বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সাক্ষাৎকার

ইরানের পুরস্কার ফাতিমাকে অনেক বেশি সমৃদ্ধ করেছে

আপডেট : ২৪ মে ২০২৪, ১২:৪০ এএম

আট বছর আগে যে সিনেমা তৈরিতে হাত দিয়েছিলেন পরিচালক ধ্রুব হাসান, সেটি মুক্তি পাচ্ছে আজ। সিনেমাটি ইরানের ৪২তম ফজর আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কার পায় কিছুদিন আগে। এ সিনেমায় রাকিব চরিত্রে অভিনয় করেছেন সুমিত সেনগুপ্ত। সিনেমায় অভিনয়, ক্যারিয়ার ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে সুমিতের মুখোমুখি হয়েছেন মাহতাব হোসেন

ফাতিমা চলচ্চিত্রে আপনার ভূমিকা কী?

এই ছবিতে আমার চরিত্রের নাম রাকিব। রাকিব ১৯৭১ সালে একজন ইয়াং ছেলে, যে যুদ্ধে চলে যায়। এই যুদ্ধে যাওয়ার নেপথ্যে রয়েছে তার প্রেমিকা সুবর্ণা, যাকে পাকিস্তানিরা তুলে নিয়ে যায়; এবং তাকে খুঁজতেই রাকিব মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয়। সুবর্ণার প্রতি রাকিবের প্রগাঢ় ভালোবাসা, এরই মধ্যে তার পরিবারকে হানাদাররা মেরে ফেলে, বিভ্রান্ত রাকিব সুবর্ণাকে খুঁজতে বেরিয়ে পড়ে।

ফারিণের সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন?

ফারিণ আর আর আমার দুজনেরই প্রথম কাজ। এটি আমার দ্বিতীয় চলচ্চিত্র হলেও ফারিণের প্রথম চলচ্চিত্র। ফারিণ একজন অসাধারণ অভিনেত্রী। আমাদের সবার পক্ষ থেকে ফারিণ একটা পুরস্কার নিয়ে এসেছে যেটা ফাতিমাকে অনেক বেশি সমৃদ্ধ করেছে। ফারিণ সহশিল্পী হিসেবে খুবই চমৎকার ও দুর্দান্ত। একই সঙ্গে সে বেশ সহযোগিতাপূর্ণ মনোভাবী।

অনেকগুলো সিনেমায় অভিনয় করেছেন, মনে রাখার মতো চরিত্র কোনটি?

এখন পর্যন্ত যতগুলো চরিত্র করেছি, সেসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য দামাল, গোলরক্ষক মুনির। এরপর পদ্মাপূরানে কোবরা। এ দুটি চরিত্র আমার ক্যারিয়ারে মনে রাখার মতো। আর প্রিয় চরিত্র যদি বলতে চান তাহলে মিশন এক্সট্রিম ও মিশন এক্সট্রিম ব্ল্যাকওয়ারে অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার শহীদ। এর চরিত্রকে প্রিয় বলার কারণ, তীক্ষ্মবুদ্ধিসম্পন্ন একজন অফিসার। যার বিচক্ষণতা ও ক্ষুরধার বুদ্ধিসম্পন্ন অফিসারের কারণে অনেক কঠিন বিষয় সম্ভব হয়েছে।

অভিনয়ের উৎকর্ষ সাধনে আপনার চর্চা কী ধরনের?

আমার কাছে আসলেই মনে হয় অভিনয়টা চর্চার মতো। আমাদের ইন্ডাস্ট্রির পরিকাঠামো অনুযায়ী তেমন কিছু করা হয় না। যতটুকু আমার সাধ্য ও আমার পক্ষে সম্ভব, ততটুকু আমি করি। আমি নিয়মিত থিয়েটার দেখি। ছোট ছোট অভিনয়ের কর্মশালাগুলোতে অংশ নিই। এসব আমি উপভোগও করি। প্রচুর সিনেমা দেখি। দেশি-বিদেশি অনেক ধরনের ফিল্ম দেখি। অভিনয়শিল্পীদের বায়োগ্রাফি দেখি। মানে এসব থেকেই আমি ক্রমাগত শেখার চেষ্টা করি।

ফাতিমা দর্শক কেন দেখবে?

এই সিনেমাটা দর্শক দেখবে। সাধারণ দর্শকরাই যে দেখবে এমনটা নয়, যারা সিনেমা হলে যাওয়া বাদ দিয়েছিলেন তারাও এই সিনেমাটা আগ্রহ নিয়ে দেখবেন। বিশেষ করে নারী দর্শকরা এই ছবিটি দেখতে হলমুখী হবেন বলে আমি মনে করি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত