সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে বিএনপি-গণফোরাম প্রার্থীর মামলা

আপডেট : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০২:৩৯ এএম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ করে ‘ব্যাপক কারচুপির’ অভিযোগ এনে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করেছেন বিএনপির সাত ও গণফোরামের প্রার্থীরা। হাইকোর্টে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে গত মঙ্গলবার ও গতকাল বুধবার মামলা করেছেন তারা। আগামী কয়েক দিনে দেশের প্রতিটি জেলার অন্তত একজন করে পরাজিত প্রার্থী মামলা করবেন বলে জানা গেছে। গতকাল রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার দেশ রূপান্তরকে বলেন দলের হাইকমান্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হাইকোর্টের নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করা হয়েছে। আগামীকালও (আজ) কয়েকটি মামলা হবে।

বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় প্রার্থীদের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল জানিয়েছেন, গতকাল বরিশাল-১ আসনের জহির উদ্দিন স্বপন, গাজীপুর-৪ আসনের শাহ রিয়াজুল হান্নান, মৌলভীবাজার-৩ আসনের নাসের রহমান, মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের আবদুল হাই এবং ভোলা-২ আসনের হাফিজ ইব্রাহিম মামলা করেছেন। গত মঙ্গলবার মামলা করেন ঝিনাইদহ-৪ আসনের সাইফুল ইসলাম ফিরোজ ও টাঙ্গাইল-৭ আসনের আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী।

বিএনপি ও গণফোরাম এবার জোটবদ্ধ হয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে সংসদ নির্বাচন করে। জোটের শীর্ষ নেতা ও গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি আইনজীবী সুব্রত চৌধুরী দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘আমি নিজেই প্রথম মামলাটি করেছি। শুনেছি এখন পর্যন্ত অনেকে মামলা করেছেন। একেক জনের পক্ষে একেক আইনজীবী ফাইল করছেন। আরও বেশকিছু আবেদনের নথিপত্র প্রক্রিয়াধীন আছে। তারাও দু-একদিনের মধ্যে মামলা করবেন।’

বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন, গত ৯ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করার সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি। দলের স্থায়ী কমিটির কয়েকজন সদস্য মামলা না করার বিষয়ে অবস্থান নিলেও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান তা আমলে নেননি। ইতোমধ্যে এসব মামলা দেখভালের জন্য দলের হাইকমান্ড একটি আইনজীবী প্যানেল করেছে। ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস ছাড়া ওই দলে আছেন ব্যারিস্টার আমিনুল হক, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, নিতাই রায় চৌধুরী, মীর নাসিরুদ্দিন, ফজলুর রহমান ও ব্যারিস্টার রাজিব প্রধান।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে নির্বাচনের ৪৫ দিনের মধ্যে মামলা করার নিয়ম রয়েছে। সে হিসেবে গতকাল ছিল মামলা করার শেষ দিন। তবে বিএনপিপন্থি একজন আইনজীবী জানিয়েছেন, ‘এটা অলঙ্ঘনীয় বিধান নয়, মামলা করতে দেরি করার যৌক্তিক কারণ দেখাতে পারলে আদালত তা আমলে নেবে আশা করি।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত