শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বাংলাদেশি শ্রমিক নির্যাতন

কোম্পানির বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেবে মালয়েশিয়া

আপডেট : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৫:০৮ এএম

তিন মাস ধরে বেতনহীন বাংলাদেশি ও নেপালি শ্রমিকদের ধর্মঘটে হামলার ঘটনায় চিকিৎসা উপকরণ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ডব্লিউআরপির বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেবে মালয়েশিয়া সরকার। গতকাল শুক্রবার মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ বিষয়কমন্ত্রী এম কুলাসেগারানের উদ্ধৃতি দিয়ে মালয় টাইমস পত্রিকা এ তথ্য জানায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশি ও নেপালি শ্রমিকদের সঙ্গে বাজে আচরণ, তিন মাস ধরে তাদের বেতন না দেওয়াসহ সরকারি তদন্তে ৪২টি অভিযোগের আলামত পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে দেশটির সরকার মামলা করতে যাচ্ছে। গত বছর আগস্ট থেকে কোম্পানিটির বিরুদ্ধে তদন্ত  চলছে। কোম্পানিতে বাংলাদেশি ও নেপালি শ্রমিকদের প্রতিবাদ করার সত্যতা নিশ্চিত করেছে ডব্লিউআরপি। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে সরকারের আইনি পদক্ষেপের বিষয়ে কিছু জানায়নি প্রতিষ্ঠানটি। মালয়েশিয়ার শ্রম মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, ‘এরকম ঘটনার যাতে আর পুনরাবৃত্তি না হয় তাই এই তদন্ত প্রক্রিয়া দ্রুত শেষ করা হবে।’ সরকারের পক্ষ থেকে আরও বলা হয়, কোম্পানিটির বিরুদ্ধে আইনবহির্ভূত উপায়ে শ্রমিকদের বেতন কাটার মতো ঘটনারও অভিযোগ রয়েছে।

ডব্লিউআরপি একটি রাবার গ্লাভস প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে বাংলাদেশি শ্রমিকদের বাধ্যতামূলক ওভারটাইম করানোর পাশাপাশি জোরপূর্বক শ্রমদানে বাধ্য করা হচ্ছে এমন তথ্য সংবলিত একটি প্রতিবেদন গত বছর দ্য গার্ডিয়ানে প্রকাশিত হয়।

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, শ্রমিকদের বেতন বকেয়া রাখা, ঋণের জালে আটকানো ও পাসপোর্ট জব্দ করে রাখার মতো ঘটনা ঘটে প্রতিষ্ঠানটিতে। যদিও এমন অভিযোগ ডব্লিউআরপি কর্র্তৃপক্ষ অস্বীকার করে। যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ার বেশকিছু শীর্ষস্থানীয় হাসপাতাল ডব্লিউআরপির গ্লাভস ব্যবহার করে। প্রসঙ্গত, কোম্পানিটি বাংলাদেশি ও নেপালি শ্রমিকদের যথাযথ জীবনমান নিশ্চিত করতে পারছে না। এছাড়া অন্য আরও অভিযোগে কয়েক দিন আগে ধর্মঘট করেন দুই হাজার কর্মী।

মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ বিষয়কমন্ত্রী জানান, শ্রমিকদের সঙ্গে বাজে আচরণকারী কোম্পানিগুলোর তালিকায় শুধু ডব্লিউআরপিই নেই। সরকারের তালিকায় এরকম আরও ১০টি কোম্পানি আছে। তবে তদন্ত শেষ না হওয়ায় এসব কোম্পানির নাম প্রকাশ করতে অস্বীকৃতি জানান তিনি।

এছাড়া তিনি আরও বলেন, কোম্পানিটি যে শ্রম আইন লঙ্ঘন করেছে তার প্রমাণ পাওয়া গেছে। শ্রম আইনের কোন ধারার আওতায় মালয়েশীয় সরকার মামলাটি করবে সে ব্যাপারে কিছু জানাননি কুলাসেগারান। মালয়েশিয়ার শ্রমিকদের মতো করেই বিদেশি শ্রমিকদের সঙ্গে আচরণ করার জন্য প্রতিষ্ঠানের মালিকপক্ষকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত