মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

লাদেনপুত্রকে ধরতে ১০ লাখ ডলার পুরস্কার

আপডেট : ০২ মার্চ ২০১৯, ০৩:৫৫ এএম

প্রয়াত আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনের এক ছেলেকে ধরিয়ে দিলে সর্বোচ্চ ১০ লাখ ডলার পুরস্কার দেবে যুক্তরাষ্ট্র। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে গতকাল শুক্রবার এ পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। হামজা বিন ওসামাকে ইসলামপন্থি জঙ্গি গোষ্ঠীর উদীয়মান নেতা হিসেবে মনে করছেন যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা। বিন লাদেনের এই ছেলে এখন আফগান-পাকিস্তান সীমান্তে অবস্থান করছে বলে তাদের ধারণা।

ঘোষণায় বলা হয়, গত কয়েক বছরে হামজার কয়েকটি ভিডিও এবং অডিও অনলাইনে প্রকাশ পেয়েছে, যেগুলোতে বাবার হত্যার বদলা নিতে যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের পশ্চিমা মিত্র দেশগুলোর ওপর হামলা চালাতে আল-কায়দার অনুসারীদের আহ্বান জানিয়েছে।

২০০১ সালে ১১ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে বিমান নিয়ে হামলা চালানো হলে প্রায় তিন হাজার মানুষ নিহত হন। ওই ঘটনার দায় স্বীকার করেন আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেন। এর ১০ বছর পর পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদের একটি ভবনে আত্মগোপনে থাকা ওসামাকে যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালিয়ে হত্যা করে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, অ্যাবোটাবাদের ওই বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ওসামার হাতে লেখা কয়েকটি চিঠি পাওয়া যায়, যেগুলোতে ‘হামজাকে নিজের সবচেয়ে প্রিয় ছেলে’ হিসেবে বর্ণনা করে তাকে আল-কায়েদার পরবর্তী নেতা হিসেবে গড়ে তোলার ইঙ্গিত ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক নিরাপত্তাবিষয়ক উপমন্ত্রী মাইকেল ইভানফ বলেন, ‘আমাদের বিশ্বাস হয়তো সে (হামজা) এখন আফগান-পাকিস্তান সীমান্তের কোথাও লুকিয়ে আছে এবং সেখান থেকে ইরানে চলে যাবে। যদিও সে দক্ষিণ-মধ্য এশিয়ার যেকোনো জায়গায় থাকতে পারে।’

বিবিসির খবরে বলা হয়, প্রায় ৩০ বছর বয়সী হামজাকে দুই বছর আগে যুক্তরাষ্ট্র ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী’ হিসেবে তালিকাভুক্ত করে। তার শ্বশুরও আরেক ‘শীর্ষ সন্ত্রাসী’ মোহাম্মদ আতা, যিনি ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে হামলায় নিয়োজিত চার উড়োজাহাজের একটিতে ছিলেন।

হামজা দীর্ঘদিন ধরে তার মায়ের সঙ্গে ইরানে বসবাস করেছে বলে ধারণা করা হয়। এমনকি তার বিয়ের অনুষ্ঠানও ইরানেই হয়েছে বলে বিশ্বাস মার্কিন কর্মকর্তাদের। তবে হামজা পাকিস্তান, আফগানিস্তান বা সিরিয়ায় বসবাস করছে বলেও কারও কারও ধারণা।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত