মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সিয়াম কলকাতা সিআইডির কাছে, আ.লীগ নেতা আটক

আপডেট : ০৮ জুন ২০২৪, ০৩:০৩ এএম

ভারতে নৃশংসভাবে খুন হওয়া ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যা মামলার আসামি নেপালে গ্রেপ্তার হওয়া সিয়াম হোসেনকে কলকাতার সিআইডির হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। এর আগে এই ঘটনায় কলকাতায় জিহাদ হাওলাদার নামে আরও এক আসামি গ্রেপ্তার হয়েছে। এ নিয়ে কলকাতার সিআইডির কাছে এ হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত দুজন আসামি রয়েছে।

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান।

এদিকে এমপি আনার হত্যার ঘটনায় সন্দেহভাজন ঝিনাইদহ আওয়ামী লীগ নেতা কাজী কামাল আহম্মেদ বাবু ওরফে গ্যাস বাবুকে আটক করেছে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।

বৃহস্পতিবার রাতে ঝিনাইদহ শহরের আদর্শপাড়া এলাকা থেকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ডিবির একটি দল বাবুকে আটক করে। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণবিষয়ক সম্পাদক।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, কলকাতার সিআইডি এ হত্যা মামলাটি তদন্ত করেছে। তাদের কাছে দুজন আসামি আছে। একজনকে তারা নেপাল থেকে নিয়েছে। আরেকজনকে আগেই সেখানে গ্রেপ্তার করেছে। তবে নেপাল থেকে কলকাতা সিআইডি কোন আসামিকে হেফাজতে নিয়েছে তার নাম বলেনি। অবশ্য দেশের গোয়েন্দা সূত্র বলছে, নেপাল থেকে গ্রেপ্তার হওয়া আসামির নাম সিয়াম।

আনার হত্যার বিচার কোন দেশে হবে, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে কমিশনার আরও বলেন, ‘যেখানে ঘটনা ঘটে, সেখানেই তদন্ত হয়। এটি একটি সেট রুল। কিন্তু আমাদের বাংলাদেশের আইনেও বলা আছে, বিদেশে যদি কেউ অপরাধ করে থাকে, সে ক্ষেত্রে সেই অপরাধীকে আমরা বাংলাদেশে এনে বিচার করতে পারি। আমরাও তদন্ত করছি, তারাও (কলকাতা) তদন্ত করছে। যেকোনো জায়গায় এ বিচারটি হতে পারে।’

সংসদ সদস্য আনার হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত দুই দেশ মিলিয়ে মোট পাঁচজন আসামি গ্রেপ্তার আছে। এর মধ্যে তিনজন বাংলাদেশে। বাকি দুজন কলকাতায়। বাংলাদেশে গ্রেপ্তার হওয়া আসামিরা হলেন আমানুল্লাহ ওরফে শিমুল ভূঁইয়া, তানভীর ভূঁইয়া ও শিলাস্তি রহমান। আর ভারতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে জিহাদকে আর সিয়ামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে নেপালে।

এদিকে ঝিনাইদহ থেকে সন্দেহভাজন হিসেবে আওয়ামী লীগ নেতা কাজী কামাল আহম্মেদ বাবুকে আটকের বিষয়ে সদর থানার ওসি মো. শাহীন উদ্দিন বলেন, ‘রাতে ডিএমপি থেকে ডিবি পুলিশ ঝিনাইদহে এসেছিল। তারা বাবুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে নিয়ে গেছে। তবে কী মামলায় বা কোন ব্যাপারে নিয়ে গেছে তা আমি নিশ্চিত বলতে পারছি না।’

তবে স্থানীয় লোকজনের দাবি, এমপি আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার অন্যতম হোতা শিমুল ভূঁইয়ার কাছের আত্মীয় কাজী কামাল আহম্মেদ বাবু। আনার হত্যার ঘটনায় তার কাছ থেকে কোনো তথ্য পাওয়া যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত