শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ঢাকায় সংসদের মতো সুষ্ঠু ভোট চান সিইসি

আপডেট : ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৪:০৯ এএম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনও ‘সুষ্ঠু’ করতে চান বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে (ইটিআই) রিটার্নিং অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের ব্রিফিংয়ে তিনি এ ইচ্ছার কথা জানান। গত বছর ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট ২৮৮টি আসনে জয়ী হয়। বিপরীতে বিএনপিপ্রধান জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পায় সাতটি আসন। নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ এনে ভোট প্রত্যাখ্যান করে ঐক্যফ্রন্ট। নির্বাচন কমিশনের বিপক্ষে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ এনে পুনর্নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে জোটটি।

ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদে উপনির্বাচন, উত্তর ও দক্ষিণ সিটির নবগঠিত ৩৬টি ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নির্বাচন এবং উত্তর সিটির ৯ ও ২১ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলরের শূন্য পদে নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করবেন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা। তাদের উদ্দেশে সিইসি বলেন, ‘আমরা চাই, ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন আপনাদের পরিচালনায় সুষ্ঠু হবে, যেমনটি হয়েছে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আপনারা পরিশ্রম করেছেন, দক্ষতা দেখিয়েছেন এবং একটি সুষ্ঠু, সুন্দর নির্বাচন জাতিকে উপহার দিয়েছেন।’ তিনি বলেন, ‘এখানে নির্বাচনে কে জয়ী হলো, সেটা আপনাদের দেখার বিষয় নয়। আপনাদের বিষয় হলো, আচরণবিধি তারা কীভাবে পালন করে, সেটা দেখা। যাদেরকে জনগণ, ভোটার ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন, তিনি হবেন নির্বাচিত প্রতিনিধি।’

সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটির প্রধান বলেন, ‘চারজন সহকর্মী কিন্তু একটা কমন কথা বলেছেনÑ আইনানুগ নির্বাচন করতে হবে। আপনাদের প্রতি মানুষের যে আস্থা, ভালোবাসা আছে, সেটা প্রয়োগ করেই এই নির্বাচনের আচরণবিধি কীভাবে প্রতিপালিত হয়, সেটা দেখতে হবে। সমস্যা হয় কাউন্সিলরদের নিয়ে। কাউন্সিলররা এত বেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকেন, আইন-কানুন অবনতির ক্ষেত্রে কোনো কোনো জায়গায় তাদের ভূমিকা থেকে যায়।’

অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘নির্বাচন আইনানুগ হতে হবে, কথাটা ব্যাখ্যার অবকাশ রাখে। আইন যদি সবার জন্য সমান না হয়, আইন যদি সবার প্রতি সমঅধিকারের আচরণ ও সমনিশ্চয়তা না দেয় তাহলে সে আইন আইন নয়, কালো আইন। আপনারা আইনের পরিপালক, কালো আইনের নয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘নির্বাচনে আচরণবিধি দৃঢ়ভাবে কার্যকর করা, আচরণবিধি ভঙ্গকারীদের শাস্তি দেওয়া, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহযোগে শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় রাখা, এমনকি অভিযুক্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীদের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ আপনাদের দায়িত্ব।’

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্য কমিশনাররাও উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত