সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

আসছে একুশে গ্রন্থমেলা

সৃজনশীল বইয়ের মূল্য নির্ধারণে নীতিমালা নেই

আপডেট : ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ০৩:৩৮ এএম

সৃজনশীল বই প্রকাশের ক্ষেত্রে বইয়ের মূল্য নির্ধারণে কোনো সুস্পষ্ট নীতিমালা নেই। প্রকাশক সমিতির পক্ষ থেকে এখনো এ ধরনের কোনো বিধান তৈরি করা হয়নি। অমর একুশে গ্রন্থমেলার আয়োজক বাংলা একাডেমির পক্ষ থেকেও নেই কোনো নির্দেশনা। প্রকাশরা জানান, প্রকাশনা খরচের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে তারা বইয়ের মূল্য নির্ধারণ করেন। প্রকাশনার মান অনুযায়ী বইয়ের মূল্য নানা রকম হয় বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ও সময় প্রকাশনের মালিক ফরিদ আহমেদ। তিনি বলেন, ‘বইয়ের মূল্য নির্দিষ্ট করে দেওয়া যায় না। এটা নির্ভর করে প্রকাশনার কোয়ালিটির ওপর। কাগজের দাম নানা রকম আছে, ছাপার খরচ, কালারের ওপর কম-বেশি হয়। ফলে বইয়ের প্রকাশনা খরচ নানা রকমের হয়। সব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে প্রকাশক ঠিক করেন বইটির মূল্য। ফর্মা অনুযায়ী ২০-২৫-৩০ টাকাও হতে পারে। এর চেয়ে কম-বেশিও হতে পারে।’

একই ধরনের কথা বলেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও অনন্যা প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী মনিরুল হক। তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বইয়ের মূল্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে আমাদের সমিতির পক্ষ থেকে কোনো নির্দেশনা থাকে না। প্রকাশকরা তাদের বইয়ের মান অনুযায়ী মূল্য নির্ধারণ করেন। কোনো বই ৮০ গ্রাম কাগজে ছাপেন, কোনো বই ১০০ গ্রাম কাগজে ছাপেন। এছাড়া আরও নানামুখী খরচ রয়েছে। সাধারণত, প্রতি ফর্মার বই ৩০ টাকার মধ্যে রাখা হয়।’

আসন্ন অমর একুশে গ্রন্থমেলাকে কেন্দ্র করে লেখক-প্রকাশক ও ছাপাখানার কর্মীরা এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। ছাপাখানার কাজের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন পোস্টার ডিজাইন হাউজের স্বত্বাধিকারী পিয়ার মোহাম্মদ। তিনি বলেন, ‘ছাপাখানার কাজের ধরন নানা রকম। এখানে কম টাকায় যেমন ছাপার কাজ করা যায়, আবার কোয়ালিটি ভালো করে করতে চাইলে প্রকাশনার খরচ বেড়ে যায়। কাগজের দাম আছে নানা রকম। ছাপার খরচ তো কালি, মেশিন, কালার নানা কিছুর ওপর নির্ভর করে। ফলে বইটি কেমন কোয়ালিটির হবে তার ওপরই খরচটা ঠিক হয়। কোনো বইয়ের প্রচ্ছদ, কভার, ভেতরের কাগজগুলো ভালো কোয়ালিটির দেওয়ার কারণে দাম বেড়ে যায়।’

অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০১৯ এর আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব ও বাংলা একাডেমির পরিচালক ড. জালাল আহমেদ বলেন, ‘বইয়ের মূল্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে গ্রন্থমেলা কমিটির পক্ষ থেকে তেমন কোনো নির্দেশনা থাকে না। মেলার কাজ তো বইয়ের বিপণন করা। বই প্রকাশের সঙ্গে যুক্ত সংস্থাগুলো সিদ্ধান্ত নেয় বইটির দাম কত হবে। আমি যতটুকু জানি প্রকাশকরা খরচের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই বইয়ের মূল্য নির্ধারণ করেন।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত