মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সপ্তাহ পেরোলেও উদ্ধার হয়নি সিসিটিভি ফুটেজ!

আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০১:৫৯ এএম

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে প্রথম বর্ষের ছাত্রীকে নির্যাতনের পর বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের ঘটনার এক সপ্তাহ পার হয়েছে। কিন্তু এখনো ওই ঘটনাসংশ্লিষ্ট সিসিটিভি ফুটেজ উদ্ধার করতে পারেনি হল

কর্র্তৃপক্ষ। মনিটর সচল থাকলেও বায়োসের ব্যাটারি নষ্ট বলে জানা গেছে। এতে ফুটেজ সংগ্রহ নিয়ে ধোঁয়াশার সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব টেকনিশিয়ান দিয়ে এ ফুটেজ উদ্ধার সম্ভব নয় বলে দেশ রূপান্তরকে জানিয়েছেন আইসিটি সেলের পরিচালক অধ্যাপক ড. আহসানুল আম্বিয়া।

তিনি বলেন, ‘ঘটনার পরে হল কর্র্তৃপক্ষ সিসিটিভি ফুটেজ উদ্ধারের জন্য আমাদের শরণাপন্ন হয়। তাৎক্ষণিক আমরা দুজন টেকনিশিয়ান পাঠাই। কিন্তু তারা ফুটেজ উদ্ধারে ব্যর্থ হয়। মূলত বায়োসের ব্যাটারি নষ্ট হওয়ার কারণে সেটি সম্ভব হচ্ছে না। বাইরে থেকে টেকনিশিয়ার আনলে হয়তো এটি সম্ভব হবে। তবে হল কর্র্তৃপক্ষ আমাকে এখনো বাইরে থেকে টেকনিশিয়ান আনার বিষয়ে কিছু জানায়নি।’

এ বিষয়ে হলটির প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. শামসুল আলম দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘হলের প্রধান ফটক, অফিস ও করিডরসহ ১২টি জায়গায় সিসি ক্যামেরা লাগানো আছে। টেকনিক্যাল ত্রুটির কারণে আমরা এখনো ফুটেজ সংগ্রহ করতে পারিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেলকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। তারাও উদ্ধার করতে ব্যর্থ হয়েছে। আমরা বাইরে থেকে টেকনিশিয়ান আনার ব্যবস্থা করছি।’ কতদিনের মধ্যে সিসিটিভি ফুটেজ উদ্ধার সম্ভব হতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘খুব দ্রুতই আমরা এ কাজটি করব।’

হলে ৭ ঘণ্টা ধরে অবস্থান তদন্ত কমিটির : ছাত্রী নির্যাতনের ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে ৭ ঘণ্টা অবস্থান করেছে তদন্ত কমিটি। হাইকোর্টের নির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটি, বিশ্ববিদ্যালয়ের তদন্ত কমিটি এবং হল কর্র্তৃপক্ষ গঠিত তদন্ত কমিটি গতকাল সকাল ১০টার দিকে হলে ঢোকে। পরে বিকেল ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের তদন্ত কমিটি ও হলের তদন্ত কমিটি বের হয়। হলের সংশ্লিষ্ট ছাত্রীদের এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন সহকারী প্রক্টরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্ত কমিটির সদস্যরা।

হলটির শাখা কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যরা সকাল ১০টার পর হলে প্রবেশ করেন। তারা হল প্রভোস্টের কক্ষে বসে কয়েকজন আবাসিক শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলেন। বেলা ১১টার দিকে দেশরতœ শেখ হাসিনা হলে প্রবেশ করেন হাইকোর্টের নির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যরা। তারাও প্রভোস্টের কার্যালয়ে অবস্থান করে। হলের ছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলেন। তবে কতজন ছাত্রীর সঙ্গে কথা বলেছে এটা আমি জানি না।’

এ বিষয়ে সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক ড. আমজাদ হোসেন দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ঘটনার বিষয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি আমার কাছে জানতে চায়। আমি যা জানি তা তাদের কাছে বলেছি।’

তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. রেবা ম-ল বলেন, ‘আমি তদন্তের স্বার্থে আজও দেশরতœ শেখ হাসিনা হলের মেয়েদের সঙ্গে কথা বলেছি। বিষয়টি আমরা গভীরভাবে পর্যালোচনা ও ক্রস চেকিং করছি। তদন্তের স্বার্থে আর কিছু বলতে চাই না।’

এর আগে ১২ ফেব্রুয়ারি রাতে দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের গণরুমে তাকে সাড়ে চার ঘণ্টা আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ করেন ফিন্যান্স বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ফুলপরী খাতুন। তার ভাষ্য অনুযায়ী, ইবি শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সানজিদা চৌধুরী ও তার অনুসারীরা নির্যাতন চালিয়েছেন। নির্যাতনের সময় তাকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, গালাগাল এবং এ ঘটনা কাউকে জানালে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, হলের প্রাধ্যক্ষ ও ছাত্র উপদেষ্টার কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত