব্যবহার করতে পারছেন না এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। তাই ভুক্তভোগী ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ন্যায়বিচারের দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বলে জানা গেছে। 
 
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার সয়ার চাল্লিয়া বুড়িরহাট বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের খোলাবাজারে মালামাল বিক্রির জন্য পর্যাক্রমে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর থেকে ১১টি শেড নির্মাণ করা হয়। একেকটি শেডে ১০-১৫ জন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী খোলাবাজারে দোকান করে জীবিকা নির্বাহ করেন। কিন্তু বাজারের কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি সরকারের নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে শেডের জায়গা দখল করেন। পরে সুকৌশলে টিনের বেড়া দিয়ে দোকানের জায়গা বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে তাদের রিরুদ্ধে। এতে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।
 
ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে বলেন, সরকার আমাদের জন্য খোলাবাজারে দোকানদারি করার জন্য শেড নির্মাণ করে দিয়েছেন। কিন্তু আমরা এর সুফল ভোগ করতে পারছি না। বাজারের প্রবেশ মুখে চারজনের জায়গা দখল করে প্রথম শেড দখল করেন সাদিনুর রহমান নামের এক চা বিক্রেতা। গত কয়েকদিন আগে সেই খোলা সরকারি শেড টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে চারজনের জায়গা ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন বলে জানা গেছে। 
 
ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী জিকরুল হক অভিযোগ করে বলেন, সাদিনুর রহমান চায়ের দোকান বাজারের প্রবেশ মুখে। এটি সরকারি খোলা শেড। সেই শেড টিন দিয়ে ঘেরার কারণে আমাদের ব্যবসা করতে সমস্যা হচ্ছে। সাদিনুর রহমান খোলা শেড ঘিরে ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। আমরা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা চেয়ারম্যানকে একাধিক বার জানালেও তিনি কোনরকম ব্যবস্থা নেননি। তাই আমরা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ইউএনও স্যারকে অভিযোগ করেছি। শুধু সাদিনুর রহমান নয় তার মতো একাধিক ব্যক্তি বাজারের খোলা শেড দখল করে বিক্রি করেছেন। 
 
সয়ার ইউপি চেয়ারম্যান আল ইবাদত হোসেন পাইলট বলেন, আমি নির্বাচিত হওয়ার আগের সমস্যা এটি। মাছ মাংস কাঁচা বাজারের শেডগুলো নিয়ে জটলা আছে। যেহেতু লিখিত অভিযোগ দিয়েছে সেক্ষেত্রে আইনী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য ইউএনও স্যারকে সহায়তা করবো।
 
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল রানা বলেন, কৃষক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের অস্থায়ীভাবে বসার জন্য হাটবাজারের সংরক্ষিত খালি জায়গা (তোহা বাজার) নামে পরিচিত। কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান সেখানে কোন স্থায়ী বা অস্থায়ী অবকাঠামো তৈরি করতে পারবে না। খোলা বাজারের শেডগুলো উন্মুক্ত থাকবে। এগুলো ঘেরা দখল কিংবা বিক্রির নিয়ম নেই। অবৈধভাবে শেড দখলের অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তপূর্বক আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত