রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

উপাচার্য ছাড়াই চলছে নর্থ বেঙ্গল বিশ্ববিদ্যালয়

আপডেট : ১৮ মার্চ ২০২৩, ০২:১২ এএম

উপাচার্য ছাড়াই এক বছরের বেশি সময় ধরে কার্যক্রম চালাচ্ছে রাজশাহীর নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। ভারপ্রাপ্ত হিসেবে আগের উপাচার্যকেই দায়িত্ব দিয়ে তার স্বাক্ষরেই দেওয়া হচ্ছে মূল সনদপত্রগুলো। এতে করে পরে এই সনদপত্রের সঠিক মূল্যায়ন হবে কি না তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে শিক্ষার্থীদের মনে।

তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে, উপাচার্য নিয়োগের জন্য প্যানেল পাঠানো হয়েছে। তাই যত দিন নতুন উপাচার্য নিয়োগ না হচ্ছে তত দিন ট্রাস্টি বোর্ডের নির্দেশে এই উপাচার্যই ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দাপ্তরিক কাজগুলো করবেন। কিন্তু ইউজিসির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বলেছেন, কাউকে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব দেওয়ার ক্ষমতা নেই বিশ্ববিদ্যালয়ের। নিয়ম অনুযায়ী, কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের মেয়াদ শেষ হলে সেখানকার উপ-উপাচার্য দায়িত্ব পালন করবেন। আর উপ-উপাচার্যও যদি না থাকেন তবে সে ক্ষেত্রে কোষাধ্যক্ষ দায়িত্ব পালন করবেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার রিয়াজ মাহমুদ বলেন, ‘উপাচার্যের মেয়াদ শেষ হয়েছে গত বছরের জানুয়ারিতে। নতুন উপাচার্য নিয়োগের জন্য প্যানেল পাঠানো হয়েছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে ট্রাস্টি বোর্ড সর্বোচ্চ কর্র্তৃপক্ষ। তারা যে সিদ্ধান্ত নেবে সেটা বিশ্ববিদ্যালয় কর্র্তৃপক্ষকে মানতে হবে। ট্রাস্টি বোর্ড থেকে প্রফেসর আবদুল খালেককে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য হিসেবে কাজ চালিয়ে যেতে বলা হয়েছে। যেহেতু তিনি ভারপ্রাপ্ত হিসেবে এখন দায়িত্বে আছেন, সেহেতু সব ডকুমেন্টে তিনি স্বাক্ষর করতে পারবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা প্যানেল পাঠিয়েছি। সেটা ইউজিসি, মন্ত্রণালয় হয়ে চ্যান্সেলর নিয়োগ দেবেন। যেহেতু নিয়োগ এখনো হয়নি, সুতরাং বিশ্ববিদ্যালয় তো বন্ধ করে রাখা যাবে না। তাই স্বাভাবিক কার্যক্রম চালানোর স্বার্থে ট্রাস্টি বোর্ড তাকে (আবদুল খালেক) ভারপ্রাপ্ত হিসেবে রেখেছে। তবে কবে নাগাদ নিয়োগ হবে এটা ট্রাস্টি বোর্ড বলতে পারে।’

উপাচার্য নিয়োগ না হওয়ার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো দায় নেই দাবি করে রেজিস্ট্রার রিয়াজ মাহমুদ বলেন, ‘একটি সার্টিফিকেটে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের স্বাক্ষর লাগে। এখন উপাচার্য নিয়োগ দেন চ্যান্সেলর। তাই চ্যান্সেলর যত দিন নিয়োগ না দেবে তত দিন ভারপ্রাপ্ত যিনি আছেন তিনিই কাজ চালাবেন। এ ক্ষেত্রে উপাচার্য নিয়োগের জন্য প্যানেল না পাঠালে একটা দায় থাকে। কিন্তু এখানে এমনটি নয়। প্যানেল পাঠানো হয়েছে। কিন্তু সেই অনুযায়ী এখনো নতুন উপাচার্য নিয়োগ হয়ে আসেনি।’

এ বিষয়ে নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রাশেদা খালেক বলেন, ‘আমাদের ইউনিভার্সিটিতে উপাচার্যের পদ শূন্য। আমরা নিয়োগের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আবেদন পাঠিয়েছি। তবে এখনো নিয়োগ দেয়নি। এখন উপাচার্য ছাড়া তো আর বিশ্ববিদ্যালয় চলে না। এটা তো বন্ধ থাকতে পারে না। তাই আমরা ট্রাস্টি বোর্ড থেকে প্রফেসর আবদুল খালেককে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে রেখেছি। যত দিন নিয়োগ না দেওয়া হবে তত দিন তিনিই সব কাজ চালিয়ে যাবেন। সার্টিফিকেটে তিনিও সাইন করছেন। সেখানে তিনি ভারপ্রাপ্ত হিসেবেই সাইন করছেন।’

তবে ইউজিসির বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার পরিচালক ওমর ফারুক জানান ভিন্ন তথ্য। তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্যের মেয়াদ শেষ হয়েছে। তাদের ট্রাস্টি বোর্ড উপাচার্য নিয়োগের জন্য একটি প্যানেল পাঠিয়েছেন। সেটি আমরা এখন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠাব। সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হয়ে যাবে রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে। সেখান থেকেই চূড়ান্ত হবে এটি। তবে, যতক্ষণ নতুন উপাচার্য নিয়োগ না হচ্ছেন তত দিন সেখানকার উপ-উপাচার্য সেই দায়িত্ব পালন করবেন। আর উপ-উপাচার্য যদি না থাকেন তবে সেখানে কোষাধ্যক্ষ এই দায়িত্ব পালন করবেন।’

নর্থ বেঙ্গল ইউনিভার্সিটিতে আগের উপাচার্যই ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এটা নিয়মসম্মত কি না জানতে চাইলে ওমর ফারুক বলেন, ‘এভাবে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব দেওয়ার নিয়ম নেই।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আবদুল জলিল বলেন, ‘বিষয়টা খুবই গোপনীয়। এটা আমার জানার কথা না যে, কবে প্যানেল পাঠানো হয়েছে।’

উপাচার্যের মেয়াদ শেষে নিয়ম অনুযায়ী উপ-উপাচার্য হিসেবে তারই দায়িত্বে থাকার কথা কি না জানতে চাইলে অধ্যাপক আবদুল জলিল বলেন, ‘আইনের ব্যাপারটি আমাকে জিজ্ঞেস না করাই ভালো। আমি এমপ্লয়ি আর খালেক স্যার হচ্ছে মালিক। কাজেই এমন জটিল প্রশ্নের উত্তর আমি দিতে পারব না। এটা নিয়ে এসব প্রশ্ন সরাসরি স্যারের সঙ্গে কথা বলাই ভালো।’

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আবদুল খালেক বলেন, ‘উপাচার্য নিয়োগের জন্য তিনজনের একটি প্যানেল এখান থেকে পাঠানো হয়েছে। এটির প্রক্রিয়া চলছে। যতটুকু জানি এটি খুব তাড়াতাড়িই হয়ে যাবে। এখন আমি নিজেই ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।’

উপাচার্যের মেয়াদ শেষ হলে নিয়ম অনুযায়ী উপ-উপাচার্য বা কোষাধ্যক্ষ এই দায়িত্বে থাকার কথা কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটা ট্রাস্টি বোর্ড ঠিক করে।’

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত