শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি বেড়ে সাড়ে ২৬ হাজার কোটি

আপডেট : ১১ জুন ২০২৪, ০২:৩৫ এএম

উচ্চ খেলাপি ঋণের ভারে খুড়িয়ে চলছে দেশের ব্যাংক খাত। আর এই খেলাপির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে প্রভিশন ঘাটতিও। ভালো এবং মন্দ ঋণের বিপরীতে পর্যাপ্ত পরিমাণ প্রভিশন তথা নিরাপত্তা সঞ্চিতি রাখতে হয় ব্যাংকগুলোকে। কিন্তু নিয়ম অনুযায়ী প্রভিশন রাখতে পারছে না সরকারি ও বেসরকারি খাতের কিছু ব্যাংক। ফলে ২০২৪ সালের মার্চ প্রান্তিক শেষে (জানুয়ারি-মার্চ) দেশের ব্যাংক খাতের প্রভিশন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ২৬ হাজার ৫৮৬ কোটি টাকা। তিন মাসের ব্যবধানে প্রভিশন ঘাটতি বেড়েছে ২ হাজার ৩৯৭ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

নিয়ম অনুযায়ী, ব্যাংকগুলোকে পরিচালন মুনাফার শূন্য দশমিক ৫ থেকে ৫ শতাংশ সাধারণ ক্যাটাগরির ঋণের বিপরীতে প্রভিশন হিসেবে রাখতে হয়। নিম্নমানের খেলাপি ঋণের বিপরীতে ২০ শতাংশ এবং সন্দেহজনক খেলাপি ঋণের বিপরীতে ৫০ শতাংশ প্রভিশন রাখতে হয়। এ ছাড়া প্রতিটি ব্যাংকের জন্য মন্দ বা লোকসান ক্যাটাগরির খেলাপি ঋণের বিপরীতে ১০০ ভাগ প্রভিশনিং আলাদা করে রাখার বিধান রয়েছে। প্রভিশন ঘাটতি ব্যাংকিং খাতের জন্য অশনি সংকেত, কারণ এটি ব্যাংকগুলোর দুর্বল আর্থিক অবস্থার চিত্র তুলে ধরে, যা মূলত উচ্চ খেলাপি ঋণের ফল। প্রভিশন বাড়লে ব্যাংকের নিট মুনাফা কমে যায়। ফলে শেয়ারহোল্ডাররা কম লভ্যাংশ পান।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২৪ সালের মার্চ শেষে ভালো-মন্দ মিলিয়ে ১৬ লাখ ৪০ হাজার ৮৫৫ কোটি টাকা ঋণের বিপরীতে ব্যাংকগুলোর ১ লাখ ১১ হাজার ৪৭০ কোটি টাকা প্রভিশন হিসেবে রাখার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু এই সময়ে ব্যাংকগুলো প্রভিশন হিসেবে জমা রাখতে সক্ষম হয়েছে ৮৪ হাজার ৮৮৪ কোটি টাকা। সেই হিসাবে ২০২৪ সালের মার্চ শেষে ব্যাংক খাতের প্রভিশন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ২৬ হাজার ৫৮৬ কোটি টাকা।

তথ্য বলছে, ২০২৩ সালের ডিসেম্বর শেষে ব্যাংক খাতের প্রভিশন ঘাটতি ছিল ২৪ হাজার ১৮৯ কোটি টাকা। সেই হিসাবে চলতি বছরের মার্চ প্রান্তিক ( জানুয়ারি-মার্চ) এই তিন মাসে প্রভিশন ঘাটতি বেড়েছে ২ হাজার ৩৯৭ কোটি টাকা।

ঋণ জালিয়াতি এবং অব্যবস্থাপনাসহ নানা অনিয়মের কারণে ব্যাংক খাতের খেলাপি ঋণ লাফিয়ে বাড়ছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, ২০২৪ সালের মার্চ মাস শেষে ব্যাংকিং খাতের মোট বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৬ লাখ ৪০ হাজার ৮৫৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপিতে পরিণত হয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ২৯৫ কোটি টাকা, যা মোট বিতরণ করা ঋণের ১১ দশমিক ১১ শতাংশ। আর ২০২৩ সালের ডিসেম্বর শেষে দেশের ব্যাংকগুলোর মোট বিতরণকৃত ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছিল ১৬ লাখ ১৭ হাজার ৬৮৯ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপিতে পরিণত হয়েছিল ১ লাখ ৪৫ হাজার ৬৩৩ কোটি টাকা, যা মোট বিতরণ করা ঋণের ৯ শতাংশ। তিন মাসের ব্যবধানে ব্যাংক খাতের খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৩৬ হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা বা ২৫ দশমিক ১৭ শতাংশ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, এখন ব্যাংকের যে অবস্থা তাতে প্রভিশন ঘাটতি হবে। কারণ দিন দিন তো খেলাপি ঋণ বাড়ছে। তারপরও সম্প্রতি খেলাপি ঋণ অনেক বেড়ে গেছে। বিশেষ করে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে বেশি বেড়েছে। তাই প্রভিশন ঘাটতি বাড়বে। এখানে শতভাগ প্রভিশন রাখা দরকার। এখানে একটার সঙ্গে আরেকটা জড়িত। এভাবে প্রভিশন বাড়তে থাকলে ব্যাংকগুলো দুর্বল হয়ে যাবে। ক্যামেলস রেটিংয়ে র‌্যাঙ্ক কমে যাবে। প্রভিশন ঘাটতি কমাতে হলে আগে খেলাপি ঋণ কমাতে হবে। ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে যাছাই-বাছাই করে দিতে হবে, যাতে টাকাগুলো আবার ফেরত আসে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত