রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

এলসি নিয়ে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ সঠিক নয়

আপডেট : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১১:১১ পিএম

রমজান মাসকে কেন্দ্র করে পর্যাপ্ত এলসি খোলা হয়েছে। যার পরিমাণ গত বছরের জানুয়ারির তুলনায় অনেক বেশি। তারপরও বিভিন্ন মাধ্যমে এলসি খোলার বিষয়ে ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করছেন। এসব অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. মেজবাউল হক। গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

সদ্য সমাপ্ত জানুয়ারি মাসে এলসি খোলার তথ্য প্রকাশ করে মুখপাত্র জানান, রমজান মাসে পাঁচটি পণ্যের চাহিদা থাকে সবচেয়ে বেশি। আর বাজার স্বাভাবিক রাখতে এসব পণ্য আমদানিতে সব ধরনের সহযোগিতা করে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তথ্য মতে, ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসে ৫ লাখ ৬৫ হাজার ৯৪১ টন চিনির ঋণপত্র খোলা হয়েছে। এক বছর আগের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল ৫ লাখ ১১ হাজার ৪৯৩ টন। সুতরাং এ বছরের জানুয়ারিতে ৫৪ হাজার ৪৪৮ টন বেশি চিনির ঋণপত্র খোলা হয়েছে।

একইভাবে ভোজ্য তেল আমদানির জন্য ৩ লাখ ৯০ হাজার ৮৫৩ টনের ঋণপত্র খোলা হয়েছে ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসে। কিন্তু ২০২২ সালের জানুয়ারিতে এর পরিমাণ ছিল ৩ লাখ ৫২ হাজার ৯৬০ টন। এ বছর ২ লাখ ২৪ হাজার ৫৬৭ টন ছোলা আমদানির জন্য ঋণপত্র খুলেছে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা। এক বছর আগে এর পরিমাণ ছিল ২ লাখ ৬৫ হাজার ৫৯৬ টন। অর্থাৎ এ বছরের জানুয়ারিতে সোলার এলসি কিছুটা কমেছে। ৪২ হাজার ৫৬৩ টন পেঁয়াজ আমদানির ঋণপত্র খুললেও গত বছরের একই সময় ছিল ৩৬ হাজার ২২৬ টন। এ বছর ২৯ হাজার ৪৮২ টনের খেজুরের ঋণপত্র খোলা হয়েছে এ বছর আগের বছর যার পরিমাণ ছিল ১৬ হাজার ৪৯৮ টন।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক পর্যাপ্ত ডলার সহায়তা করছে বলেও দাবি করে তিনি বলেন, চলতি (২০২২-২৩) অর্থবছরের সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) ৯২০ কোটি বা ৯ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। দেশের ইতিহাসে পুরো অর্থবছরেও রিজার্ভ থেকে এত পরিমাণ ডলার বিক্রি হয়নি। এর আগে ২০২১-২২ অর্থবছরের পুরো সময় রিজার্ভ থেকে ৭ দশমিক ৬২ বিলিয়ন বা ৭৬২ কোটি ডলার বিক্রি করা হয়েছিল।

তিনি জানান, দেশের মধ্যে ডলারের তীব্র সংকট চলছে দীর্ঘদিন ধরে। ডলারের এ সংকট কাটাতে উচ্চাভিলাষী পণ্য আমদানি নিরুৎসাহিতের পাশাপাশি বিভিন্ন পদক্ষেপও নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এরপরও সংকট কাটছে না। এ কারণে জরুরি আমদানি দায় মেটাতেই বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে প্রতিনিয়ত ডলার সহায়তা দিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবুও আটকে থাকছে কোটি কোটি টাকার পণ্য। ডলার সংকটে আমদানিকারকদের চাহিদা মেটাতে পারছে না অধিকাংশ ব্যাংক। এসব সমস্যার সমাধান দিতে অর্থবছরের সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) ৯২০ কোটি বা ৯ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এদিকে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ থেকে ডলার সহায়তা দেওয়ার কারণে রপ্তানি আয় ও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স বাড়ার পরও রিজার্ভ কমছে। বাংলাদেশ ব্যাংক রিজার্ভ থেকে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের কাছে ডলার বিক্রি করেছে। ফলে দিন শেষে রিজার্ভের পরিমাণ কমে ৩২ বিলিয়ন ডলারের ঘরে অবস্থান করছে।

মুখপাত্র আরও জানান, পণ্য পরিবহন ও সাপ্লাই নিশ্চিত করা গেলে রমজানে কোনো পণ্যের ঘাটতি হবে না। এ ছাড়া রপ্তানি বৃদ্ধিতেও আমরা বিশেষ নজর রেখেছি। গত নভেম্বর মাস থেকে প্রতি মাসে ৫ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে বাংলাদেশ থেকে। চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত মোট রপ্তানি আয় হয়েছে ৩২ বিলিয়ন ডলার, যা আগের বছরের একই সময় ছিল ২৯ বিলিয়ন।

রেমিট্যান্স ও এক্সপোর্ট মিলিয়ে গত সাত মাসে আমাদের ৪৪ বিলিয়ন ডলারের আয় হয়েছে বলে জানিয়েছেন মেজবাউল হক। কিন্তু এই পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রার পুরোটা হাতে এসে পৌঁছায়নি। কারণ অন্য রপ্তানি করার পর টাকা পরিশোধের জন্য ১২০ দিন সময় পেয়ে থাকেন বিদেশি আমদানিকারকরা। তবে এর বিপরীতে আমদানি বিল পরিশোধ করতে হয়েছে ৩৯ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নীতিমালা পরিবর্তন বিষয়ে প্রশ্ন করলে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করেই হঠাৎ কোনো নীতিমালায় পরিবর্তন আনা যায় না। ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধ কভিড ও বৈশ্বিক ঋণের সুদ হারের ঊর্ধ্বগতি অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলেছে। ফলে আমরা আস্তে আস্তে সংস্কারের দিকে হাঁটছি। সংস্কারের অংশ হিসেবে ভোক্তাঋণের সুদহার ৯ থেকে ১২ শতাংশে উন্নীত করার উদাহরণ দেন তিনি। সার্বিকভাবে পণ্য আমদানিতে স্বস্তির বার্তা দিতেই আজকের এই সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন মেজবাউল হক।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত