বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

জাতীয় প্রেস ক্লাবে রব

সিরাজুল আলম খান স্বাধীনতার মূল পরিকল্পনাকারী

আপডেট : ০২ মার্চ ২০১৯, ০৩:১৬ এএম

জাসদের তাত্ত্বিক গুরু সিরাজুল আলম খানই বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ‘মূল পরিকল্পনাকারী’ ছিলেন বলে দাবি করেছেন জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব। ২ মার্চ ‘স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তোলন দিবস’ উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় বঙ্গবন্ধুর আরেক ঘনিষ্ঠ ছাত্রলীগ নেতা ড. কামাল হোসেনের উপস্থিতিতে এই দাবি করেন তিনি। দিনটির স্মৃতিচারণ করে জেএসডি সভাপতি রব বলেন, ‘একাত্তর সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। তার ১০ বছর পূর্বে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য নিরপেক্ষ বিপ্লবী স্বাধীন বাংলা পরিষদ কে গঠন করেছিলেন? ২ মার্চ পতাকা আমি তুলেছি, ৩ মার্চ স্বাধীনতার ইশতেহার শাহজাহান সিরাজ পাঠ করেছেন, ৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বক্তৃতা দিয়েছেন, ২৫ মার্চ রাত থেকে শুরু করে ৯ মাসে আমাদের লাখ লাখ বাঙালি সৈনিক, ছাত্র-যুবক-শ্রমিক-কৃষক-জনতা প্রাণ দিয়েছেন। এর মূল পরিকল্পনাকারী কে? সেই ব্যক্তির নাম আমরা অনেকে জানি না। তার নাম হলো সিরাজুল আলম খান।’

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে আন্দোলন-সংগ্রাম পরিচালনায় তৎকালীন ছাত্রলীগ নেতা সিরাজুল আলম খান, আবদুর রাজ্জাক ও কাজী আরেফ আহমেদের নেতৃত্বে ষাটের দশকের প্রথমার্ধে স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদ বা স্বাধীনতার নিউক্লিয়াস গঠিত হয়। পরবর্তী সময়ে ছাত্র-তরুণদের আন্দোলন সংগঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন তারা। বঙ্গবন্ধুরও ঘনিষ্ঠ সাহচর্যে ছিলেন এই ছাত্রনেতারা। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরপরই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনির সঙ্গে বিরোধের জের ধরে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ভেঙে দুই ভাগ হয়। এরপর ১৯৭২ সালে সিরাজুল আলম খানের নেতৃত্বে রাজনৈতিক দল জাসদ প্রতিষ্ঠা হয়। জাসদের প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারণ সম্পাদক ছিলেন রব।

সিরাজুল আলম খান কখনই রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বে না এলেও জাসদ নেতাদের পরামর্শক ও তাদের ‘তাত্ত্বিক গুরু’ হিসেবে পরিচিতি পান তিনি। ৭৮ বছর বয়সী সিরাজুল আলম খান এখন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী।

সরকারের সমালোচনা করে রব আরও বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ পথে এই সরকার যাবে না। সোজা আঙুলে ঘি ওঠে না, স্বৈরাচার-ফ্যাসিবাদ যায় না, তারা লজ্জা পায় না। তাকে বিদায় করতে হবে। জাতি ঐক্যবদ্ধভাবে যেভাবে পাকিস্তানি হানাদারদের বিদায় করেছে আজও এই স্বৈরাচার-ফ্যাসিবাদ সিভিল ডিক্টেটরকে সেভাবেই বিদায় করতে হবে।’

সভায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল বলেন, ভুল কথা বলে অসত্যের ওপর ভর করে দেশ পরিচালনা করা যাবে না। তিনি বলেন, ‘যখন আমি দেখি, মানুষ কিছুটা অসহায় বোধ করছে। কেন বোধ করছে? সরকার তাদের মালিক হিসেবে যেটা শ্রদ্ধা করার কথা, তাদের জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকার কথাÑএটা করছে না। জনগণ যেটা বলছে তার উল্টোটা তারা করছে।’

জেএসডির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি এম এ গোফরানের সভাপতিত্বে ও প্রেসিডিয়াম সদস্য শহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের মোস্তফা মহসিন মন্টু, বিএনপির আবদুস সালাম, জেএসডির আবদুল মালেক রতন, সিরাজ মিয়া, মোশাররফ হোসেন, বিকল্পধারার শাহ আহমেদ বাদল প্রমুখ। সভায় রবের স্ত্রী তানিয়া রবসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত