সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কিংস অজেয়ই থাকল আবাহনীর কাছে

আপডেট : ১৫ মে ২০২৪, ১২:০২ এএম

এই মৌসুমে আবাহনী শতভাগ ব্যর্থ হয়েছে বসুন্ধরা কিংসকে চ্যালেঞ্জ জানাতে। মৌসুমের চার সাক্ষাতেই আবাহনীকে হেসেখেলে হারিয়েছে বসুন্ধরা। মঙ্গলবার গোপালগঞ্জে ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালটা ৩-০ ব্যবধানে জিতে ট্রেবল জয়ের আরও কাছে পৌঁছে গেছে মাত্রই টানা পঞ্চম লিগ শিরোপা নিশ্চিত করা বসুন্ধরা। ট্রেবল জিততে ২২ মে ময়মনসিংহে ফাইনালে তাদের হারাতে হবে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মোহামেডানকে।

আবাহনী নয়, বরং এই মৌসুমে মোহামেডানকেই বসুন্ধরার অন্যতম প্রতিপক্ষ বলা যায়। স্বাধীনতা কাপের ফাইনালে সাদা-কালোদের হারায় বসুন্ধরা। সেই হারের প্রতিশোধ লিগের প্রথমপর্বে নেয় আলফাজ আহমেদের মোহামেডান। কিংস এরেনায় স্বাগতিকদের ১-০ তে হারিয়ে চমকে দিয়েছিল মোহামেডান। তবে গত শনিবার তাদের শিরোপা রেস থেকে ছিটকে দিয়ে বিপিএল শিরোপা নিজেদের কাছে রাখা নিশ্চিত করে বসুন্ধরা। এবার ফেডারেশন কাপটা ঘরে তুলতে পারলে বসুন্ধরা ভাগ বসাবে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের ২০২৩-১৪ মৌসুমে ট্রেবল জয়ের অনন্য রেকর্ডে।

মঙ্গলবার শুরুটা আবাহনী তোড়জোড় করে শুরু করেছিল। প্রথম ২০ মিনিট বারবার বসুন্ধরার রক্ষণে হানা দিয়েছে। তবে তাদের আছে একজন অটোমেটিক চয়েজ গোলরক্ষক শহিদুল আলম সোহেল। আগের ম্যাচেই যার ভুলে পুলিশকে হারাতে পারেনি আবাহনী। সেই সোহেলের বদান্যতায় ধারার বিপরীতে ২১ মিনিটে এগিয়ে যায় বসুন্ধরা। প্রতি আক্রমণ থেকে রাকিবের পাসে গোল করেন রবসন রবিনহো। স্রোতের বিপরীতে গোল হজমের পর খেই হারিয়ে দিশেহারা আবাহনী। দ্বিতীয়ার্ধের শেষ দিকে আরও দুই গোল হজম করে তারা। ৭১ মিনিটে ডান দিক থেকে রাকিব হোসেনের ক্রসে ডরিয়েলটন গোমেজ হেড করে ব্যবধান বাড়ান। আর যোগ করা সময়ে রবিনহোর ফ্রি-কিক সোহেলের গ্লাভস ফসকালে সুযোগ সন্ধানী গোল করেন বদলি উইঙ্গার মোহাম্মদ ইব্রাহিম।

লিগ জয়ের পর ফেডারেশন কাপের ফাইনাল নিশ্চিত করে ভীষণ সন্তুষ্ট বসুন্ধরার কোচ অস্কার ব্রুজোন। তবে ফেডারেশন কাপের প্রতিপক্ষ নিয়ে তিনি ভাবছেন না। তার চোখ ট্রেবল জয়ে, (ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালে) ছেলেরা ভালো খেলেছে। সামনে বড় ম্যাচ (ফাইনাল)। আমরা নিজেদের সেরাটা দিয়ে খেলার জন্যই প্রস্তুত হচ্ছি।’ আবাহনীকে ৩-০ গোলে হারানোর পরও ম্যাচ শেষে আরও বেশি ব্যবধানে জয় না পাওয়া নিয়ে প্রশ্ন গেছে ব্রুজোনের কাছে। তাতে খানিকটা বিরক্তই হয়েছেন তিনি, ‘বাংলাদেশেই আমার এই ধরনের প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। আমি স্কোরলাইন নিয়ে ভাবি না। ম্যাচে জয় পাওয়াটাই আসল। কত ব্যবধানে জিতলাম সেটা বড় বিষয় নয়। ম্যাচে আমাদের দলগত পারফরম্যান্স ভালো ছিল এটাই মূল বিষয়।’ এরপর যোগ করেন, ‘আমাদের সামনে ট্রেবল জয়ের সুযোগ রয়েছে এটা আমরা কাজে লাগাতে চাই। আমরা এটার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত। আমরা প্রতিপক্ষ নিয়ে ভাবছি না। সব দলকে চ্যালেঞ্জ জানানোর ক্ষমতা আমাদের রয়েছে। আগামী ম্যাচেও আমরা ভালো ফলের ব্যাপারে আশাবাদী।’

স্বাধীনতা কাপের সেমিফাইনাল, লিগে দুই পর্ব এবং সর্বশেষ ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালে উপর্যুপরি হারের পর নিজেদের অসহায়ত্ব স্বীকার করেছেন আবাহনীর ম্যানেজার কাজী নজরুল ইসলাম, ‘কী বলব বলেন, আমাদের দলের সামর্থ্যটাই এমন। ওদের বিদেশিদের দেখুন কী সুন্দর ফুটবল খেলছে। আর আমাদের বিদেশিরা কিছুই করতে পারছে না। মাঠের পার্থক্যটা স্পষ্ট হয়েছে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত