বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

মওলানা আজাদ ও জিন্নাহর ভুলের স্বীকারোক্তি

আপডেট : ২১ নভেম্বর ২০২২, ১০:১৭ পিএম

কেবল আমরা সাধারণ মানুষরা নই, বড় বড় মানুষও ভুল করেন। কেউ কেউ বলেন, বড় বড় মানুষ যে ভুল করেন সেটা ভালোই করেন, তাদের দেখে আমরা সান্ত¡না পাই এই ভেবে যে, তারাই যদি ভ্রান্ত হন তবে আমরা কোন ছার! তা ব্যক্তিগত ব্যাপারে ভুল করুন ঠিকই আছে, বিপদ হয় রাজনৈতিক ব্যাপারে ভুল করলে। আমরা জড়িয়ে পড়ি। প্রহৃত, বিপদগ্রস্ত, বিপর্যস্ত হই। মারা পড়ি। মওলানা আজাদ বলেছেন, তিনি ভুল করেছিলেন। মস্ত বড় ভুল। ঠিক একই কথা বলেছিলেন জিন্নাহও। বলেছেন, মস্ত বড় ভুল করেছিলেন। এবং কী আশ্চর্য, পরিহাস কত বড়, একই বিষয়ে ভ্রান্তি তাদের পাকিস্তান বিষয়ে। দুজনে দুই শিবিরের মানুষ ছিলেন তারা। পাকিস্তান প্রশ্নে ঠিক আকাশপাতালের ব্যবধান তাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে, কিন্তু ঠিক ওই ব্যাপারেই মস্ত বড় ভুল করলেন তারা উভয়েই। পরিহাস তো বটেই। ইতিহাসের? নাকি মানুষের?

মওলানা আজাদের সেই ত্রিশ পৃষ্ঠার রহস্য আজ বিশ বছরের প্রতীক্ষা ও নানা মামলা-মোকদ্দমার বাধা পার হয়ে প্রকাশিত হয়ে পড়েছে। তিনি লিখে গেছেন, তার মৃত্যুর পূর্বে, যে ১৯৪৬ সালে জওয়াহেরলাল নেহরুকে কংগ্রেসের সভাপতি করার প্রস্তাব দিয়ে তিনি তার রাজনৈতিক জীবনের সবচেয়ে মারাত্মক ভুলটি করেছেন। কেননা সভাপতি হয়েই নেহরু একটা কা- করলেন। বলে বসলেন যে, ক্যাবিনেট মিশন প্ল্যান গ্রহণের দ্বারা কংগ্রেসের হাত-পা বাঁধা পড়ে যায়নি, কংগ্রেস ইচ্ছা করলেই ওই প্ল্যান যেমন ইচ্ছা বদলে নিতে পারবে। জিন্নাহ যেন এই বক্তব্যের অপেক্ষাতেই ছিলেন। ভারতীয় ইউনিয়নের মধ্যে থাকার ক্যাবিনেট মিশন প্ল্যান জিন্নাহ না পারতে মেনে নিয়েছিলেন, এখন কংগ্রেস তা মেনে নেয়নি বলার সুযোগ পেয়ে তিনিও বলে বসলেন, তাহলে আমরাও মানি না। উল্টো তিনি প্রত্যক্ষ কর্মপন্থা দিবস ঘোষণা করলেন। দাঙ্গা-হাঙ্গামা বেধে গেল। অনিবার্য হয়ে পড়ল পাকিস্তান সৃষ্টি। এভাবে নেহরু যে পাকিস্তানকে ঠেকাবেন বলে ভেবেছিলেন, চেয়েছিলেন, সেই পাকিস্তানকেই প্রতিষ্ঠার দিকে এগিয়ে দিলেন। মওলানার দুঃখ নেহরুর নাম তিনিই প্রস্তাব করেছিলেন, না-করলে নেহরু সভাপতি হতেন না, এবং ওই কথা বলার সুযোগও পেতেন না।

দুঃখ জিন্নাহরও। মৃত্যুর পূর্বে তিনিও বলে গেছেন পাকিস্তান সৃষ্টি ছিল তার জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল। কাকে বলেছেন? খোদ ‘কায়েদে মিল্লাত’ ‘উজিরে আজম’ লিয়াকত আলী খান সাহেবকে। কথাগুলো মারাত্মক ‘নিজেকে তুমি এখন মস্ত মানুষ মনে করছো তাই না? তুমি কে? কিচ্ছু না। আমিই তোমাকে প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছি। তুমি ভাবছো তুমিই পাকিস্তান বানিয়েছো। তুমি না। বানিয়েছি আমি। কিন্তু এখন আমি বুঝতে পারছি যে, আমি আমার জীবনের সবচেয়ে বড় ভুলটি করে ফেলেছি। এখন যদি সুযোগ পাই আমি দিল্লি যাব, জওয়াহেরলালকে বলব অতীতের ভুল-ভ্রান্তি ভুলে গিয়ে আবার বন্ধু হতে।’ মৃত্যুপথযাত্রী জিন্নাহ বলেছেন এ কথা, লিয়াকত আলী খানকে। বলে হাত তুলে ভঙ্গি করেছেন হাত মেলানোর। নেহরুর সঙ্গে।

সাক্ষী তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক লে. ক. ইলাহী বক্স। পরে, লিয়াকত আলী খান সেই তাদের পরস্পরের শেষ সাক্ষাৎ সেরে চলে গেলে, ফাতেমা জিন্নাহ বলেছেন ইলাহী বক্সকে, ‘লিয়াকত আলী খান এসেছিলেন নিজের চক্ষে দেখে যেতে ভাই আর কতক্ষণ বাঁচবেন।’ ভ্রাতার রোগশয্যার পাশে দাঁড়িয়ে বলেছেন তিনি ওকথা। ফাতেমা জিন্নাহর উক্তিটি এর আগেই প্রকাশ পেয়েছে, এবং তার ভিন্ন রকম অর্থ এত দিন করা হচ্ছিল, কিন্তু জিন্নাহর নিজের উক্তির আলোকে ফাতেমা জিন্নাহর উক্তির অর্থ এখন একটাই দাঁড়ায়, অন্য কোনোটা নয়।

জিন্নাহ লিখে যাননি এসব কথা। সময় ছিল না। লিখলেও প্রকাশ পেত না। পাকিস্তানে তখন অন্য রকম অবস্থা। এমনকি ওই যে চিকিৎসক তিনিও এসব কথা লেখেননি নিজে, যদিও জিন্নাহর শেষ দিনগুলোর ওপর একটি বই লিখেছেন তিনি। তবে এক বন্ধুকে বলেছেন সব কথা। সেই বন্ধুও ফেলনা কেউ নন, উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের শিক্ষামন্ত্রী ছিলেন এক সময়ে। এই দ্বিতীয় ভদ্রলোক পেশোয়ারের এক দৈনিকে একটি প্রবন্ধে ফাঁস করে দিয়েছেন এসব কথা। তিনি বলেছেন, ১৯৫২ সালে লে. ক. ইলাহী বক্স তাকে বিবরণ দিয়েছিলেন সমগ্র ঘটনার। ‘আল্লাহ আমাকে শাস্তি দেবেন, যদি ইলাহী বক্সের কথা এক বর্ণও বাড়িয়ে বলে থাকি আমি।’ ইনি কসম খেয়ে বলেছেন। ইলাহী বক্স নিজে একটা বই লিখলেন, কিন্তু তাতে এসব তথ্য কিছুই দিলেন না। কেন? এ প্রশ্নের জবাবে ইলাহী বক্স বলেছেন, জবাব সোজা। ভয়। ‘ভয় ছিল সত্য কথা বললে লোকে আমাকে ফেড়ে ফেলবে।’ কে অস্বীকার করবে এর যথার্থতা?

পাকিস্তান যে একটা ভুল এত কংগ্রেস বলবে, জিন্নাহ কেন বললেন? সে-প্রশ্ন খুবই জরুরি, বিশেষ করে আমাদের জন্য, আমরা যারা জড়িত এবং ভুক্তভোগী। কিন্তু তারও আগে একটা প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা দরকার : ইতিহাসে ব্যক্তির ভূমিকা কী? পাহাড় বেয়ে গাড়িটা নামছিল তখন ঘোড়া গাড়িকে টানছিল, নাকি গাড়ি ঘোড়াকে ঠেলছিল পেছন থেকে? এ জিজ্ঞাসা টলস্টয়ের ‘যুদ্ধ ও শান্তি’ উপন্যাসে। আরও একটি উপমা দিয়েছেন তিনি, আপেলটি যে পড়ে গেল তার কারণ কী? বোঁটাটি শুকিয়ে গিয়েছিল? জোরে বাতাস বইছিল? পাখিতে ঠুকরে দিয়েছিল? নাকি নিচে দাঁড়ানো বালকটি ইচ্ছা করেছিল বলেই টুপ করে পড়ে গেল ফলটি। বালক তাই মনে করে। আমরাও তাই মনে করি। ইতিহাসের গাছের নিচে অপেক্ষমাণ বালক হয়ে যাই আমরা থেকে থেকে ভাবি যা কিছু ঘটছে সব আমাদের মঙ্গলের জন্যই। না-ভাবলেও ভাবানো হয়। এ ক্ষেত্রেও হয়েছে। প্রচার করা হয়েছে পাকিস্তান আমাদের মঙ্গলের জন্যই, যদিও মঙ্গল হয়েছে অল্পকজনেরই। ধনীদের। বিশেষভাবে পাঞ্জাবি ধনীদের। ওদিকে মওলানা আজাদ মনে করেছেন, পাকিস্তান তিনিই সৃষ্টি করলেন, পরোক্ষে। মাউন্টব্যাটেন অবশ্যই মনে করতে পারেন যে, তিনিই তো দিলেন পাকিস্তান-হিন্দুস্তান। এটলি বলতে পারেন তিনিই দায়ী। আর জিন্নাহ তো বলবেনই, বলেছেনই।

কিন্তু ইতিহাস কি অত সরল, অমন একরৈখিক? না, তা নয়। ইতিহাস বড় জটিল।

এবং ইতিহাস বড়ই পরিহাসপ্রিয়, নইলে দ্বি-জাতিতত্ত্বের ঘোরবিরোধী নেহরু ও আজাদকে দিয়ে দ্বি-জাতিতত্ত্বের সেবা করিয়ে নেবে কেন সে, অমনভাবে? জিন্নাহর ক্ষেত্রেও ওই পরিহাস একবার নয়, বারবার দেখা গেছে। এককালে তিনি ছিলেন ‘হিন্দু-মুসলিম ঐক্যের অগ্রদূত,’ কালে তিনিই হলেন সাম্প্রদায়িক রাজনীতির প্রধান প্রবক্তা। ইংরেজি ছাড়া যিনি কথা বলতেন না, সাহেবি পোশাক ছাড়তেন না, খাদ্য-অখাদ্যের ব্যাপারে যার কোনো বাছ-বিচার ছিল না। কোন মাসে রোজা তার খবর রাখতেন না, নিজে বিয়ে করেছিলেন পার্সি মহিলাকে, কন্যা পার্সি যুবককে, তিনিই হলেন ইসলামি রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা। দ্বি-জাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে যখন ভারতবর্ষকে দ্বিখ-িত করতে বদ্ধপরিকর সেই সময়েই তিনি মাউন্টব্যাটেনকে বলেছিলেন, ‘পাঞ্জাব ও বাংলার হিন্দুস্তান-পাকিস্তান বিভাজন তিনি কিছুতেই মেনে নেবেন না।’ যুক্তি কী? যুক্তি খুব স্পষ্ট। ‘আপনি বুঝতে পারছেন না কেন,’ মাউন্টব্যাটেনকে তিনি যুক্তি দিয়ে বুঝিয়েছেন ‘পাঞ্জাব হচ্ছে একটি জাতি। হিন্দু বা মুসলমান তো পরে, আগে আমরা পাঞ্জাবি কিংবা বাঙালি।’ তাহলে দ্বি-জাতিতত্ত্বের বাকি থাকে কি? বাকি তিনি কিছু রাখতে চাননি, যেজন্য পাকিস্তান গণপরিষদের প্রথম অধিবেশনে, পাকিস্তান সৃষ্টির আগেই তিনি ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, পাকিস্তানে কেউ আর আলাদা করে হিন্দু থাকবে না, মুসলমানও থাকবে না, সবাই মিলে হবে এক জাতি। যে মুসলমানরা ভারতে পড়ে রইল তারা কোন জাতি সে প্রশ্নেরও জবাব দেননি। ওদিকে আবার পাকিস্তান সৃষ্টির পর বাঙালি যখন চঞ্চল হয়েছে, পাঠান অস্থির, বেলুচ উদ্বিগ্ন তখন তিনি তাদের ধমকে দিয়েছেন, বলেছেন, ‘তোমরা কেউ বাঙালি নও, পাঠান নও, বেলুচ নও, সবাই পাকিস্তানি।’ পরিহাসের কী কোনো অবধি আছে?

তা থাক পরিহাস, কিন্তু জিন্নাহ কেন বললেন যে, তিনি ভুল করেছেন পাকিস্তান সৃষ্টি করে, নেহরুই বা কেন বলতে গেলেন ক্যাবিনেট মিশন প্ল্যান মানি-না-মানি আমার ইচ্ছা? হতে পারে নেহরু ভেবেছিলেন, সভাপতি হিসেবে তিনি কর্তৃত্ব প্রকাশ করবেন। অন্তত তাই মনে হয় মওলানা আজাদের আত্মজীবনী যদি পড়ি। জিন্নাহ? তার ক্ষেত্রেও ওই একই সন্দেহ আমাদের। তিনি দেখছিলেন পাকিস্তানে তার কর্তৃত্ব নেই। তিনি কর্তৃত্ব ভালোবাসতেন, যেজন্য তিনি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী না হয়ে গভর্নর জেনারেল হয়েছিলেন এবং যে, তার পাকিস্তানে গভর্নর জেনারেলই হবেন সর্বেসর্বা, প্রধানমন্ত্রী আজ্ঞাবহ। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর দেখলেন এক পাহাড়ি অঞ্চলে তাকে ফেলে রাখা হয়েছে, কেউ খোঁজ নেয় না, টেলিগ্রাম পাঠালে ওষুধ আসে না। বুঝে ফেললেন পাকিস্তান কী বস্তু। রেগেমেগে তাই ওই কথা বললেন, লিয়াকত আলী খানকে। লিয়াকত আলী কী করলেন? ইলাহী বক্স বলছেন লিয়াকত আলী একটুও বিচলিত হননি। জিন্নাহকে শায়িত রেখে হেঁটে চলে এলেন। পাশের কামরা পার হয়ে বারান্দায় গেলেন। ‘তারপর তিনি খুব জোরে হাসলেন এবং উঁচু গলায় বললেন, বৃদ্ধ এখন বুঝতে পেরেছেন যে, তিনি ভুল করে ফেলেছেন।’ আবার হাসি।

এর কদিন পরেই জিন্নাহর মৃত্যু হয়। লিয়াকত আলী খান নিজেও এরপর বেশি দিন বাঁচেননি। বছর-তিনেক পরে তিনিও মারা গেলেন। জিন্নাহর তবু স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছিল, লিয়াকত আলী খুন হলেন। মৃত্যুর আগে সেই প্রসিদ্ধ উক্তিটি করে গেলেন, ‘খোদা পাকিস্তান কি হেফাজত করে।’ সন্দেহ করার যথেষ্ট কারণ আছে যে, যারা তাকে হত্যা করেছেন তারাই ওই উক্তি বসিয়ে দিয়েছেন তার মুখে। মারলেনই যখন, তখন অমর করে রাখতে অসুবিধা কী। গরু মেরে জুতা দান। পরিহাস। কিন্তু আরও বড় পরিহাস তো এখানে যে, ওই দোয়ার খুব প্রয়োজন ছিল পাকিস্তানকে রক্ষার জন্য। কেননা খোদা ছাড়া পাকিস্তানকে বাঁচাতে পারে এমন শক্তি কারও ছিল না। তারা, যারা খুন করেছিলেন লিয়াকত আলীকে, তারা পাকিস্তান চাননি, পাকিস্তানকে রক্ষার ব্যাপারেও তাদের মাথাব্যথা ছিল না, কেবল নিজেদের স্বার্থ উদ্ধার চেয়েছিলেন। কার স্বার্থ? পুঁজিপতির ও জমিদারের, বিশেষ অর্থে পাঞ্জাবির। জিন্নাহ পাঞ্জাবি ছিলেন না, লিয়াকত আলীও না, পাঞ্জাবিরা পাকিস্তান আনেনি, কিন্তু স্থির হয়ে গিয়েছিল যে তারাই পাকিস্তান শাসন করবে। তাই ঘটল। জিন্নাহ ও লিয়াকতের পরে প্রথম এলেন পাঞ্জাবি আমলারা, পরে সেনাপতিরা।

খ-িত পাকিস্তানে এখনো পাঞ্জাবিরাই প্রধান। বেনজির ভুট্টোর প্রধান অযোগ্যতা ছিল তিনি যে মহিলা তা নয়, অযোগ্যতা তিনি পাঞ্জাবি নন, সিন্ধি। আর ওই যে মোহাজের, ভারত থেকে এসেছে সর্বস্ব খুইয়ে, তারাও এখন বুঝছে পাঞ্জাবি সাথী কী বস্তু। মোহাজের নেতা আলতাফ হোসেন পাঞ্জাবি নেতা নেওয়াজ শরিফকে বলে দিতে কসুর করেননি, ‘আপনারা তো আমাদের ভারতের চর মনে করেন, তাহলে?’ পাঞ্জাবিরা যেহেতু নিজেদের পাঞ্জাবিই বলে পাকিস্তানি না-বলে, মোহাজেররা তাই বলছেন, তাহলে স্বীকার করতে হবে যে, পাকিস্তানে এখন জাতিসত্তা চারটি নয়, পাঁচটি পাঞ্জাবি, সিন্ধি, পাঠান, বেলুচ ও মোহাজের। তাহলে? পাঁচ জাতির আবির্ভাব। পঞ্চজাতির সম্মেলন। আসল কথা স্বার্থ। জাগতিক স্বার্থই নানা রকম আধ্যাত্মিক ছদ্মবেশ গ্রহণ করে, নানা সময়ে। বেনজির ভুট্টো নিজেকে সিন্ধি বলেননি, বলেছেন পাকিস্তানি। সিন্ধি বললে সুবিধা নেই, অসুবিধা রয়েছে। সমূহ।

বড় মানুষরা বড় বড় ভুল করেন এবং দুঃখ প্রকাশ করে আরও বড় হন। কিন্তু তারা কী করবে যারা : উলুখাগড়া, রাজায় রাজায় যুদ্ধে যাদের প্রাণ যায়? কিংবা যারা গাছের তলের বালক, যেভাবে ফলটা তার জন্যই পড়েছে, কিন্তু তুলতে গেলেই দেখে বিপদ, দারোয়ান আসছে ছুটে। ঘাড় ধরে বলে, তুমি চোর। মূল্য যা দেওয়ার এই সাধারণ মানুষই দেয়। দিয়েছে বৈকি সাতচল্লিশে, একাত্তরে। লাখ লাখ মানুষ প্রাণ দিয়েছে। তাদের জন্য ভুল করার কোনো সুযোগ ছিল না, সুযোগ ছিল কেবল প্রাণ দেওয়ার। অর্থাৎ মৃত্যুবরণ করার। ওদিকে নেপোরা কিন্তু দই মেরেই চলেছে।

লেখক : ইমেরিটাস অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত