শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বৈদেশিক মুদ্রা ঋণের সুদহার বাড়াতে চাপ

আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:১৭ এএম

আমদানি-রপ্তানি ব্যয় মেটাতে বৈদেশিক মুদ্রায় ব্যাংকগুলো যে ঋণ দেয়, তার সুদহার বাড়াতে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো। লাইবর (লন্ডনের শীর্ষ ১৫ ব্যাংকের আন্তঃলেনদেনে সুদের হার) বৃদ্ধিতে দেশে বেসরকারি খাতের বিদেশি ঋণের সুদহার বেড়ে যাওয়ায় এ অনুরোধ জানায় তারা। গতকাল কেন্দ্রীয় ব্যাংকে অনুষ্ঠিত এক সভায় বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রতিনিধিরা এ দাবি তুলেন।

গতকাল বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর অনুমোদিত প্রতিনিধিদের (অথরাইজড ডিলার) সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির। ২০১৩ সালে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা অনুসারে, আমদানি-রপ্তানি বিলের বিপরীতে বৈদেশিক মুদ্রার স্বল্প মেয়াদি ঋণের সুদহার লাইবরসহ সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ হলে, তা ইস্যু করতে পারে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো। তবে লাইবর সুদহার বেড়ে যাওয়ায় এ ধরনের ঋণের সুদহার ৬ শতাংশের মধ্যে রাখা কঠিন হয়ে পড়ছে বলে গতকালের সভায় জানান ব্যাংকাররা। 

২০১২ সালে ছয় মাস ও এক বছর মেয়াদি লাইবর সুদহার ছিল শূন্য দশমিক ৭৬ শতাংশ ও এক দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। বর্তমানে ছয় মাস ও এক বছর মেয়াদি লাইবর সুদহার দাঁড়িয়েছে ২ দশমিক ৮৬ শতাংশ ও ৩ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। লাইবর হার বেড়ে যাওয়ায় ব্যাংকাররা এখন স্বল্পমেয়াদি বৈদেশিক মুদ্রা ঋণে সুদহার ন্যূনতম ৭ শতাংশে উন্নীত করার প্রস্তাব দিয়েছে ব্যাংকাররা। তারা জানান, আমাদের এখন উচ্চসুদে বিদেশি মুদ্রার ঋণ নিতে হচ্ছে।

তবে ব্যাংকাররা বৈদেশিক মুদ্রা ঋণের সুদহার বাড়াতে চাপ দিলেও কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ বিষয়ে এখনেই কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি। বিষয়টি নিয়ে আরও যাচাই বাছাইয়ের পর সিদ্ধান্ত জানাবে তারা। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, এ প্রস্তাবটি এমন সময়ে দেওয়া হচ্ছে, যখন সরকার সব ধরনের ঋণে সুদহার কমিয়ে আনতে চাইছে।

প্রসঙ্গত, বৈদেশিক মুদ্রা ঋণের সুদহার বাড়ানো হলে আমদানি রপ্তানি ব্যয় বেড়ে যাবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত