বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

পাকিস্তানে বেড়েছে গাধার সংখ্যা

  • ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে দেশটিতে গাধার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৯ লাখে
  • গৃহপালিত পশুপাখির ওপর পাকিস্তানের অর্থনীতি বেশীরভাগ নির্ভরশীল
আপডেট : ১২ জুন ২০২৪, ০১:২৮ পিএম

পাকিস্তানে গত কয়েক বছরে ধারাবাহিকভাবে বেড়েছে গাধার সংখ্যা। ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে দেশটিতে গাধার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৯ লাখে।

গতকাল মঙ্গলবার পাকিস্তান অর্থনৈতিক জরিপ (পিইএস) ২০২৩-২৪ প্রতিবেদনে গাধার জনসংখ্যার সর্বশেষ পরিসংখ্যান প্রকাশ করা হয়। সেখানে এ তথ্য উঠে আসে।

বুধবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে পাকিস্তানি গণমাধ্যম জিও নিউজ।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, গত কয়েক বছর ধরেই পাকিস্তানে মালামাল বোঝাইয়ের কাছে ব্যবহৃত এ পশুর সংখ্যা বেড়ে চলছে। যেখানে ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৫৫ লাখ, ২০২০-২১ অর্থবছরে ৫৬ লাখ, ২০২১-২২ অর্থবছরে ৫৭ লাখ, ২০২২-২৩ অর্থবছরে গাধা ছিল ৫৮ লাখ— সেটি গত বছর বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৯ লাখে। অর্থাৎ গত এক বছরে দেশটিতে গাধা বেড়েছে ১ লাখ।

অন্যদিকে দেশটির অর্থমন্ত্রী মোহাম্মদ আওরেঙ্গজেব গৃহপালিত পশুর বর্তমান সংখ্যাও প্রকাশ করেছেন। তিনি জানিয়েছেন পাকিস্তানে গরুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ কোটি ৭৫ লাখে। অপরদিকে মহিষের সংখ্যা বেড়ে ৪ কোটি ৬৩ লাখ, ভেড়ার সংখ্যা ৩ কোটি ২৭ লাখ এবং ছাগলের সংখ্যা ৮ কোটি ৭০ লাখে দাঁড়িয়েছে।

তবে গত পাঁচ বছরে দেশটিতে ঘোড়া এবং ঘোড়া-গাধার সংকর জাতের সংখ্যা বাড়েনি। এমনকি গত চার বছর ধরে একই জায়গায় রয়েছে উটের সংখ্যা।

গৃহপালিত পশুপাখির ওপর পাকিস্তানের অর্থনীতি অনেকটাই নির্ভরশীল। এই গৃহপালিত পশু উৎপাদনের সঙ্গে ৮০ লাখ প্রান্তিক পরিবার জড়িত রয়েছে।

আর তাই বর্তমান সরকার দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, খাদ্য নিরাপত্তা এবং দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য এই খাতের উন্নয়নে মনোযোগ দিয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত