বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কুমিল্লায় ‘ভুল’ চিকিৎসায় ছাত্রীর মৃত্যুর অভিযোগ

আপডেট : ২৫ জুন ২০২৪, ০১:৪৮ এএম

কুমিল্লায় ভুল চিকিৎসায় মীম আকতার (১৫) নামে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। গত রবিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে কুমিল্লা নগরীর হেলথ অ্যান্ড ডক্টরস জেনারেল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে।

স্বজনদের অভিযোগ, অপারেশন থিয়েটারে অতিরিক্ত অ্যানেসথেসিয়াব দেওয়ায় হার্ট ব্লক হয়ে মীমের মৃত্যু হয়েছে। মীম আকতার কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার অলুয়া কৃষ্ণপুর এলাকার মো. বিল্লাল হোসেনের মেয়ে ও কংসনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, কোরবানি ঈদের আগে গলায় টনসিলের ব্যথার জন্য মীমকে ফেইথ মেডিকেল সার্ভিসেস অ্যান্ড ফিজিওথেরাপি সেন্টারে নাক, কান ও গলা বিশেষজ্ঞ সার্জন মো. জহিরুল হককে দেখানো হয়। পরে চিকিৎসক কিছু পরীক্ষা দেন। রিপোর্ট দেখার পর পরামর্শ দেন অপারেশনের। কুমিল্লা নগরীর হেলথ অ্যান্ড ডক্টরস জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হতে বলেন।

সে অনুযায়ী রবিবার রাতে মীমকে ফেইথ মেডিকেল সার্ভিসেস অ্যান্ড ফিজিওথেরাপি সেন্টারে আনা হয়। সেখান থেকে রাতে কুমিল্লা নগরীর হেলথ অ্যান্ড ডক্টরস জেনারেল হাসপাতালে অপারেশন থিয়েটারে ঢুকিয়ে অ্যানেসথেসিয়া দেওয়ার পরই মীমের শারীরিক অবস্থা খারাপের দিকে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর চিকিৎসক জহিরুল বের হয়ে বলেন, মীম হার্ট অ্যাটাক করেছে। দ্রুত কুমিল্লা সদর হাসপাতালে নিতে হবে। কিন্তু হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়।

মীমের চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা ডা. জহিরুল এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘নিয়ম মেনে আমরা মীমকে অ্যানেসথেসিয়া দিয়েছি, অ্যানেসথেসিয়া দেওয়ার পরপরই তার অবস্থার অবনতি হতে থাকে। এখানে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বা আমাদের কোনো গাফিলতি নেই।

মীমের মা লিপি আক্তার অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার মেয়ে সুস্থ ছিল। গলায় ছোট একটা টনসিল হয়েছিল। অপারেশন থিয়েটারে ঢুকিয়ে ১০ মিনিটের মধ্যে জহির ডাক্তার বের হয়ে বলে মীম হার্ট অ্যাটাক করেছে। পরে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত