সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ইতালিকে দাঁড়াতেই দেয়নি স্পেন

আপডেট : ২২ জুন ২০২৪, ১২:১৮ এএম

ইউরোর মরণ গ্রুপ ‘বি’-এর হাইভোল্টেজ ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ইতালির মুখোমুখি হয়েছিল স্পেন। গত ইউরোয় সেমিফাইনালে টাইব্রেকারে আজ্জুরিদের কাছে হেরে বাদ পড়ার প্রতিশোধ ঠিকই নিয়েছে স্প্যানিশরা। ১-০ স্কোরলাইন দেখে ঠিকমতো বোঝা যাবে না কতটা দাপট দেখিয়েছেন মোরাতা-ইয়ামালরা। তবে প্রথম ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে দেখানো ছন্দ অব্যাহত রেখে ইতালির নাভিশ্বাস ছুটিয়ে শেষ ষোলোয় জায়গা করে নিয়েছে স্পেন।

জার্মানির পশ্চিমের শহর গেলসেনকির্চেনে বৃহস্পতিবার রাতে ম্যাচের একমাত্র গোলটি হয়েছে আত্মঘাতি। ইতালির রিকার্দো কালাফিওরির ওই গোলেই মীমাংসা হয় খেলার। প্রায় পুরোটা ম্যাচেই রক্ষণে ব্যস্ত সময় কাটাতে হয় ইতালিকে। ৫৫ শতাংশের বেশি সময় বল দখলে রাখা স্পেন ২০ শটের ৯টি ছিল লক্ষ্যে। অন্যদিকে ইতালি গোলমুখে শটই নিতে পারে মাত্র চারটি। দুই ম্যাচে দুই জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের শীর্ষে স্পেন। ৩ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে ইতালি। আলবেনিয়া ও ক্রোয়েশিয়ার পয়েন্ট ১ করে।

একের পর এক স্প্যানিশ আক্রমণে বিপর্যস্ত ইতালি ৫৫তম মিনিটে আত্মঘাতী গোল দেয়। বাঁ দিক থেকে উইলিয়ামসের ক্রসে হেড করেন মোরাতা। জিয়ানলুইজ দোন্নারুমা ঝাঁপিয়ে ঠেকানোর পর দূরের পোস্টে ছুটে আসা ডিফেন্ডার কালাফিওরির পায়ে লেগে বল চলে যায় জালে। ইতালির এই গোলরক্ষকের একক নৈপূণ্যে ম্যাচের ব্যবধান বাড়েনি। তা না হলে স্কোরলাইনটা আরও বড় হতে পারত।

স্পেনের দুর্দান্ত ফুটবলে মুগ্ধ হয়েছেন ইতালি কোচ লুসিয়ানো স্পালেত্তি। বলেন, ‘এক গোলের ব্যবধান ছাড়িয়েও এই ফলাফল তাদের প্রাপ্য ছিল। এই জয় তাদের প্রাপ্য, আমরা কখনোই ম্যাচে ছিলাম না। যে স্কোরলাইন দেখাচ্ছে, তার চেয়ে বেশি সমস্যা তৈরি করেছিল তারা। ঘুরিয়ে-পেঁচিয়ে বলার কিছু নেই। স্পেন একটা দল হিসেবে খেলেছিল যা আমরা পারিনি। স্পেন যেভাবে খেলে সেটা সবাই অনুকরণ করতে চাইবে। তারা দীর্ঘদিন ধরে সেরা ফুটবল খেলছে।’

প্রশংসা পেলেও সতর্ক স্প্যানিশ কোচ লুইস দে লা ফুয়েন্তে, ‘এখনো আমরা কিছুই অর্জন করতে পারিনি। ঠিক আছে, আমরা কিছু গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ জিতেছি। আমাদের চমৎকার সম্ভাবনা আছে। কিন্তু ফুটবল খুব নিষ্ঠুরও হতে পারে। তাই আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। আমাদের বিনয়ী হতে হবে। আমাদের (প্রতিপক্ষকে) সম্মান দেখাতে হবে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত