শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

খবরটি শোনার পর ঘুমাতে পারছি না : বাঁধন

আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:৪৬ পিএম

জনপ্রিয় লাক্সতারকা আজমেরী হক বাঁধন। একসময় নাটকে ভীষণ ব্যস্ত ছিলেন। তার ঝুলিতে রয়েছে বেশকিছু জনপ্রিয় বিজ্ঞাপনচিত্রও। তবে মাঝে ব্যক্তিজীবনের টানাপোড়েন, বাঁকবদল ও নিজেকে নতুন করে আবিষ্কারের মনোবৃক্তি থেকে বাঁধন একেবারেই নতুনরূপে নিজেকে ঢেলে সাজিয়েছেন।

ফিট হয়ে বাঁধনের ফেরার পরই গুঞ্জন ওঠে বড় পর্দায় অভিনয়ের। কিন্তু নানা কারণে এখনো তার বড়পর্দায় অভিনয় করা হয়নি। তবে বাঁধন অচিরেই ভালো একটি খবর দেবেন বলে জানান।

তবে এর মধ্যে তিনি টুকটাক কাজ করছেন, যা অবশ্য প্রচার করতে চান না জনপ্রিয় এই তারকা। তিনি বলেন, ‘এখন যেসব কাজ করছি তা বলার মতো কিছু না। বড় খবর হলে অবশ্যই সবাইকে জানাব।’

তবে কাজের ক্ষেত্রে বাঁধন বর্তমানে কিছুটা নিষ্প্রভ থাকলেও নানা কারণে তিনি আলোচিত হতে পারেন। এই যেমন, অনেক নারী তার সাহসী পদক্ষেপের জন্য তার দ্বারা অনুপ্রাণিত। বাঁধন বলেন, ‘আমাকে প্রায়ই অনেক নারী ফোন করে তাদের অসহায়ত্বের কথা জানায়। আমি যেভাবে প্রাক্তন স্বামীর সব রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে আমার সন্তানকে নিজের মতো করে মানুষ করছি, তারা এই বিষয়টিতে অনুপ্রাণিত হয়েছে। তারা চায়, আমি যেন তাদের পরামর্শ দিই।’ তিনি আরও বলেন, ‘সত্যি বলতে কি, নিজের জীবনে যখন ডিভোর্স, সন্তানের অধিকার নিয়ে লড়াই করতে হয়েছে আমাকে তখন এসব অসহায় নারীদের দুঃখ আমি অনুভব করতে পারি। আমি চাই তাদের জন্য কিছু করতে। যতটুকু সামর্থ্য আছে করছি। আরও কিছু করতে পারলে ভালো হতো।’

একটি ঘটনা উল্লেখ করে বাঁধন বলেন, ‘গতকাল শুনলাম একটি মেয়েকে তার মায়ের সঙ্গে ডিভোর্সের পর তার বাবা জোর করে নিজের কাছে রেখেছে। পরবতী সময়ে মেয়েটিকেই ধর্ষণ করেছে। এটা তো আমার সঙ্গেও ঘটতে পারত। এই খবর শোনার পর ভালোমতো ঘুম হয়নি। আমি নিজে তো কিছু করতে পারছি না, তাই অনেককে ফোন করেছি ওই অসহায় মেয়েটির পাশে দাঁড়াতে। জানি না কেউ তার পাশে দাঁড়াবে কি না। তবে আমি চাই আস্তে আস্তে আমাদের এই দুঃসহ সমাজটির পরিবর্তন হোক।’

সমাজের কল্যাণে কাজ করার জন্য বাঁধন এরই মধ্যে একটি এনজিও সংগঠনের সঙ্গে জড়িয়েছেন। ‘হিরোজ ফর অল’ নামের এই এনজিও সম্পর্কে বাঁধন বলেন, ‘এই এনজিওতে আমার মতো কম বয়সী সদস্য খুব কম। সবাই খুব বড় বড় জায়গা থেকে এসেছেন। তাদের সঙ্গে যুক্ত হয়ে কাজ করাটা আমার জন্য বিশাল ব্যাপার। এখানে আমি বোর্ড অব অ্যাডভাইজারের দায়িত্বে আছি। এটার জন্য আমি কোনো টাকা নিচ্ছি না। এই এনজিওর মাধ্যমে সমাজের জন্য কাজ করতে চাই। সমাজের প্রতি দায়িত্ব থেকে এই কাজটি করছি।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত