সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ভোটাধিকারের জন্য ঐক্যফ্রন্ট সব করবে : ড. কামাল

আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৩:০৭ এএম

৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জনগণ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেননি অভিযোগ করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে যা যা করণীয় তার সবই ফ্রন্টের পক্ষ থেকে করা হবে। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক শোকসভায় তিনি একথা বলেন। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ছেলে রাশেদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুতে গণফোরামের উদ্যোগে এ শোকসভা আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. কামাল বলেন, ৩০ ডিসেম্বর ভোটের নামে যা ঘটেছিল তা ছিল প্রহসন। অনেকেই বলেছেন, এটা নাটক।     

এটা দুঃখজনক। জনগণ এই নির্বাচনকে ভাঁওতাবাজি বলছেন। তিনি বলেন, নির্বাচনের পরদিন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বললেন, তারা ৫ বছর ক্ষমতায় থাকবেন। এই কথা বলে তিনি দেশের ১৬ কোটি মানুষকে অপমান করেছেন। এটা মেনে নেওয়া যায় না। তাই দেশের জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য যা যা করণীয় তা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট করবে।

ঐক্যফ্রন্ট নেতা ও জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব বলেন, নির্বাচনের আগে ও পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মিথ্যা ও গায়েবি মামলায় সারা দেশে লক্ষাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছেন। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন ছাড়া তাদের মুক্ত করা যাবে না। তিনি বলেন, ১৬ কোটি মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছিল সরকার। কিন্তু কেউ প্রতিবাদ করল না। রাজনীতি এখন ব্যবসা হয়ে গেছে মন্তব্য করে সদ্য কারামুক্ত ফ্রন্টের নেতা ও দি নিউ নেশন পত্রিকার সম্পাদক ব্যারিস্টার মঈনুল ইসলাম বলেন, অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের রাজনীতিতে নেওয়া হয়। এরা অবসর নিয়ে নির্বাচন করে এমপি হয়। এখন এর সঙ্গে জড়িত হয়েছে পুলিশও। তারা দেশের মানুষকে পেটায়। আজ তারা মনে করেন, তাদের ছাড়া ড. কামালরা কি  দেশ চালাতে পারবে? এখন দেশে যা চলছে তা আমলাতান্ত্রিক। শেখ হাসিনার কিছু করার নেই। তাকে দোষ দিয়ে লাভ নেই। 

রাশেদ সোহরাওয়ার্দী সম্প্রতি লন্ডনে মারা যাওয়ার পর সেখানেই তাকে দাফন করা হয়। বিষয়টি নিয়ে আক্ষেপ প্রকাশ করে মঈনুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায়। রাশেদের মৃতদেহটা দেশে আনতে পারত। 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আব্দুল মঈন খান দেশে উদার গণতন্ত্র অনুপস্থিত মন্তব্য করে বলেন, রাজনীতির নামে এখন হচ্ছে হিংসা, বিদ্বেষ। এর অবসান হতে হবে।

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু,  প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বি খান, আমসা আমিন, জগলুল হায়দার আফ্রিক প্রমুখ।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত