শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

চালের দাম কমলেও চড়া মাংস ও তেলের বাজার

আপডেট : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৪:০৪ এএম

রাজধানীর বাজারগুলোতে গত সপ্তাহের তুলনায় এ সপ্তাহে চালের দাম কিছুটা কমলেও বেড়েছে ভোজ্য তেলের দাম। এ সপ্তাহে নাজিরশাইল, মিনিকেট, স্বর্ণা, বিআর ২৮সহ সব ধরনের চালই কেজিপ্রতি ২ থেকে ৩ টাকা কমে বিক্রি হয়েছে। মুরগির মাংসের দামও কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশিতে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে শীতের সবজির পাশাপাশি পাওয়া যাচ্ছে গ্রীষ্মকালীন সবজি। আগাম সবজির দাম বেশি হলেও স্থিতিশীল রয়েছে অন্যগুলোর দাম। ডাল, ডিম, চিনি, আটা, গুঁড়াদুধসহ সব ধরনের মুদিপণ্যের দামে তারতম্যও না থাকলেও মসলার দাম কিছুটা বেড়েছে। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে এসব তথ্য জানা গেছে।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি সয়াবিন তেলের দাম ৫ টাকা বেড়েছে। প্রতি কেজি খোলা সয়াবিন তেল ৮৮ টাকা বিক্রি হচ্ছে। যা গত সপ্তাহে ছিল ৮২ টাকা। আর ৫ লিটারের বোতল বিক্রি হচ্ছে ৪৮০ টাকায়। যা গত সপ্তাহে ছিল ৪৫০ টাকা।

কারওয়ান বাজারের তেল বিক্রেতা সজীব জানান, ‘গত দুদিন ধরে কেজিতে ২ থেকে ৫ টাকা বেশি দিয়ে ডিলারদের থেকে তেল কিনতে হচ্ছে। সে কারণে খুচরা বাজারেও এর প্রভাব পড়েছে।’ একই বাজার থেকে তেল কিনেছেন জাহিদ হাসান। তিনি বলেন, ‘গত সপ্তাহে ৫ কেজি তেল কিনেছি ৪৫০ টাকায়। এ সপ্তাহে ৩০ টাকা বেশি দিয়ে কিনলাম।’

এদিকে বাজারে ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৪৫ টাকা। যা গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছে ১৪০ টাকায়। বাজারভেদে আবার ব্রয়লার মুরগি ১৫৫ টাকাও বিক্রি হতে দেখা গেছে। ছোট লেয়ার মুরগি বিক্রি হয়েছে ১৯৫ টাকা থেকে ২০৫ টাকা পিস আর মাঝারি সাইজের পাকিস্তানি মুরগি বিক্রি হয়েছে ২৬০ টাকায়। বড় সাইজের মুরগি বিক্রি হয়েছে ৩৫০ টাকায়। মুরগির দাম বাড়লেও বাজারে ডিম, গরু ও খাসির মাংসের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। গরুর মাংস আগের মতোই ৪৮০ থেকে ৫০০ টাকা কেজি এবং খাসির মাংস ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। মুরগির ডিম প্রতি ডজন ৯৫ টাকা, হাঁসের ডিম ১৫৫ টাকা, দেশি মুরগির ডিম ১৭০ টাকা ডজন বিক্রি হচ্ছে।

সবজির বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বেশিরভাগ সবজির দাম তুলনামূলক কম থাকলেও এখনো চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে করলা, লাউ ও ধুন্দল। করলার কেজি ৬০ থেকে ৭০ টাকা, লাউ ৫০ থেকে ৭০ টাকা আর ধুন্দুলের কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকা। তবে দাম অপরিবর্তিত রয়েছে টমেটো, বেগুন, গাজর, মুলা, শালগম, শিম, নতুন আলু, ফুলকপি, বাঁধাকপি, পেঁয়াজ ও কাঁচা মরিচের। নতুন দেশি পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের কেজি ১৫ থেকে ২০ টাকা। কাঁচা মরিচের কেজি বিক্রি হয়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। অপরিবর্তিত রয়েছে মুদিপণ্যের দামও। গতকাল বাজারে প্রতি কেজি খোলা আটা বিক্রি হয়েছে ২৬ টাকা, প্যাকেট ৩২ টাকা, চিনি আমদানিকৃত ৫০ টাকা, দেশি লাল চিনি ৫৬ টাকা, ডাল ৪০ থেকে ৯০ টাকা, মানভেদে গুঁড়াদুধের প্যাকেট ২৭০ থেকে ৫৫০ টাকা, সরিষার তেলের কেজি ১২০ টাকা, লবণ ৩০ থেকে ৩৫ ও পোলাওয়ের চাল ৯০ থেকে ৯৫ টাকা কেজি। এ সপ্তাহে প্রায় সব ধরনের মাছও গত সপ্তাহের মতো চড়া দামে বিক্রি হয়েছে বলে জানান বিভিন্ন বাজারের বিক্রেতারা।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত