বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ইরানে ইসরায়েলের হামলা, সর্বশেষ যা জানা গেল

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২৬ এএম

ইরানের দূতাবাসে হামলার জবাবে গত শনিবার প্রথমবারের মতো ইসরায়েলের ভূখণ্ডে পাল্টা হামলা চালায় তেহরান। এরপরপরই ফের ইরানে হামলার হুঁশিয়ারি দেয় ইসরায়েল। এর জেরে পশ্চিমা মিত্রদের নিষেধ স্বত্বেও আজ শুক্রবার ইরানে হামলা চালিয়েছে তেল আবিব। মার্কিন সংবাদমধ্যম এবিসি নিউজ, বিবিসি আল জাজিরাসহ বেশ কিছু গণমাধ্যম এ তথ্য জানিয়েছে। 

জানা গেছে, শুক্রবার ভোরে ইরানের গুরুত্বপূর্ণ শহর ইসফাহানে হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। শহরটির বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে বলে জানিয়েছে দেশটির বার্তা সংস্থা ফারস। 

দেশটির মহাকাশ সংস্থার এক মুখপাত্র জানিয়েছেন ‘বেশ কিছু ছোট ড্রোন’ ভূপতিত করা হয়েছে। ইসফাহানের আশেপাশের পরিস্থিতি সম্পর্কে ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন বিস্তারিত জানিয়েছে। তারা বলছে, শুক্রবার ভোররাতে ইসফাহানের আকাশে তিনটি ড্রোন দেখা যায় যা আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংস করা হয়েছে।

ইরানের আধা-সরকারি মেহর নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, হামলার পর ইসফাহান ‘সম্পূর্ণ শান্ত ও নিরাপদ’ রয়েছে। মানুষ চলছে তাদের স্বাভাবিক জীবনযাপন করছে বলে জানানো হয়েছে। 
 
তুলে নেওয়া হয়েছে সারা দেশে বিমান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা। এনতেখাব নিউজ জানিয়েছে, তেহরানের প্রধান অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর মেহরাবাদে ফ্লাইটগুলি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছে। ইমাম খোমেনী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বিমান চলাচল শুরু হয়েছে। 

এদিকে ইরানে হামলার পর ইসরায়েলের উত্তরাঞ্চলে বেজে ওঠে সাইরেন। তবে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী বলেছে, শুক্রবার ভোরে যে সতর্কতামূলক সাইরেন বেজেছে তা ‘মিথ্যা অ্যালার্ম’।  

বিবিসির নিরাপত্তা বিশ্লেষক ফ্রাঙ্ক গার্ডনার বলেছেন, ইসরায়েলে এটা পরিষ্কার করেই বলেছে যে তার পাল্টা হামলা করবে। তবে শুক্রবার ভোরের এই হামলাই যদি ইসরায়েলের সেই পাল্টা হামলা হয় তবে সেটা খুবই ছোট হামলা। ইসফাহানের পরিস্থিতি খুবই স্বাভাবিক। 

তবে ইসরায়েলের হামলার কথা অস্বীকার করেছে তেহরান। দেশটির মহাকাশ সংস্থার এক কর্মকর্তা এ হামলার ঘটনা সরাসরি অস্বীকার করেছেন। হোসেন দালিরিয়ান নামের ওই কর্মকর্তা লিখেছেন, সীমান্তের বাইরে থেকে ইসফাহান বা দেশের অন্যান্য অংশে কোনো স্থানে বিমান হামলা হয়নি। যেটা হয়েছে সেটা হলো কোয়াডকপ্টার (ড্রোন) ওড়ানোর একটি ব্যর্থ এবং অপমানজনক প্রচেষ্টা। ড্রোনলিকেও গুলি করে ভূপতিত করা হয়েছে। 

ইসফাহান প্রদেশের এক জেনারেলের বরাত দিয়ে দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে ইসফাহান প্রদেশে কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। সেখানে যে বিকট শব্দ শোনা গেছে তা আকাশ প্রতিরক্ষা মিসাইল ছোড়ার কারণে হয়েছে। 

এদিকে হামলার বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি ইসরায়েল। এ বিষয়ে মুখ খোলেনি যুক্তরাষ্ট্রও। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত