মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

প্রথম পর্ব পেরোনোর প্রত্যাশা

আপডেট : ১৬ মে ২০২৪, ০৬:৪৮ এএম

১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ থেকে ১৫ মে ২০২৪ জীবনটা একেবারে ১৮০ ডিগ্রি বদলে গেছে নাজমুল হোসেন শান্তর। ২০২২ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপের আগে, সে সময়কার প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুকে নাজমুল হোসেন শান্তকে দলে রাখা নিয়ে অনেক প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়েছিল। নান্নু বলেছিলেন, শান্ত যাচ্ছেন ব্যাকআপ ওপেনার হিসেবে! সেই শান্তই বছর দেড়েকের মাথায় অধিনায়ক হিসেবে সংবাদ সম্মেলনের টেবিলে। দলনেতা হিসেবে তার নামটাই সবার প্রথমে উচ্চারিত হয়েছে আগের দিন। ক্রিকেট মাঠে ভালো দিন-খারাপ দিনের কথা প্রায়ই বলেন ক্রিকেটাররা। শান্তর খারাপ সময়টা কেটেছে, টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপে বাংলাদেশের ভাগ্যটাও কি বদলাবে তার হাত ধরে?

দলনায়ক হয়েছেন, তবে বিশ্বকাপ যাত্রার আগে ব্যাটে রান নেই। ঘিরে ধরেছে পুরনো সেই দুশ্চিন্তা। শান্তর অবশ্য অভ্যাস আছে দুঃসময়কে পেছনে ফেলার, জানেন বেশি চিন্তাভাবনা কোনো কাজেই আসে না। কাল যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে দেশ ছাড়ার আগে সংবাদ সম্মেলনে জানালেন সে কথাই, ‘খুব বেশি চিন্তা করছি, তা না। আমরা কঠোর পরিশ্রম আমি অনুশীলনে করছি। আশা করছি বিশ্বকাপে ভালোভাবে কামব্যাক করব।’ নিজের এবং লিটনের চলমান রানখরা নিয়ে বললেন, ‘লিটন আর আমার কথাকে বলতে পারেন, বৃষ্টির কারণে অন-অফ ব্যাট করতে হয়েছে। উইকেটও খুব ভালো ছিল না...লিটনের ক্ষেত্রে যা বলেছিলাম, শেষ মুহূর্তে চাইনি দলে কেউ নতুন চলে আসুক। আমার দলের সবার নিজের ভূমিকাটা পরিষ্কার, পরিষ্কার মাথা নিয়ে ওখানে যাচ্ছে। আশা করছি এবার ভালো কিছু হবে। প্রস্তুতি, আমাদের কম্বিনেশন অনুসারে আমরা বেশ ভালো দল। আমি আশা করি সবাই এবার হয়তো ডেলিভার করবে।’ একই সঙ্গে জানালেন, হুট করেই কোনো কিছু বদলে যাবে না, ‘আমরা তো রাতারাতি প্রতি ম্যাচে ২০০ রান করতে পারব না। আমাদের শক্তিমত্তা তার ওপর নির্ভর করে যেমন ১৬০-১৭০-এর জন্য খেলব। যদি ভালো দিন হয়, তখন ২০০-এর জন্য খেলব। কিন্তু তার মানে এই নয় যে শুরু থেকেই আমরা ২০০ রানের জন্য খেলা শুরু করব।’ বরং শান্ত জোর দিয়েছেন নিজেদের বোলিং আক্রমণের ওপর, ‘আমাদের বোলিং ডিপার্টমেন্ট আগের থেকে অনেক উন্নতি হয়েছে। টি-টোয়েন্টিতে আমি মনে করি বোলাররা ম্যাচ জেতায়। এটা আমাদের শক্তির জায়গা।’

সাকিব আল হাসান এবং মাহমুদউল্লাহর মতো অভিজ্ঞ দুই ক্রিকেটারের কাছ থেকে প্রত্যাশা কী এমন প্রশ্নে শান্তর জবাব, ‘রিয়াদ ভাই যেভাবে কামব্যাক করছেন, যে ভূমিকায় তিনি খেলছেন, তাতে টিম অনেক দূরে এগিয়ে যাচ্ছে। এটা আমাদের দলের জন্য বাড়তি সুযোগ ভালো একটা রান দাঁড় করানোর। তরুণদের জন্য একটা অনুপ্রেরণা, কীভাবে ওই ধরনের পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসা যায়, সে বিষয়ে। (সাকিবের) শেষ বিশ্বকাপ এটা একটা ধারণা। তাদের কাছে বাড়তি চাওয়া নেই। শুধু চাইব তাদের যে অভিজ্ঞতা আছে, সেটা যেন সবার মাঝে ছড়িয়ে দেন। আমরা তরুণ ক্রিকেটারদের সবার ভেতর এমন ভাবনা আছে, তাদের ভালো একটা বিশ্বকাপ স্মৃতি উপহার দেওয়ার।’

লম্বা সময় পর একজন লেগস্পিনার যুক্ত হয়েছেন বাংলাদেশ দলে। রিশাদ হোসেনের কাছে দলের প্রত্যাশা জানতে চাইলে অধিনায়কের উত্তর, ‘আমরা অনেক দিন ধরেই খুঁজছিলাম। দলের সেরা ফিল্ডারদের একজন। তিন বিভাগ মিলে কমপ্লিট প্যাকেজ। বাড়তি কিছু আশা করছি না। রিশাদের ব্যাটিং আমরা জানি সে কী করতে পারে। ওখানে ওর স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারলে একটা সুবিধা পাওয়া যেতে পারে।’

দর্শক খুব বেশি প্রত্যাশা না করার অনুরোধ করেছিলেন শান্ত। নিজেও একই ধারণা পোষণ করেন কি না, এই প্রশ্নের জবাবে বলেছেন, ‘আমি যা বলেছি, তারপরও বাংলাদেশের অনেকে প্রত্যাশা করবেই। ছোট ছোট পরিকল্পনা নিয়ে আগালে সহজ হয়। খুব দুর্বল গ্রুপ নয়। এটা আগে পার হলে এরপর (বাকিটা)।’ তবে নিজের সতীর্থদের ওপর তার প্রত্যাশা অনেক, ‘১৫ ক্রিকেটারের প্রতি আমার বিশ্বাস আছে। আলাদা কাউকে নিয়ে প্ল্যান নেই।’ তাসকিন আহমেদের চোট নিয়েও নেই বাড়তি দুশ্চিন্তা, ‘চিন্তাও করছি না তাসকিন থাকবে না, আশা করি সে প্রথম ম্যাচেই থাকবে। না থাকতে পারলে ব্যাকআপ অপশন নিয়ে আগাতে হবে। তবে মেডিকেল দল থেকে যা ইঙ্গিত পেয়েছি, তাতে তাকে প্রথম ম্যাচ থেকেই পাওয়া যাবে ইনশা আল্লাহ।’

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সবশেষ আয়োজনের দলে শান্ত ছিলেন ব্রাত্য, নিজেকে প্রমাণ করেই তাকে টিকে থাকতে হয়েছে একাদশে। এবার দলনেতা হিসেবে ছিলেন খেলোয়াড় নির্বাচন প্রক্রিয়ার সঙ্গেও। মুদ্রার দুটো পিঠই দেখলেন শান্ত। অনিশ্চয়তার খেলা ক্রিকেটের সঙ্গে জীবনের মিল খুঁজে পাওয়া এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান এটাও জানেন, একটা ভালো ইনিংস থামিয়ে দেবে সব সমালোচনা। বড় প্রতিপক্ষের বিপক্ষে একটা জয় থামিয়ে দেবে সব প্রশ্ন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত