শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

এক সপ্তাহে ৫ মৃত্যু, আতঙ্কিত গ্রামবাসী

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯:৩৭ পিএম

রাজশাহীর তানোর উপজেলার বহরইল গ্রামে একের পর এক মৃত্যুতে ভীতি তৈরি হয়েছে স্থানীয় লোকজনের মনে। গত এক সপ্তাহে এখানে নারী শিশু মিলিয়ে পাঁচজন মারা গেছে।

এসব মৃত্যু নিয়ে পুরো গ্রামজুড়েই ভয় ছড়িয়েছে। আশপাশের  গ্রামগুলোতেও এ নিয়ে চলছে আলোচনা। একই গ্রামে পর পর এই মারা যাওয়ার ঘটনাকে কেউ কেউ একে অজ্ঞাত রোগে মৃত্যু বলছে। কেউ বা আবার এটিকে বলছেন জিনের কারবার।

রাজশাহী জেলার সিভিল সার্জনসহ স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, এই গ্রামে গত কয়েক দিনে যেসব মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে সেগুলোর কোনটিই অস্বাভাবিক মৃত্যু নয়।  হৃদ্‌রোগ, ঠাণ্ডাজনিত, বার্ধক্যজনিত রোগে তাদের মৃত্যু হয়েছে। এরপরও বিষয়টি নিয়ে তদন্তে এলাকায় আসছে রোগতত্ত্ব, নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) একটি প্রতিনিধি দল।

ঘটনার শুরু গত ২৬ জানুয়ারি। ওই দিন রাতে তানোর উপজেলার বাধাইড় ইউনিয়নের বহরইল ভান্ডাইল গ্রামের মারা যান নুরি বিবি নামের এক বৃদ্ধা। একই রাতে ওই গ্রামে মারা যান জনাব আলী (৪৫) নামের আরেক ব্যক্তি। পরদিন সকালে একই গ্রামের রুবেল নামের এক ব্যক্তির চার দিনের শিশু সন্তানের মৃত্যু হয়। ২৮ জানুয়ারি জমিতে কাজ করতে গিয়ে ওই গ্রামের সমশের আলী (৬৫) নামে আরেকজনের মৃত্যু হয়। শুক্রবার রাতে বহরইল গ্রামে রাহেলা বেগম (৪৮) নামে আরেক নারীর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাতে নিজ বাড়িতে তিনি মারা যায়।

বাধাইড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেশ রূপান্তরকে বলেন, মানুষ যাতে ভীতি না হয়ে পড়ে সে বিষয়ে তারা কাজ করছে। সাধারণ মানুষকে সচেতন করে তোলার কাজ চলছে।

বহরইল গ্রামে এই পাঁচজন মারা যাওয়ার ঘটনাকে স্বাভাবিক মৃত্যু বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এক সপ্তাহ ধরেই ওই গ্রামে কাজ করছে স্বাস্থ্য বিভাগ। তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিএইচও ডা. রোজিয়ারা বেগম জানান, ডা. রোজিয়ার বেগম দেশ রূপান্তরকে জানান, ওই গ্রামের পাঁচজনের মৃত্যুরই নির্দিষ্ট কারণ রয়েছে। অজ্ঞাত রোগে কেউ মারা যায়নি।

রাজশাহীর সিভিল সার্জন সঞ্জিত কুমার সাহা নিজেও এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তিনি দেশ রূপান্তরকে জানান, ওই গ্রামে যাদের মৃত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে শীতজনিত, ডায়াবেটিক, বার্ধক্য জনিত অসুস্থতা, হার্ট এটাকে মারা যাওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে। চার দিন বয়সের যে শিশুটি মারা গেছে তার ওজন অস্বাভাবিক কম ছিল। স্থানীয়দের ভীতি না হওয়ার জন্য আমরা বলেছি, পরামর্শ দিচ্ছি। অসুস্থদের চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত