রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

অ্যালেক্সি নাভালনির স্ত্রী কে এই ইউলিয়া?

আপডেট : ১০ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪২ পিএম

রাশিয়ার সদ্যপ্রয়াত সরকারবিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনির স্ত্রী ইউলিয়া নাভালনায়াকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন মস্কোর একটি আদালত। একটি চরমপন্থী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে গতকাল মঙ্গলবার তাকে দুই মাসের জন্য আটকের নির্দেশ দেওয়া হয়।

ইউলিয়া বর্তমানে রাশিয়ার বাইরে আছেন। দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, দুই সন্তানের সঙ্গে অজ্ঞাত স্থানে রয়েছেন তিনি। তার অনুপস্থিতিতেই আদালত তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন। রাশিয়ার মাটিতে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গে ইউলিয়াকে গ্রেপ্তার করা হবে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো।

স্বামী রাজনীতিক ও পুতিন সমালোচক হিসেবে পরিচিত পেলেও প্রচারের আলোয় ছিলেন না ইউলিয়া

ইউলিয়ার জন্ম মস্কোয়। ১৯৭৬  সালের ২৪ জুন। তার বাবা বরিস অ্যাব্রোসিমভ ছিলেন একজন বিজ্ঞানী। মা সরকারি চাকরি করতেন। প্লেখানভ রাশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব ইকোনমিক্সের স্নাতক তিনি। একসময় মস্কোর একটি ব্যাংকে অল্প সময়ের জন্য কাজও করেছেন।

১৯৯৮ সালে তুরস্কে ছুটিতে গিয়েছিলেন ইউলিয়া। সে সময় অ্যালেক্সি নাভালনির সঙ্গে তার পরিচয়। দুই বছর পর তারা বিয়ে করেন। তাদের প্রথম সন্তান দাশা ২০০১ সালে জন্মগ্রহণ করে। দ্বিতীয় সন্তান জাখার হয় ২০০৮ সালে। এই দম্পতি উদারপন্থী ইয়াবলোকো পার্টির সদস্য ছিলেন।

পরিবারের সঙ্গে ইউলিয়া নাভালনায়া

স্বামী রাজনীতিক ও পুতিন সমালোচক হিসেবে পরিচিত পেলেও প্রচারের আলোয় কখনো দেখা যায়নি ইউলিয়াকে। কিন্তু গত ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়ার সাইবেরিয়া অঞ্চলের কারা কলোনিতে মারা যান অ্যালেক্সি। কারাগারে স্বামীর মৃত্যুর পর বিচারের দাবিতে সরব হন ইউলিয়া। এখন তার বয়স ৪৭ বছর।

স্বামীর মৃত্যুর পর ভ্লাদিমির পুতিন সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে নেওয়ার এবং ভবিষ্যতে সুন্দর এক রাশিয়া গড়ার স্বপ্ন পূরণে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন ইউলিয়া। গতকাল আদালতের নির্দেশ আসার পর মাইক্রো ব্লগিং সাইট এক্সে নিজের সমর্থকদের বার্তা দেন ইউলিয়া।

ইউলিয়া প্লেখানভ রাশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব ইকোনমিক্সের স্নাতক

সেখানে তিনি সমর্থকদের শুধু তার বিরুদ্ধে দেওয়া আদালতের নির্দেশের দিকে মনোযোগ না দিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিরুদ্ধে লড়াইতেও মনোযোগ দিতে বলেছেন। ইউলিয়া লেখেন, ‘যখন আপনি এটা নিয়ে লিখবেন, দয়া করে মূল বিষয়টি নিয়েও লিখতে ভুলবেন না— ভ্লাদিমির পুতিন একজন খুনি এবং একজন যুদ্ধাপরাধী।

তিনি আরও লেখেন, ‘তার (পুতিন) জায়গা কারাগারে এবং সেটা হেগের কোথাও আরামদায়ক কোনো কারাকক্ষে টিভি দেখতে দেখতে নয়, বরং রাশিয়ায়— ঠিক ওই কারা কলোনিতে, দুই বাই তিন মিটারের ওই কারাকক্ষে, যেখানে তিনি অ্যালেক্সিকে হত্যা করেছেন।’ 

এই দম্পতি উদারপন্থী ইয়াবলোকো পার্টির সদস্য ছিলেন

নাভালনায়া তার প্রয়াত স্বামীর আস্থাভাজন ছিলেন। অ্যালেক্সি তার রাজনৈতিক প্রচারণা এবং আন্দোলনের বিষয়ে নিয়মিত তার সাথে পরামর্শ করতেন। গত ফেব্রুয়ারি মাসে হঠাৎ কারাবন্দী অবস্থায় অ্যালেক্সির মৃত্যুর খবর পান তিনি। কারাগার থেকে দেওয়া সনদে তার স্বাভাবিক মৃত্যু হওয়ার কথা বলা হলেও ইউলিয়ার দাবি, পুতিনের নির্দেশে তার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে।

গত মার্চে স্বামীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারেননি তিনি। ক্রেমলিন থেকেও অ্যালেক্সিকে হত্যার ষড়যন্ত্র করার অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত