সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

জিম্মি নাবিকদের পরিবারে ঈদ আনন্দ নেই

আপডেট : ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:২১ পিএম

এবারের ঈদ আনন্দ বিষাদে রূপ নিয়েছে জলদস্যুদের হাতে জিম্মি বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আব্দুল্লাহর ২৩ নাবিক ও ক্রুর পরিবারে। আশঙ্কা আর উদ্বেগের মাঝে পরিবারগুলোতে নেই ঈদের আনন্দ বরং নিদ্রাহীন এবং দুশ্চিন্তায় রাত কাটাচ্ছেন তারা।

জাহাজ মালিক কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নাবিকদের দ্রুত মুক্তির ব্যাপারে আশ্বাস পেয়ে পরিবারগুলোর আশা ছিল, তাদের প্রিয়জনেরা হয়তো ঈদের আগেই দেশে ফিরবেন, অন্তত জিম্মি দশা থেকে মুক্তি পাবেন। তবে তাদের অপেক্ষার প্রহর শেষ হয়নি।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) নাবিক আইনুল হকের মা লুৎফা আরা জানান, ঈদের যে আনন্দ, সেই আনন্দের মন মানসিকতা আমাদের এখন নেই। দুইটা ছেলে ছাড়া আমার আর কেউ নেই।

২০২১ সালে কোভিড মহামারিতে স্বামীকে হারানোর পর দুই ছেলেই তার সবকিছু। বড় ছেলে আইনুল জাহাজের চাকরিতে যোগ দেন ২০১৫ সালে। বাবার মৃত্যুর পর তিনি একাই ধরেন সংসারের হাল। জলদস্যুদের কবলে জাহাজ এ খবর জানার পর থেকে চোখে ঘুম নেই এই মায়ের। এর মাঝে দুই বার বেশ অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি।

তিনি বলেন, ডাক্তার ঘুমের ওষুধ দিয়েছেন, তারপরও ঘুম আসে না। কেবল দুশ্চিন্তা এসে ভর করে। ছোট ছেলেকেও সারাক্ষণ বাসায় থাকতে বলেছি ,একান্ত প্রয়োজন ছাড়া বেশিক্ষণ বাইরে থেকো না।

দুই সপ্তাহ আগে জাহাজের মালিক প্রতিষ্ঠান কেএসআরএম গ্রুপের শীর্ষ কর্মকর্তারা নাবিকদের পরিবারের সদস্যদের জন্য ইফতারের আয়োজন করেন। সেখানে তারা পরিবারগুলোকে আশ্বস্ত করেন যে যত দ্রুত সম্ভব জিম্মি নাবিকদের ফিরিয়ে আনার সর্বাত্মক চেষ্টা তারা করছেন।

লুৎফা আরা জানান, ওই আশ্বাসের পর আমাদের মনে হয়েছিল হয়তো ঈদের আগেই নাবিকেরা মুক্তি পাবেন। কিন্তু এখন তো মনে হচ্ছে আরও সময় লাগবে।

জলদস্যুরা গত শুক্রবার নাবিকদের বেশ কয়েকজনকে তাদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ দেয়। ওই দিন ইফতারের পর ছেলে আইনুলের সঙ্গেও কথা হয় তার মায়ের। ছেলে জানিয়েছে, তারা খুবই পানির কষ্টে রয়েছে। এখন পর্যন্ত সপ্তাহে কেবল দুবার গোসলের সুযোগ পাচ্ছেন নাবিকেরা। সামনে হয়তো সপ্তাহে একবারের বেশি সুযোগ নাও পেতে পারে। আমার ছেলে তো ইঞ্জিন রুমে কাজ করে তাই তার কষ্ট অনেক বেশি।

লুৎফা আরা জানান, আমাদের শুধু একটাই প্রত্যাশা আমাদের সন্তানেরা যেন খুব দ্রুত নিরাপদে ফিরে আসে। আমি দোয়া করি আল্লাহ যেন জলদস্যুদের হেদায়েত দেয় যাতে তারা তাড়াতাড়ি জিম্মিদের মুক্তি দেয়। প্রার্থনা করি মালিকপক্ষ যেন সুন্দরভাবে সমস্যার সমাধান করতে পারে।

আইনুলের পরিবারের মতো একই অবস্থা জিম্মি আরেক নাবিক মোহাম্মদ নুরুদ্দিনের বাড়িতে। নূরের স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, আমাদের জন্য ঈদের আনন্দটা এবার আসে নাই। আমাদের স্বজনদের জন্য আমরা এতটাই দুশ্চিন্তায় আছি যে ঈদের কোনো প্রস্তুতি শপিং কিছুই হয়নি আমার কিংবা আমার শিশু পুত্রের মাঝেও ঈদের কোনো আনন্দ নেই।

জান্নাতুল বলেন, ঈদে জাহাজে থাকলেও আনন্দেই কাটান নাবিকেরা একসাথে পরিবারের মতো উদযাপন করেন। পরিবারের সদস্যদের সাথেও সেই আনন্দ ভাগ করে নেন। কিন্তু এবার তো আর সেটা হচ্ছে না। আমার স্বামী নিরাপদে বাড়ি ফিরে এলেই আমাদের ঈদ।

একাধিক সূত্র জানিয়েছে, জিম্মি জাহাজ ও নাবিকদের মুক্তির বিষয়ে জলদস্যুদের সঙ্গে সমঝোতা প্রায় শেষ। জাহাজের মালিক পক্ষ এখন আনুষ্ঠানিকভাবে মুক্তিপণ দেওয়ার বিষয়টি সুরাহা করার প্রক্রিয়ায় ব্যস্ত। অবশ্য জাহাজের মালিক প্রতিষ্ঠান এ ব্যাপারে এখনো চূড়ান্তভাবে কিছু জানায়নি।

কেএসআরএম গ্রুপের গণমাধ্যম উপদেষ্টা মিজানুল ইসলাম বলেন, জলদস্যুদের সাথে আলোচনায় অগ্রগতি হয়েছে। তবে নাবিকদের মুক্তির বিষয়ে সুনির্দিষ্টভাবে কোনো দিনক্ষণ বলা সম্ভব নয়। তবে তিনি জানান, ঈদের পর দ্রুততম সময়ে জাহাজ ও নাবিকদের মুক্তি এবং ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে মালিক কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

গত ১২ মার্চ আফ্রিকার দেশ মোজাম্বিকের মাপুতো বন্দর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আল হামরিয়া বন্দরের উদ্দেশ্যে কয়লা নিয়ে যাওয়ার পথে ওই দিন দুপুর দেড়টা নাগাদ (বাংলাদেশ সময়) সোমালিয়ার উপকূল থেকে প্রায় ৬০ নটিক্যাল মাইল দূরে বাংলাদেশি জাহাজটি জলদস্যুদের কবলে পড়ে। জাহাজটি বর্তমানে সোমালি উপকূলের কাছে নোঙর করা।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত