মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সিরাজগঞ্জে আ.লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা

আপডেট : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০২:১৯ এএম

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে বাজারে মাইকিং করে দোকানে ঢুকে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল কুদ্দুস সরকারকে (৫৩) গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় দেশীগ্রাম ইউনিয়নের ভোগলমান চারমাথা বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আবদুল কুদ্দুস দেশীগ্রাম ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান। এ ছাড়া তিনি দেশীগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি। সর্বশেষ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন।

হামলাকারীরা পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টির সদস্য ছিল বলে জানিয়েছেন নিহতের ছেলে মো. রুহুল আমীন বলেন।

একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, সন্ধ্যা ৭টার দিকে দিকে ২০-২৫ জন নিজেদের পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টির সদস্য দাবি করে ভোগলমান চারমাথা বাজারে ঢোকে। তারা হ্যান্ডমাইক দিয়ে বাজারের সব লোকজনকে বাজার ত্যাগ করার নির্দেশ দেয়। একই সঙ্গে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পুরো এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এরপর ছেলের কীটনাশকের দোকানে বসে থাকা আব্দুল কুদ্দুস সরকারকে কিছু বুঝে ওঠার আগেই কয়েক রাউন্ড গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে তারা এলাকা ত্যাগ করে। খবর পেয়ে তাড়াশ থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়। এ ঘটনার পর পুরো এলাকায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এই হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে দেশীগ্রাম ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান জ্ঞানেন্দ্রনাথ বসাক দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘আব্দুল কুদ্দুস বাজারে ছেলের কীটনাশকের দোকানে বসে ছিলেন। এ সময় দুর্বৃত্তরা হঠাৎ হামলা চালিয়ে তাকে গুলি করে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।’

তাড়াশ থানার ওসি শহিদুল ইসলাম জানান, আব্দুল কুদ্দুসের বুকে গুলি করা হয়।

উল্লাপাড়া-তাড়াশ সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার অমৃত সূত্রধর দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘খবর পেয়ে তাড়াশ থানার ওসির নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি। পুরো বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ তবে হামলাকারীরা সর্বহারা পার্টির সদস্য ছিল কিনা সে বিষয়ে পুলিশ কিছুই বলেনি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত