বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সামরিক শক্তি কার বেশি— ইরান নাকি ইসরায়েলের?

আপডেট : ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২৫ এএম

সিরিয়ায় ইরানের দূতাবাসে ইসরায়েলের হামলা এবং এর প্রতিশোধ হিসেবে ইসরায়েলে ইরানের ড্রোন ও মিসায়েল হামলা— সার্বিক পরিস্থিতিকে একটি আঞ্চলিক সংঘাতের হুমকি হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। এই দুই দেশের তিক্ত সম্পর্ক ক্রমেই বড় সামরিক সংঘাতের দিকে যাচ্ছে। ফলে, দেশ দুটির সামরিক শক্তি নিয়ে শুরু হয়েছে নানান বিশ্লেষণ ও তুলনামূলক আলোচনা।

গ্লোবাল ফায়ার পাওয়ারের তথ্য অনুযায়ী, পাওয়ার ইনডেক্সের ১৪৫টি দেশের মধ্যে ইরান রয়েছে ১৪তম অবস্থানে এবং ১৭তম অবস্থানে রয়েছে ইসরায়েল। 

ইরানের সেনাবাহিনী ও ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসে মোট ৬ লাখ ১০ হাজার নিয়মিত এবং ৩ লাখ ৫০ হাজার রিজার্ভ সেনা রয়েছে। আর ইসরায়েলের নিয়মিত সেনা সংখ্যা ১ লাখ ৭০ হাজার এবং রিজার্ভ সেনা ৪ লাখ ৬৫ হাজার। দেশটিতে ১৮ বছর বয়সী প্রত্যেক নাগরিকের সামরিক প্রশিক্ষণ নেওয়া বাধ্যতামূলক হওয়ায় তাদের রিজার্ভ সেনার সংখ্যাও বেশি।

ইরানের মোট যুদ্ধবিমান রয়েছে ৫৫১টি, যা ইসরায়েলের চেয়ে ৬১টি কম। ২৪১টি জঙ্গি বিমান নিয়ে বিশ্বে দশম অবস্থানে আছে ইসরায়েল। অন্যদিকে ১৮৭টি জঙ্গি বিমান নিয়ে ইরানের অবস্থান বিশ্বে ১৬তম। সামরিক পরিবহনের জন্য ইসরায়েলের আছে ১২টি উড়োজাহাজ। অন্যদিকে ইরানের আছে ৮৬টি।

ট্যাংক শক্তির হিসাবে ১ হাজার ৯৯৬টি ট্যাংক নিয়ে বিশ্বে ইরানের অবস্থান ১২তম এবং ১ হাজার ৩৭৯টি ট্যাংক নিয়ে ইসরায়েলের অবস্থান ১৮তম। অস্ত্রসজ্জিত যানের ক্ষেত্রেও এগিয়ে ইরান। ইরানের অস্ত্রসজ্জিত যান আছে ৬৫ হাজার ৭৬৫টি এবং ইসরায়েলের আছে ৪৩ হাজার ৪০৭টি। 

১০১টি যুদ্ধ জাহাজ নিয়ে বিশ্বে ৩৭তম অবস্থানে রয়েছে ইরান। অন্যদিকে ৬৭টি যুদ্ধজাহাজ নিয়ে ইসরায়েলের অবস্থান ৪৬তম। ইসরায়েলের ৫টি সাবমেরিনের বিপরীতে ইরানের আছে ১৯টি। সাবমেরিনের হিসাবে বিশ্বে ইসরায়েলের অবস্থান ১৯ ও ইরানের অবস্থান ৭।

এয়ারপোর্টের সংখ্যায় ইসরায়েলের চেয়ে অনেক বেশি এগিয়ে ইরান। ইরানের ৩১৯টির বিপরীতে ইসরায়েলের আছে মাত্র ৪২টি এয়ারপোর্ট। বন্দর ও টার্মিনালের সংখ্যায় প্রায় সমান দেশ দুটি। ইরানের আছে ৪টি বন্দর ও টার্মিনাল। অন্যদিকে ইসরায়েলের আছে ৫টি।

ইসরায়েল প্রাকৃতিক সম্পদ হিসেবে কোনো জ্বালানি তেল উত্তোলন করে না। যেখানে প্রতিদিন ইরান উত্তোলন করে ৩৪ লাখ ৫০ হাজার ব্যারেল। এ ক্ষেত্রে ইরানের অবস্থান নবম। ইসরায়েলের কোনো কয়লার খনি নেই। যেখানে ইরান কয়লা উত্তোলনের দিক থেকে বিশ্বে ৪৩তম। প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলনে বিশ্বে ইরানের অবস্থান তৃতীয়, যেখানে ইসরায়েলের অবস্থান ৪০তম।

ইরানের মোট জনসংখ্যা ৮ কোটি ৭৫ লাখ ৯০ হাজার ৭৩ জন, যাদের মধ্যে ৪ কোটি ১১ লাখ ৬৭ হাজার ৭১০ জন সেনা সদস্য হওয়ার উপযুক্ত। আর ইসরায়েলের মোট জনসংখ্যা ৯০ লাখ ৪৩ হাজার ৩৮৭ জন, যাদের মধ্যে ৩১ লাখ ৫৬ হাজার ১৪২ জন সেনা সদস্য হিসেবে কাজ করার জন্য উপযুক্ত।

ইরানের আয়তন ১৬ লাখ ৪৮ হাজার ১৯৫ কিলোমিটার আর ইসরায়েলের আয়তন ২১ হাজার ৯৩৭ বর্গকিলোমিটার। ইরানের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে ইরাক, তুরস্ক, আরমেনিয়া, আজারবাইজান, তুর্কমেনিস্তান, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের সঙ্গে। অপরদিকে ইসরায়েলের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে মিশর, জর্ডান, সিরিয়া ও লেবাননের।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত