বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

আ.লীগ মুখে বলে একটা কাজ করে আরেকটা : ফখরুল

আপডেট : ৩০ জানুয়ারি ২০২৩, ০২:০০ এএম

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেছেন, এ দেশে সম্পূর্ণভাবে একদলীয় শাসনব্যবস্থা আওয়ামী লীগ চাপিয়ে দিচ্ছে, জনগণের কাছে তা খুব স্পষ্টভাবে এসে গেছে। আওয়ামী লীগ সবসময় একটা ডাবল স্ট্যান্ডার্ড পলিটিক্যাল পার্টি। তারা মুখে বলে একটা, কাজ করে আরেকটা।

গতকাল রবিবার দুপুরে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এ কথা বলেন। এর আগে বিএনপি লিয়াজোঁ কমিটি ও ১২ দলীয় জোটের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনিসহ দলের অন্য নেতারা।

রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় নেতাকর্মীরা যাতে নির্বিঘেœ যেতে পারে সে জন্য সাতটি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা ছিল। অন্যদিকে বিএনপির কর্মসূচি পালনে বৈপরীত্য দেখা যাচ্ছে। সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সরকার আমাদের প্রোগ্রামের সময় তিন দিন আগে থেকে পরিবহন ধর্মঘট করিয়েছে, পুলিশকে নামিয়ে, রাস্তায় মোবাইল ফোন পর্যন্ত চেক করা হয়েছে। ১০ ডিসেম্বর ঢাকার বিভাগীয় সমাবেশের ১৫ দিন আগে এখানে বিশেষ অভিযান চালিয়েছে। তাদের ভাষায় সেই অভিযান হচ্ছে বিভিন্ন মাদকদ্রব্য, বেআইনি জিনিসগুলো প্রতিরোধের জন্য হোটেলে-রেস্টুরেন্টে-মেসে-ছাত্রাবাসসহ বিভিন্ন জায়গায় হাজার হাজার ছেলেপেলেকে ধরে নিয়ে যাওয়া। এটা তাদের কৌশল। তারা বিরোধী দলকে যেকোনো মূল্যে হোক বাধা প্রদান করবে, কোনোভাবে কর্মসূচি করতে দেবে না। অন্যদিকে তারা (সরকারি দল) তাদেরটা বলতেই থাকবে, করতেই থাকবে এবং সেই ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের সব যন্ত্রকে ব্যবহার করবে।’

যুগপৎ আন্দোলনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এ আন্দোলনে অবশ্যই মানুষের মধ্যে একটা আস্থার সৃষ্টি হয়েছে। অন্যান্য রাজনৈতিক দল এ দাবির (১০ দফা দাবি) সঙ্গে একমত হয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য লড়াই-সংগ্রাম করছেন। এটা (যুগপৎ আন্দোলন) নিঃসন্দেহে অনেক বড় মাত্রা যুক্ত করেছে এবং জনগণকে আশ্বস্ত করেছে।

পথযাত্রা কর্মসূচিকে বিএনপির মরণযাত্রা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘কিশোর কুমারের একটা গান আছে না... মরণযাত্রা যেদিন যাবে। উনার (ওবায়দুল কাদের) সেটা মনে পড়েছে আরকি। উনি নিজের চিন্তা করছেন কি না আমি জানি না। আমরা পথযাত্রা কর্মসূচি নিয়ে এইটুকু বলতে পারি, এর মধ্য দিয়ে একটা নতুন মাত্রা সৃষ্টি হলো এবং জনগণের মধ্যে একটা আকাক্সক্ষা গণতন্ত্রকে ফিরে পাওয়ার জন্য রাজপথে নেমে আসার একটা নতুন মাত্রা যুক্ত হয়েছে।’

এ সময় ১২ দলীয় জোটের সমন্বয়কারী জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার বলেন, আগামী দিনে আন্দোলনকে কীভাবে আরও গতিশীল করা যায় তা নিয়ে বিএনপির সঙ্গে কথা বলেছি এবং একটি স্থির সিদ্ধান্তের দিকে অগ্রসর হয়েছি। সেই সিদ্ধান্তের কথা আমি বলতে চাই না। শুধু এটুকু বলতে চাই, এ টু জেড সব সরকারবিরোধী শক্তি আজ মনে মনে, অন্তরে অন্তরে সংকল্পবদ্ধ, ঐক্যবদ্ধ। আগামী ৪ তারিখে জোটের পক্ষ থেকে আরও বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

বৈঠকে ১২ দলীয় জোটের কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জাতীয় দলের সৈয়দ এহসানুল হুদা, বাংলাদেশ এলডিপির শাহাদাত হোসেন সেলিম, এনডিপির আবু তাহের, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহিউদ্দিন ইকরাম, জাগপার রাশেদ প্রধান, ইসলামী ঐক্যজোটের আবুল কাশেম, মুসলিম লীগের তফাজ্জল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপির লিয়াজোঁ ও স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান ও আবদুল আউয়াল মিন্টু এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

১২ দলের লিয়াজোঁ কমিটি গঠন : গণতন্ত্র মঞ্চের মতো ১২ দলের জন্য লিয়াজোঁ কমিটির গঠন করা হয়েছে। গতকালের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। এ লিয়াজোঁ কমিটির প্রধান করা হয়েছে জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দারকে। সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জাতীয় দলের সৈয়দ এহসানুল হুদা, বাংলাদেশ এলডিপির শাহাদাত হোসেন সেলিম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহিউদ্দিন ইকরাম, এনডিপির আবু তাহেরকে।

বৈঠকে থাকা একটি সূত্র জানায়, আগামী দিনে কী কর্মসূচি দেওয়া যায় তার পরামর্শ চেয়েছেন বিএনপি নেতারা। একটি লিখিত প্রস্তাব মোস্তফা জামাল হায়দার ও সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম এ সপ্তাহেই বিএনপির কাছে দেবেন।

‘জনগণের সার্বভৌমত্ব’ প্রতিষ্ঠা করতে আইনজীবীদের এগিয়ে আসার আহ্বান : এদিকে গতকাল বিকেলে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের উদ্যোগে ‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ঘোষিত রাষ্ট্র কাঠামো মেরামতের রূপরেখার ব্যাখ্যা ও বিশ্লেষণ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল বলেন, দেশে সত্যিকার অর্থে জনগণের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য জনগণের সার্বভৌমত্বকে প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এদেশ কারও পৈতৃক বা ব্যক্তি সম্পত্তি নয়, মানুষের সম্পত্তি। এখানে যা ইচ্ছা তাই করে কেউ পার পেয়ে যাবে, চলে যাবে তা হতে পারে না। আমাদেরকে সেখানে রুখে দাঁড়াতে হবে, দায়িত্ব পালন করতে হবে।

আইনজীবীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনাদের ওপরে দেশের, জাতির অনেক আশা- আকাক্সক্ষা। আজকে জাতি চাচ্ছে, আপনারা এগিয়ে আসুন। সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন। এটা আমাদের প্রত্যাশা, জনগণের প্রত্যাশা। আমাকে, আমাদের নেতাকর্মীদের কারাগার থেকে আইনের মাধ্যমে বের করে নিয়ে আসার জন্য সর্বাত্মক শক্তি নিয়োগ করেছেন, এখনো করে চলেছেন। সেজন্য আমি আপনাদের প্রতি কতৃজ্ঞ।’

বিএনপির দেওয়া ২৭ দফা রূপরেখাটি আইনজীবীদের আরও ভালোভাবে পর্যালোচনা করার আহ্বানও জানান বিএনপি মহাসচিব।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এজে মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে ও মহাসচিব কায়সার কামালের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য জমির উদ্দিন সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান ওমর, মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত