রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে গুলি

আপডেট : ২৫ জানুয়ারি ২০২৩, ০৬:১৩ এএম

মুন্সীগঞ্জে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পরিচয়ে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে কোপানোর পর পায়ে অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করার অভিযোগ উঠেছে এক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ সদরের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের আমঘাটা গ্রাম থেকে ইট-বালু ব্যবসায়ী জিয়া সরদারকে (৪৫) ডিবি সদস্য পরিচয়ে জোর করে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে পায়ে গুলি করা হয়।

গুরুতর আহত ওই ব্যবসায়ীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। স্বজনদের অভিযোগ, জিয়া সরদারকে তুলে নিয়ে যায় মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি শিপন পাটোয়ারী ও তার লোকজন। শিপন একই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিপন হোসেন পাটোয়ারীর ছোট ভাই। আর জিয়া সরদার মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি বলে জানা গেছে।

স্বজন ও এলাকাবাসীর অভিযোগ, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পাশের টঙ্গীবাড়ি উপজেলার সেরজাবাদ গ্রামের ইট-বালু বিক্রির প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে মেয়েকে স্কুল থেকে আনতে রওনা হন ব্যবসায়ী জিয়া সরদার। পথে বেশনাল কালভার্টের সামনে পথরোধ করে ডিবি সদস্য পরিচয়ে তাকে জোর করে মাইক্রোবাসে তুলে নেয় যুবলীগ নেতা শিপন পাটোয়ারীসহ ১০-১২ জন। সেখান থেকে আমঘাটা গ্রামে নিয়ে এলোপাতাড়ি কোপানো হয়। পরে পায়ে অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে রাস্তার ওপর ফেলে দেওয়া হয় জিয়াকে। এরপর এলাকাবাসী তাকে উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানকার চিকিৎসকরা উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢামেকে পাঠায়।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক শৈবাল বসাক বলেন, আহত জিয়ার শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের একাধিক চিহ্ন রয়েছে।

একই সঙ্গে তার পায়ে গুলি করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার খাইরুল হাসান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে আমরা তথ্য পেয়েছি ওই ব্যক্তিকে (জিয়া সরদার) ডিবি পরিচয়ে উঠিয়ে নিয়ে যায়। পরে তাকে মারধর করে। ওই ব্যক্তির শরীরে ধারালো অস্ত্রে কোপানোর চিহ্ন মিলেছে। তার পায়ে থেঁতলানো অংশ কোপ হতে পারে আবার ছররা গুলিও হতে পারে।’

সদর থানার এসআই মো. ফরিদ জানান, ঘটনার পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। বর্তমানে সেখানকার পরিস্থিতি শান্ত। তিনি আরও জানান, আহত জিয়া সরদার গত বছর ২১ সেপ্টেম্বর মুন্সীগঞ্জ শহরের উপকণ্ঠ মুক্তারপুর পুরাতন ফেরিঘাটে পুলিশের ওপর বিএনপি কর্মীদের হামলার ঘটনায় হওয়া মামলার আসামি।

আহত জিয়া সরদারের বড় ভাই বাবুল সরদার বলেন, ‘আমার ভাই তার মেয়েকে স্কুল থেকে আনতে গেলে পথিমধ্যে ইউপি চেয়ারম্যান রিপন পাটোয়ারীর ছোট ভাই যুবলীগ নেতা শিপন পাটোয়ারীসহ কয়েকজন ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যায়। পরে তাকে কোপায় ও পায়ে গুলি করে।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও যুবলীগ নেতা শিপনের বড় ভাই রিপন হোসেন পাটোয়ারী বলেন, ‘কে বা কারা কুপিয়েছে জানি না। তবে আমার ভাই এর সঙ্গে জড়িত নয়। তাছাড়া যাকে (জিয়া) কুপিয়েছে সে মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি। সে মুক্তারপুর এলাকায় পুলিশের ওপর হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল।’

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত