বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

রাতভর মৃত্যুর বিভীষিকা

আপডেট : ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০২:৩৮ এএম

গাজীপুর থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকার নবীনগরে নামিয়ে সড়কের পাশে বাস রেখে রাতে ঘুমানোর প্রস্তুতি নিতে থাকেন ওই বাসচালক, তার সহকারী ও সুপারভাইজার। রাত সাড়ে ১১টার দিকে হঠাৎ ১২-১৩ জনের একদল ডাকাত বাসে উঠে চিৎকার করতে থাকে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই তিনজনকে লোহার পাইপ দিয়ে বেদম মারধর করে। এরপর চোখ-মুখ, হাত ও পা বেঁধে বাসের পেছনের আসনে ফেলে রাখে। তাদের কাছ থেকে টাকা, মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয় ডাকাতরা।

এরপর ডাকাতরা বাস নিয়ে রাজধানীতে চলে আসে এবং রাতভর রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে ঘুরে ঘুরে যাত্রী তোলে। যাত্রীরা বাসে ওঠার সঙ্গে সঙ্গেই শুরু করে মারধর। তাদেরও মুখ, হাত ও পা বেঁধে সবকিছু ছিনিয়ে নিয়ে কাউকে সড়কে নামিয়ে দেয় আবার কাউকে বাসের পেছনে গাদাগাদি করে ফেলে রাখে। যাত্রীদের মধ্যে চিকিৎসক, ব্যাংকার ও সাধারণ কর্মজীবীও ছিলেন। তাদের হত্যা করে রাস্তার পাশে ফেলে দেওয়া হবে বলেও হুমকি দেয় ডাকাতরা। কিছুক্ষণ পরপর লোহার পাইপ দিয়ে শরীরে আঘাত করে। অনেকের শরীর ফেটে রক্ত বের হতে থাকে। ভুক্তভোগীরা প্রতিনিয়ত মৃত্যুর প্রহর গুনছিলেন। পরে ভোরের দিকে চন্দ্রার একটি নির্জন স্থানে বাস রেখে সটকে পরে ডাকাত দলটি। বাসটির স্টাফ ও ভুক্তভোগী যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে এমন বিভীষিকাময় পরিস্থিতির কথা জানা গেছে।

গত রবিবার রাতে গাজীপুর-খুলনা রুটে চলা রিসাত পরিবহন (প্রা.) লিমিটেডের একটি বাসে এমন নৃশংস ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর নবীনগর পুলিশ ফাঁড়িতে গিয়ে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন বলে দাবি করেন রিসাত পরিবহনের ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম। গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত ডাকাত দলের কাউকেই গ্রেপ্তারের তথ্য পাওয়া যায়নি। শফিকুল ইসলাম গতকাল দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বাস থেকে ২২ হাজার টাকা নিয়েছে এবং স্টাফদের মারধর করেছে। তবে আমাদের বাসমালিক কোনো ধরনের ঝামেলায় যেতে চান না। আমরা নবীনগর পুলিশ ফাঁড়িতে একটি জিডি করেছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নবীনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) ফরহাদ বিন করিম দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বাস ডাকাতির কোনো তথ্য আমার জানা নেই। এ ছাড়া এ বিষয়ে কেউ সাধারণ ডায়েরিও করেছে বলেও ডিউটি অফিসার আমাকে বলেননি।’ বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখা হবে বলে জানান তিনি।

ভুক্তভোগীদের একজন রাজধানীর হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের চিকিৎসক শাওন চৌধুরী জয়। রবিবার রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী যাওয়ার উদ্দেশে চাঁনখারপুল এলাকা থেকে রিসাত পরিবহনের ওই বাসটিতে ওঠেন তিনি। এর পরই তার কাছ থেকে সবকিছু ছিনিয়ে নেয় ডাকাতরা। চোখ বেঁধে বাসের পেছনে নিয়ে বসিয়ে রাখে। শাওন চৌধুরী জানান, তার কাছে থাকা ১২ প্রোম্যাক্স আইফোন, ৭ আইফোন, নগদ সাড়ে চার হাজার টাকা, হাতঘড়ি ও ব্যাংকের এটিএম কার্ড নিয়ে গেছে ডাকাত দল। তাকে মারধরও করেছে তারা।

এর আগেও রাজধানী ঢাকা ও এর আশপাশ এলাকায় ডজনখানেক বাস ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। শফিকুল ইসলাম নামে টাঙ্গাইলের ২৫০ শয্যা হাসপাতালের একজন চিকিৎসক ঢাকা থেকে টাঙ্গাইল যাওয়ার পথে এরকম ডাকাতির কবলে পড়েন। পরে তিনি ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করলে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়। এরপরই আন্তঃজেলা বাসে ডাকাতি করা দলের সদস্যদের গ্রেপ্তারে বিশেষ অভিযান শুরু করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। গ্রেপ্তার হয় বেশ কিছু ডাকাত।

ডাকাতির একাধিক মামলা নিয়ে তদন্তকারী পুলিশের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা গতকাল দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বাস ডাকাতিতে জড়িয়ে অতীতে গ্রেপ্তার হওয়া বেশ কিছু দুর্ধর্ষ ডাকাত সম্প্রতি জামিনে মুক্তি পেয়েছে। ফলে ডাকাতির রাতভর মৃত্যুর বিভীষিকা ঘটনা বেড়ে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে। তাদের ওপর নজরদারি বাড়ালে বাস নিয়ে এভাবে ডাকাতির ঘটনা কমে আসবে।’

রিসাত পরিবহনের ওই বাসের কর্মচারীরা জানান, রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় গাজীপুর থেকে যাত্রী নিয়ে খুলনার উদ্দেশে রওনা দেন তারা। রাত সাড়ে ৮টার দিকে নবীনগর পৌঁছলে সব যাত্রী নেমে যান। এ সময় বাস কর্তৃপক্ষ নির্দেশ দেয় যেহেতু বাস খালি তাই রাতে সেখানে থেকে পরদিন ভোরে ট্রিপ নিয়ে খুলনা যেতে। সে কারণে তারা নবীনগর বাস কাউন্টারে পেট্রলপাম্পের পাশের ফুটপাতে বাস রাখেন। খাওয়াদাওয়া শেষে রাত ১১টার দিকে বাসের ভেতরেই ঘুমানোর প্রস্তুতি নিতে থাকেন। ওই সময়ে ডাকাতের কবলে পড়েন।

কর্মচারীরা জানান, ডাকাত দল বাসে উঠে চালক মো. নাসির উদ্দিনকে লোহার পাইপ দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকে। একে একে সুপারভাইজার রাসেল ও চালকের সহকারীকেও মারধর করে। তাদের অর্ধনগ্ন করে গামছা ও লুঙ্গি দিয়ে চোখ, মুখ, হাত, পা বেঁধে বাসের পেছনের সিটে ফেলে রাখে। নড়াচড়া করলেই লোহার পাইপ দিয়ে আঘাত করতে থাকে। একপর্যায়ে ডাকাতরা জানতে চায় গাড়ির জিপিআরএস (জেনারেল প্যাকেট রেডিও সার্ভিস) চালু আছে কি না। চালক জানান জিপিআরএস নেই। এরপরই চালকের ঘাড়ে পাইপ দিয়ে সজোরে আঘাত করে ডাকাতরা। তারপর গাড়ি চালিয়ে রাজধানীতে চলে আসে। রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে ঘোরার সময় কোনো যাত্রী সিগন্যাল দিলেই তাকে বাসে তুলেই মুখ বেঁধে সবকিছু ছিনিয়ে নিয়ে বাসের পেছনে নিয়ে রাখতে থাকে। রাতভর এমন সাত থেকে আটজনকে বাসে তুলে ডাকাতি করেছে চক্রটি। বাসে ওঠার পর ফাঁকা বাস দেখে অনেকে নামার চেষ্টা করলে তাদের বেশি মারধর করেছে। ভোরে চন্দ্রায় ফেলে যাওয়ার পর তাদের ডাকাডাকিতে পথচারীরা এসে উদ্ধার করে হাত-পায়ের বাঁধন খুলে দেয়।

চালক নাসির দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ডাকাতরা সারা রাত টানা বাস চালিয়েছে। কোথাও বিরতি দেয়নি। যাত্রীদের যে যেখানে যেতে চেয়েছে তাকে সেখানকার কথা বলেই তুলে নিয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের বেঁধে রেখে তারা বাসের মধ্যেই গাঁজা খেতে থাকে। খুবই হিংস্র আচরণ করতে থাকে। সবকিছু দিয়ে দেওয়ার পরও মারধর করেছে। তারা বারবার বলছিল আমাদের মেরে রাস্তার পাশে লাশ ফেলে দেবে।’ কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি আরও বলেন, ‘চোখ বাঁধা অবস্থায় আমাকে যখন পাইপ দিয়ে খোঁচা দিতে থাকে তখন মনে হচ্ছিল ধারালো চাকু দিয়ে খোঁচাচ্ছে। আঘাতের কারণে আমার শরীর থেকে রক্ত বের হতে থাকে। মনে হচ্ছিল এখনই মারা যাব হয়তো। আমার ছোট্ট দুটি বাচ্চার কথা বারবার মনে পড়ছিল।’ ভুক্তভোগীদের মধ্যে এক চিকিৎসক ছাড়া আর কেউ থানায় যেতে রাজি হয়নি বলে জানান নাসির।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত