শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কেজরিওয়ালকে গ্রেপ্তারে ইনডিয়া জোটের বিক্ষোভ

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০৪ এএম

ভারতের দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে গতকাল রবিবার রাজধানীর ঐতিহাসিক রামলীলা ময়দানে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে বিরোধীদের জোট ‘ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইনক্লুসিভ অ্যালায়েন্স (ইনডিয়া)’ জোটভুক্ত দলগুলো। এ সময় ঝাড়খন্ডের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনের গ্রেপ্তার নিয়েও সরব হন নেতারা। কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস, আম আদমি পার্টি (আপ) এবং অন্যান্য বিজেপিবিরোধী দল এই সভায় যোগ দেয়। আসন্ন লোকসভা ভোটের আগে বিরোধী নেতারা  ‘স্বচ্ছ এবং অবাধ’ নির্বাচন আয়োজনসহ পাঁচ দফা দাবি পেশ করেন।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী গতকাল দিল্লির রামলীলা ময়দানে ‘গণতন্ত্র বাঁচাও’ কর্মসূচির ডাক দেয় ইনডিয়া। এ সময় বিজেপির বিরুদ্ধে সুষ্ঠু নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় ‘বাধা’ দেওয়ার অভিযোগ তোলেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। দেশের সব রাজনৈতিক দল যাতে নির্বাচনে সমান সুযোগ-সুবিধা পায়, সেই জন্য বিরোধী জোটের তরফে কমিশনের কাছে পাঁচ দফা দাবি জানান তিনি।

প্রিয়াঙ্কা বলেন, লোকসভা ভোট শাসক কিংবা বিরোধী, সব দলের জন্য সমান সুযোগ-সুবিধা থাকার বিষয়টি সুনিশ্চিত করুক নির্বাচন কমিশন। এর পাশাপাশি নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের উদ্দেশে আয়কর দপ্তর, এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) এবং কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা (সিবিআই) যাতে বিরোধীদের প্রতি দমনমূলক পদক্ষেপ নিতে না পারে, সেদিকে নজর দিতে হবে কমিশনকে।

বিরোধী জোটের তরফে ঝাড়খন্ডের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ঝাড়খন্ড মুক্তি মোর্চার (জেএমএম) নেতা হেমন্ত সোরেন এবং দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী আপপ্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে। বিরোধী দলগুলোকে অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু করার চেষ্টা হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার এক হাজার ৮০০ কোটি রুপি চেয়ে আয়কর দপ্তর নোটিস পাঠিয়েছিল রাহুল গান্ধী ও দলের সর্বভারতীয় প্রধান মল্লিকার্জুন খাড়গের কাছে। এর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গত শনিবার আরও তিনটি নোটিস দেওয়া হয়েছে কংগ্রেসকে। তবে প্রিয়াঙ্কা নির্দিষ্টভাবে কোনো দল কিংবা ঘটনার কথা উল্লেখ করেননি।

পাঁচ দাবির মধ্যে এসেছে নির্বাচনী বন্ডের প্রসঙ্গও। বিজেপির বিরুদ্ধে নির্বাচনী বন্ডের মাধ্যমে পাওয়া চাঁদার বিনিময়ে জুলুমবাজির অভিযোগ তুলেছেন বিরোধীরা।

গতকালের কর্মসূচিতে দেখা গেছে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী, কংগ্রেসের সাবেক সভাপতি সোনিয়া গান্ধী এবং দলটির সর্বভারতীয় সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে, ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির- মার্কসবাদীর (সিপিআইএম) সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি, তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্যসভার এমপি ডেরেক ও’ব্রায়েন, ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টির (এনসিপি) শারদ পাওয়ার, আপ নেতা পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ভগবন্ত মনসহ আরও অন্যান্য দলের নেতারা। এ সময় মঞ্চে ছিলেন কেজরিওয়ালের স্ত্রী সুনিত্রা কেজরিওয়াল এবং হেমন্ত সোরেনের স্ত্রী কল্পনা সোরেন। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত